বুধবার,২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং


পৃথিবীর শীর্ষ চার শান্তির দেশ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৯.০৬.২০২০

ডেস্ক রিপোর্ট:
শান্তি, দুই অক্ষরের এই শব্দটির সাথে আমাদের যেন আড়ির কোন শেষ নেই। ধনী গরীব নির্বিশেষে সবাই শুধু শান্তি খুঁজে। কিন্তু খুব সহজেই কি কেউ তাঁর দেখা পায়। ভাবতে পারেন এখন তো করোনা চলছে, তাই এতো চারিদিকে এমন অশান্তি। করোনা শেষ হলেই আবার সবার শান্তি ফিরে আসবে। সত্যিই কি তাই? করোনা শেষ হলেই কি আমরা সবাই আবার শান্তির মুখ দেখতে পাব? তাই চলুন জেনে আসি পৃথিবীর শান্তির দেশ সম্পর্কে। হাজারো অশান্তির মধ্যে দেখি একটু শান্তি খুঁজে পাওয়া যায় কিনা।

আইসল্যান্ড:
কম্পিউটার বা মোবাইল স্ক্রিনে ওয়ালপেপার হিসেবে যে নৈসর্গিক প্রাকৃতিক দৃশ্য আমরা দেখতে পাই। দেশটি যেন এরই এক বাস্তবিক রুপ। আইসল্যান্ডকে বলা হয় পৃথিবীর সবচেয়ে শান্তির দেশ। দেশটিতে কেবল ৩ লাখ ৩২ হাজার মানুষের বসবাস এখানে। আইসল্যান্ডের পানি এতটাই বিশুদ্ধ যে কোনো প্রকার বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়া ছাড়াই পানি প্রত্যেক ঘরে ঘরে সরবরাহ করা হয়। বিশ্বের সর্ববৃহৎ ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্ট অনুযায়ী, আইসল্যান্ড পৃথিবীর তৃতীয়-সুখী দেশ। আইসল্যান্ডের পুলিশ তাদের সাথে অস্ত্র হিসেবে বন্দুক বহন করে না। এর কারণ সেখানে অপরাধ খুব কম হয় এবং বড় ধরনের কোনো অপরাধ প্রায় অস্তিত্বহীন। আইসল্যান্ড দেশটি এতটাই পরিষ্কার যে সেখানে কোনো মশা নেই। কেবল মশা নয়, মানুষের সমস্যা সৃষ্টিকারী এমন পোকা-মাকড় এর সংখ্যা অনেক কম। গ্লোবাল পিস ইনডেক্স বা বিশ্ব শান্তি সূচক অনুযায়ী, গত ১১ বছর ধরে পৃথিবীর সবচাইতে শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে প্রথম স্থান অধিকার করে আসছে আইসল্যান্ড। ২০০৮ সাল থেকে এই অবস্থান ধরে রেখেছে ইউরোপের অন্যতম ক্ষুদ্র দেশটি।

নিউজিল্যান্ড:
নিউজিল্যান্ড দক্ষিণ-পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের ওশেনিয়া অঞ্চলে অবস্থিত একটি দ্বীপরাষ্ট্র। এখানে অসংখ্য ক্ষুদ্র দ্বীপ আছে, যাদের মধ্যে স্টুয়ার্ট দ্বীপ ও চ্যাথাম দ্বীপপুঞ্জটি উল্লেখযোগ্য। নিউজিল্যান্ডের রাজধানী ওয়েলিংটন উত্তর দ্বীপে অবস্থিত। এটি বিশ্বের সমস্ত রাজধানীর মধ্যে সবচেয়ে দক্ষিণে অবস্থিত। নিউজিল্যান্ডের বৃহত্তম শহর অকল্যান্ড উত্তর দ্বীপেই অবস্থিত। নিউজিল্যান্ডের উভয় দ্বীপই পাহাড়-পর্বতে পূর্ণ। দক্ষিণ দ্বীপে একটি দীর্ঘ পর্বতশৃঙ্খল অবস্থিত, যার নাম দক্ষিণ আল্পস। পর্বতগুলি মহাসাগরীয় আর্দ্র বায়ুগুলিকে ধরে রাখে এবং এর ফলে এগুলির চারপাশে প্রায়ই ঘন কুয়াশার মত মেঘের আবরণ দেখতে পাওয়া যায়। নিউজিল্যান্ড একটি উন্নত দেশ, এটি আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত মানব উন্নয়ন সূচকের উপরের দিকে অবস্থান করে আছে। এছাড়া দেশটির জীবনযাত্রার মান, প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল, শিক্ষার হার, শান্তি ও অগ্রগতি, অর্থনৈতিক স্বাধীনতা, ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগ, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, রাজনৈতিক অধিকার রক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রে অগ্রসরমান একটি দেশ। আর বৈশ্বিক শান্তি সূচকে নিউজিল্যান্ড এর অবস্থান প্রতিবারই শীর্ষে থাকে।

ভুটান:
বিশ্বে সুপরিচিত দেশ গুলোর মধ্যে ভুটান শান্তিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। তার কারণ, দেশের আয়তন এবং জনসংখ্যা কম, তারা অধিকাংশই বৌদ্ধ। তাদের সেনাবাহিনী রাখার জন্য খরচ বা দুশ্চিন্তা কোনোটাই করতে হয়না। ভুটানে বিদেশি নাগরিকদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রিত। অর্থাৎ বছরে নির্দিষ্ট সংখ্যার বেশি বিদেশী ভুটানে প্রবেশ করতে দেয়না। ফলে বিদেশি শক্তি অশান্তি ছড়াতে পারেনা। হিংসায় উৎসাহ দেয় এমন কোন ধর্মপালন নিষিদ্ধ। প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক সৌন্দর্যের কারণে পর্যটন শিল্প উন্নত। ফলে জনগণ যথেষ্ট সুখী। তাদের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক দড়ি টানাটানি বা মানসিক যুদ্ধের ঝামেলা নেই। প্রতিবেশি দেশের সঙ্গে ঝামেলাই যেতে চায় না। তবে চীন মাঝে মধ্যে স্বভাবগত কারনেই ভুটানকে খোঁচা দেওয়ার চেষ্টা করে কিন্তু সেটা সফল হয় না, কারণ সেটা সামলানোর জন্য ভারতের সঙ্গে ভুটানের সুসম্পর্ক যথেষ্ট।

চেক প্রজাতন্ত্র:
ইউরোপের অনেক দেশ যখন শরণার্থী সংকটে বিপর্যস্ত ছিল, তখনও নিজেদের নাগরিকদের সুরক্ষার বিষয়টি ভেবেছে চেক প্রজাতন্ত্র। ইউরোপের এই দেশটি বৈশ্বিক শান্তি তালিকায় বরাবরই অবস্থান করে।

এই দেশগুলো ছাড়াও ডেনমার্ক, নরওয়ে, কানাডা ও ইউরোপের বেশ কয়েকটি কল্যাণমূলক রাষ্ট্র রয়েছে, যারা শান্তির দেশ হিসেবে বিবেচিত হয়। তাছাড়া, প্রতি বৎসর বিশ্বশান্তি সূচক বা জিপিআই বিভিন্ন নির্দেশক ব্যবহারের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও আঞ্চলিক পর্যায়ের শান্তির অবস্থান নির্ণয় করে। ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিক্স অ্যান্ড পিস কর্তৃক প্রতি বছর এ সূচক প্রদান করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি এমন তালিকা প্রথম প্রকাশ করে ২০০৭ সালে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি