রবিবার,২৫শে অক্টোবর, ২০২০ ইং


কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ সড়কের বেহাল দশা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২২.০৯.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বাংলা সাহিত্যের নন্দিত কথাসাহিত্যিক প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদ। তাঁর পৈত্রিক নিবাস নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার রোয়াইল বাড়ি ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামে। যেখানে ৩ একরেরও বেশি জায়গা নিয়ে ‘শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠ’ নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন হুমায়ূন।

২০১৪ সালে হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে তার নামে নামকরণ করা হয় কেন্দুয়া উপজেলার চেংজানা-বঙ্গবাজার সড়কটির।

কিন্তু হুমায়ূন আহমেদ সড়কটির বর্তমান অবস্থা বেহাল। এ সড়ক দিয়ে বর্তমানে যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা পায়ে হেঁটেও যাতায়াত করতে পারছেন না জনসাধারণ। বিশেষ করে হুমায়ূন আহমেদ প্রতিষ্ঠিত ‘শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠ’ দেখতে দেশের দূর-দুরান্ত থেকে পর্যটক ও দর্শনার্থী এই পথে এসে চরম দুর্ভোগে পড়েন।

জানা গেছে, কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ সড়কটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৫ কিলোমিটার। এক সময় রোয়াইলবাড়ি ইউনিয়নের ৭/৮টি গ্রামের মানুষ জেলা ও উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ করার সহজ মাধ্যম ছিল এ সড়কটি। কিন্তু বর্তমানে রাস্তাটি পুকুর গর্ভে বিলিন হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ভেঙে গেছে কয়েকটি কালভার্ট। সড়কের পাকা অংশের কাপের্টিং ও পিচ উঠে গিয়ে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া সড়কটিতে বেতাই নদীর ওপর নির্মিত সেতুটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে সেতুটি পারাপার হচ্ছে যানবাহনসহ সাধারণ মানুষ। সেতুটি ধসে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

এদিকে, ২০০৮ সালে সড়কটির এক কিলোমিটার পাকাকরণ করা হলেও নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় কয়েক বছর না যেতেই পিচ-ঢালাই উঠে গিয়ে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এরপর সড়কটির আরো দেড় কিলোমিটার হেরিংবোনবন্ড (এইচবিবি) উন্নয়ন করা হয়। এই কাজও ঠিকমত হয়নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ রয়েছে।

রাস্তায় ইট গাথুনির পর পরিমাণমত বালু ব্যবহার না করায় ইটগুলো উঠে যাচ্ছে এবং গত অর্থবছরে তৃতীয়বারের মতো সড়কটির আরো এক কিলোমিটার হেরিংবোনবন্ড (এইচবিবি) উন্নয়ন করা হয়। কিন্তু কাজ শেষ হতে না হতেই রাস্তা ধসে পড়ার অভিযোগ উঠে। বাকি প্রায় দেড় কিলোমিটার কাচা সড়কে কাঁদাপানিতে সয়লাব।

শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক আসাদুজ্জামান জানান, স্যারের স্বপ্নে ‘শহীদ স্মৃতি বিদ্যাপীঠ’ এক নজর দেখতে বহু পর্যটক, দর্শনার্থীর আগমন ঘটে। রাস্তায় দুর্ভোগের শিকার হওয়ার অনেক তিক্ততার কথা তারা আমাদের জানায়। আমাদের শিক্ষার্থীরাও খুব কষ্ট করে এই পথ পাড়ি দিয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করে। আমরাও প্রশাসনিক কাজে ৫ কিলোমিটার রাস্তার জন্যে ঘুরে যেতে হয় প্রায় ১২ কিলোমিটার রাস্তা। চেংজানা-বঙ্গবাজার সড়কটি পাকাকরণ করা হলে এলাকার জীবনমান উন্নয়ন হবে। তিনি এলাকার সর্বস্তরের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে রাস্তাটি পাকাকরণের জোর দাবি জানান।

এ বিষয়ে কেন্দুয়া উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, সড়কটি নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিল মহোদয়ের কাছে সড়কটি নিয়ে প্রাক্কলন জমা দেয়া হয়েছে। দ্রুত সড়কটির মেরামত কাজ ও কাচা অংশের পাকাকরণের কাজ শুরু হবে বলেও জানান তিনি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি