বুধবার,৫ই আগস্ট, ২০২০ ইং
  • প্রচ্ছদ » কুমিল্লা নিউজ » কুমিল্লার বরুড়ায় ২০০ বছরের ১০ ফুট পুরনো রাস্তা কেটে ৩ ফুট করলো ছাত্রলীগ নেতা: দুর্ভোগে শত পরিবার


কুমিল্লার বরুড়ায় ২০০ বছরের ১০ ফুট পুরনো রাস্তা কেটে ৩ ফুট করলো ছাত্রলীগ নেতা: দুর্ভোগে শত পরিবার


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৯.০৭.২০২০

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের সাপলোলা গ্রামের ২ শত বছরের পুরনো ১০ ফুট প্রশস্ত সরকারি কাবিখা প্রকল্পের আওতায় নিমির্ত রাস্তা কেটে ফেলে এখন ৩ ফুট করেছে মোঃ রাকিবুল আলম নামের এক স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা। যার ফলে এ রাস্তা দিয়ে চলাচলরত প্রায় ১ শত পরিবারের প্রায় ৩ শত মানুষ প্রতিনিয়ত সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। রাস্তাটি সলিং করার জন্য টেন্ডার আহ্বান করার ৯০ দিনের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করার কথা থাকলেও ৮ মাস অতিবাহিত হয়েছে , কাজ শুরু করেনি কাজটির ঠিকাদার কোম্পানি। এমন অভিযোগ করেছেন কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধার পরিবারসহ স্থানীয় ভুক্তভোগিরা।

এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনারের (ভূমি) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ভুক্তভোগি বীরমুক্তিযোদ্ধা সাঈদ আহমেদ ও বীরমুক্তিযোদ্ধা ছিদ্দিকুর রহমান।

ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলরত ভুক্তভোগি বীরমুক্তিযোদ্ধা সাঈদ আহমেদ ও বীরমুক্তিযোদ্ধা ছিদ্দিকুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইলিয়াস খান (৭০),মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার আলী(৬৯), মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের(৬৬),ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মনজুর জানান, ২ শত বছরের এ রাস্তাটি দিয়ে প্রায় এক শত পরিবারের প্রায় ৩ শত মানুষ চলাচল করে। ২০০৯ সালে কাবিখা প্রকল্পের আওতায় ১০ ফুট প্রশস্থ রাস্তাটি সংস্কার করে নিমির্ত করা হয়। পরবর্তীতে রাস্তাটির সলিং করার জন্য বিগত ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় টেন্ডারের মাধ্যমে কাজটি পান মেসার্স আর এ পাটোয়ারী এন্টারপ্রাইজের ঠিকাদার ছাত্রলীগ নেতা মোঃ রাকিবুল আলম। রাকিবুলের বাসাও একই এলাকায়। কাজ পাওয়ার পর ইট-বালি এনে রাস্তার পাশে রাখে ঠিকাদার রাকিবুল। পরবর্তীতে কাজ না করে রাকিবুল তার দলবল নিয়ে চলতি বছরের ১৫ মে রাতের আধারে প্রায় ১২০০ ফুট রাস্তা কেটে ফেলে আমাদের রাস্তাটি সরু করে দেয়। এখন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করা কষ্টকর হয়ে পড়েছে। কেউ মারা গেলে তার মরদেহের খাটিয়া নিয়ে এই রাস্তা দিয়ে বের হওয়া যায় না। এখন বর্ষাকালে আরো করুণ অবস্থা এই রাস্তাটির। এছাড়া পল্লী বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার যুক্ত খুটির মাটি কেটে ফেলায় যে কোন সময় মারাত্নক দুঘর্টনা ঘটতে পারে।রাকিবুলকে বার বার বলার পরও সে আমাদের কথা শুনে নি। বরং উল্টো তার ফিশারির মাছ মেরে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে। রাকিব ও তার বাহিনী কারো কথা মান্য করে না। টেন্ডার হওয়ার ৩ মাসের মধ্যে রাস্তার কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও গত ৮ মাসে রাস্তার কাজ শুরুই করেনি ঠিকাদার রাকিব। আমরা এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারি কমিশনারের (ভূমি) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি।

এ বিষয়ে মেসার্স আর এ পাটোয়ারী এন্টারপ্রাইজের ঠিকাদার মোঃ রাকিবুল আলমের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনিসুল ইসলাম জানান, রাস্তাটির সলিং করে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার জন্য ঠিকাদারকে নির্দেশ দেওয়া হবে। করোনা প্রকোপের জন্য এ বিষয়টি বিলম্ব হয়েছে। আশা করি অচিরেই রাস্তার কাজ সম্পন্ন হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি