বুধবার,৫ই আগস্ট, ২০২০ ইং


কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৬ দিনে করোনার উপসর্গে ৪০ জনের মৃত্যু


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৮.২০২০


ইসতিয়াক আহমেদ:
কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে গত ১৪ জুলাই থেকে ২৯ জুলাই পর্যন্ত গত ১৬ দিনে করোনাভাইরাসের লক্ষণ ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৪০ জন। করোনার প্রকোপ শুরু থেকে ২৯ জুলাই পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে ২৭৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (২৯ জুলাই) সকালে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনাভাইরাসের লক্ষণ ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৬ জন। মৃত ব্যক্তিরা হলেন- কুমিল্লা সদর উপজেলার তালতলা এলাকার মৃত আলী মিয়ার ছেলে মো. জুলফিকার আলী টিটু (৪৬), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার মোমেনের ছেলে ফুল মিয়া (৬৫), কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ওমর আলীর মেয়ে আতরন্নেছা (৭৭), দেবিদ্বার উপজেলার আবদুল জলিলের মেয়ে শাহানারা বেগম (৫৫), কাদিরপুর এলাকার আবদুল মতিনের ছেলে মো. শাহাজাহান (৫৫) ও কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার জহিরুল ইসলামের মেয়ে তাসলিমা বেগম (৪০)।

মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন পুরুষ ও একজন নারী। মৃত ব্যক্তিরা হলেন- বরুড়া উপজেলার আইয়ুব আলীর ছেলে মনিরুল ইসলাম (৭২), বুড়িচং উপজেলার রায়পুর গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফের ছেলে লুতু মেম্বার (৬৫) ও দাউদকান্দি উপজেলার মঞ্জু মিয়ার স্ত্রী বিলকিস বেগম (৩৪)।

শনিবার (২৫ জুলাই) কুমেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৩ জন। তারা হলেন জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার ইদ্রিস মিয়ার ছেলে আবুল বাশার (৭০), লাকসাম উপজেলার মৃত গোলাম কাদেরের ছেলে আতর আলী (৮৫) এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথেরপেটুয়া এলাকার আজিজুল হকের ছেলে মীর হোসেন (৫৫)।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে তিন নারীসহ ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার আলী মিয়ার ছেলে আবদুল খালেদ (৬৫), কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নুরুজ্জামানের মেয়ে আমেনা বেগম (৭৭), চাঁদপুর শাহারাস্তি উপজেলার আবদুল হাকিমের ছেলে আবদুল লতিফ (৮০), একই উপজেলার আলী আক্কাসের মেয়ে হোসনেয়ারা বেগম (৬০), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের সাহিদুল হকের ছেলে মহিউদ্দিন (৫৫) এবং কুমিল্লার সন্দেশপাড়া এলাকার মৃত জাবেদ আলীর মেয়ে রাইতার নেছা (৬৫)।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে তিন নারীসহ ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার আলী মিয়ার ছেলে আবদুল খালেদ (৬৫), কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নুরুজ্জামানের মেয়ে আমেনা বেগম (৭৭), চাঁদপুর শাহারাস্তি উপজেলার আবদুল হাকিমের ছেলে আবদুল লতিফ (৮০), একই উপজেলার আলী আক্কাসের মেয়ে হোসনেয়ারা বেগম (৬০), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের সাহিদুল হকের ছেলে মহিউদ্দিন (৫৫) এবং কুমিল্লার সন্দেশপাড়া এলাকার মৃত জাবেদ আলীর মেয়ে রাইতার নেছা (৬৫)।

মঙ্গলবার (২১ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ২ জন নারীর মৃত্যু হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া দুইজন নারী হলেন, কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের রুহুল আমীনের স্ত্রী পেয়ারা বেগম (৬৫) ও কুমিল্লা মুরাদনগরের আবদুল মজিদের স্ত্রী নুর জাহান (৬০)।

রোববার (১৯ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনার উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার আবুল কালাম (৫৫), কুমিল্লা নগরীর কালিয়াজুরী পারভীন আক্তার (৫০) এবং লাকসাম উপজেলার রোশন আরা (৪০)।

শনিবার (১৮ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ২ জনের মৃত্যু হয়। মৃতরা হলের মুরাদনগরের আব্দুল বাতেন (৭৫) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবিনগরের আব্দুল গফুর (৬০)।

বুধবার (১৫ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার দেবিদ্বারের মোঃ আবদুল গফুর (৯৬), লালমাইয়ের মফিজুল ইসলাম (৭০), লাকসামের আবদুল গফুর (৬২) ও নাঙ্গলকোটের জাহেরা খাতুন (৭০)।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আরও ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার সদরের মোঃ আলম হোসেন (৫১), আবদুল মান্নান (৮২), সদর দক্ষিনের হাসান ইমাম (৬৮) লাকসামের নেপাল চন্দ্র দাস (৫৫) ও লালমাইয়ের দুধ মিয়া (৭০) রয়েছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি