শনিবার,২৮শে মার্চ, ২০২০ ইং


‘বাচ্চাদের মেরে ফেললাম, আমার লাশ পাবে রেললাইনে’


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৬.০২.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

রাজধানীর দক্ষিণখানের ফ্ল্যাট থেকে মা ও দুই শিশুসন্তানের লাশ উদ্ধারের পর সেখানে তল্লাশি চালিয়ে একটি ডায়েরি উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাতে এক জায়গায় লেখা, ‘বাচ্চাদের মেরে ফেললাম, আমার লাশ রেললাইনে পাওয়া যাবে।’ পুলিশের ধারণা, হাতের লেখা দুই শিশুর বাবা রাকিবউদ্দিন ভূঁইয়ার হতে পারে। ঘটনার পর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। তাঁকে পাওয়া গেলে হত্যারহস্যের জট খুলবে।

দক্ষিণখানের প্রেমবাগান রোডের একটি বাড়ির চতুর্থ তলার ফ্ল্যাট থেকে গত শুক্রবার বিকেলে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। সে রাতেই ফ্ল্যাটের দরজা ভেঙে মা মুন্নী রহমান (৩৭) এবং তাঁর দুই সন্তান ফারহান উদ্দিন (১০) ও লাইবা ভূঁইয়ার (৩) অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। মা ও মেয়ের লাশ খাটের ওপর আর ছেলের লাশ কক্ষের মেঝেতে পড়ে ছিল। সেখান থেকে আলামত হিসেবে একটি হাতুড়ি ও ডায়েরি উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ বলেছে, হাতুড়ি দিয়ে মাথায় আঘাত করে মুন্নীকে, আর দুই শিশুকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। মুন্নীর স্বামী রাকিবউদ্দিন বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) উত্তরা কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী। তাঁর বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলায়।

পুলিশের উত্তরা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার হাফিজুর রহমান  বলেন, প্রাথমিকভাবে ডায়েরির লেখাটি রাকিবউদ্দিনের বলে মনে হচ্ছে। পরীক্ষা–নিরীক্ষার পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে ওই একটি লাইন ছাড়া খুনের বিষয়ে আর কিছু লেখা ছিল কি না, সে বিষয়ে কিছু বলতে চাননি তিনি।

এদিকে মায়ের সঙ্গে অবুঝ দুই শিশুকে কেন হত্যা করা হলো, এর জবাব খুঁজে পাচ্ছে না স্বজন ও প্রতিবেশীরা। দক্ষিণখানের সর্বত্রই দুই শিশুসহ মাকে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি গতকাল মানুষের মুখে মুখে ছিল।

মুন্নীর পৈতৃক বাড়ি রাজধানীর মহাখালীতে। তাঁর মা–বাবা বেঁচে নেই। মুন্নীরা তিন বোন। এক বোন দেশের বাইরে থাকেন। আরেকজন পরিবার নিয়ে বনানী থাকেন। তাঁর একমাত্র ভাই মুন্না রহমান মহাখালীতে নিজের বাড়িতে থাকেন।

নিহত মুন্নীর মামাতো ভাই ব্যবসায়ী তানভীর আহমেদ দক্ষিণখানেই থাকেন। গতকাল দুপুরে তিনিসহ কয়েকজন স্বজন যে বাসায় মুন্নী থাকতেন, সে বাসার অন্য প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। সেখানে তিনি বলেন, ‘সংসার করতে না চাইলে মুন্নীর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটাতে পারতেন রাকিব। ওদের কেন খুন করল।’ তিনি বলেন, রাকিব আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা ঋণ করেছিলেন। সেই টাকা তিনি পরিশোধ করতে পারছিলেন না।

তানভীর আরও জানান, প্রায় প্রতিদিন মুন্নীর সঙ্গে তাঁদের যোগাযোগ হতো। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বারবার ফোন করলেও মুন্নী ধরেননি। পরদিন বুধবার মুন্নীর বাসায় যান তাঁর (মুন্নীর) এক খালাতো বোন। সেখানে গিয়ে বাসা তালাবদ্ধ দেখে তিনি ফিরে যান। এরপর অন্য স্বজনেরা মুন্নীকে ফোন করলেও ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। কোথাও তাঁদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

মুন্নীদের প্রতিবেশী নাহিদ চৌধুরী , গত মঙ্গলবার বিকেলে রাকিবের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়েছিল। তখন তাঁকে স্বাভাবিক মনে হচ্ছিল। এরপর তাঁকে এলাকায় আর দেখা যায়নি। দক্ষিণখানের প্রেমবাগানের কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, রাকিব অনলাইনে জুয়া খেলতেন বলে তাঁরা শুনেছেন।

মুন্নীর খালাতো ভাই রকিবুল ইসলাম বলেন, এক মাস আগে মুন্নীর স্বামী হঠাৎ নিখোঁজ হন। কিছুদিন আগে বাসায় ফিরে এসে বলেছিলেন, কে বা কারা তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল। তবে এই কথা তাঁরা বিশ্বাস করেননি। ঋণের বোঝার কারণে তিনি আত্মগোপন করতে পারেন।

স্বজনেরা জানান, মুন্নীর হাত, গলা ও কানে ছয় ভরির মতো সোনার গয়না ছিল। মর্গে পাঠানোর আগে সেগুলো পুলিশ তাদের ফেরত দেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে পুলিশের কোনো কর্মকর্তা মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল বিকেলে তিনজনের লাশ নিয়ে যান স্বজনেরা। পরে রাতে বনানী কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি