বুধবার,৫ই আগস্ট, ২০২০ ইং


করোনা উপসর্গ নিয়ে কুমেক হাসপাতালে এক সপ্তাহে ১৭ জনের মৃত্যু


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৯.০৭.২০২০

স্টাফ রিপোর্টার:
করোনার উপসর্গ নিয়ে  কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড ইউনিটে গত এক সপ্তাহে ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

১৮ জুলাই দুপুর থেকে ১৯ জুলাই সকাল পর্যন্ত সময়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের আইসিইউতে একজন, আইসোলেশন ওয়ার্ডে একজন এবং করোনা ওয়ার্ডে একজনের মৃত্যু হয়। করোনার উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার আবুল কালাম (৫৫), কুমিল্লা নগরীর কালিয়াজুরী পারভীন আক্তার (৫০) এবং লাকসাম উপজেলার রোশন আরা (৪০)।

শুক্রবার (১৭ জুলাই) দুপুর থেকে শনিবার (১৮ জুলাই) সকাল পর্যন্ত সময়ে হাসপাতালটিতে করোনা উপসর্গ জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট নিয়ে ২ জনের মৃত্যু হয়। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার দেবিদ্বারের সিদ্দিকুর রহমান(৭৫), সিটি করপোরেশনের আবুল কাশেম (৭৮), মুরাদনগরের আব্দুল বাতেন (৭৫) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবিনগরের আব্দুল গফুর (৬০)।

এছাড়া মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) দুপুর থেকে বুধবার (১৫ জুলাই) সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড ইউনিটে করোনার উপসর্গ নিয়ে আরো ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার দেবিদ্বারের মোঃ আবদুল গফুর (৯৬), লালমাইয়ের মফিজুল ইসলাম (৭০), লাকসামের আবদুল গফুর (৬২) ও নাঙ্গলকোটের জাহেরা খাতুন (৭০)।

সোমবার (১৩ জুলাই) দুপুর থেকে মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড-১৯ ইউনিটে করোনার উপসর্গ নিয়ে আরো ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার সদরের মোঃ আলম হোসেন (৫১), আবদুল মান্নান (৮২), সদর দক্ষিনের হাসান ইমাম ((৬৮) লাকসামের নেপাল চন্দ্র দাস (৫৫) ও লালমাইয়ের দুধ মিয়া (৭০) রয়েছেন।

রোববার (১২ জুলাই) দুপুর থেকে সোমবার (১৩ জুলাই) সকাল পর্যন্ত এক নারীসহ আরও তিন জন মারা গেছেন। হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসিইউতে একজন, করোনা ওয়ার্ডে একজন এবং আইসোলেশনে একজন মারা যান। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে আইসোলেশনে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আলী আহম্মেদের ছেলে শের খান (৬০), আইসিইউতে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার গোবিন্দপুর এলাকার জাহাঙ্গীরের ছেলে সুজন (৩১) এবং করোনা ওয়ার্ডে মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা থানার মাহেরপুর গ্রামের ফজলুর রহমানের মেয়ে রোকসানা (৭০) মারা যান।

এ নিয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ২৩৬ জন। এর মধ্যে অধিকাংশ করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি