রবিবার,১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


কুমিল্লায় মাদরাসা ছাত্রকে বলাৎকার, গ্রেপ্তার শিক্ষক


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২১.১১.২০২০

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লা নগরীর এক মাদরাসায় ১১ বছরের ছাত্রকে জোরপূর্বক বলাৎকারের অভিযোগ উঠেছে মাদরাসার এক শিক্ষককের বিরুদ্ধে।

গতকাল শুক্রবার ( ২০ নভেম্বর) এই ঘটনায় শিশুর বাবা বাদী হয়ে কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানায় মাদরাসার শিক্ষক ধর্ষক তানভীর আহম্মেদ (২৪) ও মাদরাসার বড় হুজুর ফারুক হোসাইনকে (৪৮) আসামি করে একটি মামলা করেন।

এরপর একই রাতে অভিযান চালিয়ে তানভীরকে গ্রেপ্তার করেন পুলিশ। অন্যদিকে বড় হুজুর ফারুক হোসাইন পালাতক রয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত তানভীর আহাম্মেদ চাঁদপুর জেলার সদর উপজেলার মমিনপুর গ্রামের মো. ফারুক আহাম্মেদের ছেলে এবং ফারুক হোসাইন একই জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার পূর্ব হাটিলা গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।

ভুক্তভোগী শিশু বলাৎকারের অভিযোগ নিয়ে ওই মাদরাসার বড় হুজুরের কাছে বিচার নিয়ে গেলে বিষয়টি মা-বাবাসহ কাউকে না জানিয়ে গোপন রাখার জন্য বলা হয়। কাউকে জানালে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে মারার ভয় দেখিয়ে চুপ থাকতে বলেন ওই বড় হুজুর ফারুক হোসাইন।

কিন্তু তারপরেও ফারুক ওই শিশুকে কারেন্টের পেঁচানো তার দিয়ে দুই পায়ের তালুতে আঘাত করে আহত করে। ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার নগরীর দক্ষিণ চর্থা এলাকায় অবস্থিত দারুণ নাজাত নামে একটি হাফেজিয়া মাদরাসায়।

শিশুটির বাবা মামলায় উল্লেখ করেন, গত ৫, ৬ মাস আগে তার ১১ বছরের ছেলেকে দারুণ নাজাত নামে ওই হাফেজিয়ায় ভর্তি করেন। ধর্ষক তানভীর আহাম্মেদ তার ছেলের কুরআন শরীফ ছবক নিতেন।

গেলো নভেম্বর তার স্ত্রীকে নিয়ে মাদরাসায় ছেলেকে দেখতে আসলে সে ভয়ে কাতর অবস্থায় দেখেন এবং অসুস্থ মনে হয়। অসুস্থতার কারণ জানতে চাইলে ১১ বছরের শিশুটি জানায় মাদরাসার শিক্ষক তানভীর তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হক জানান, মাদরাসায় শিশু ছাত্রকে বলাৎকারের ঘটনায় অভিযুক্ত হুজুরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি