বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১২.১১.২০১৪

এ এম এম শামসুদ্দিন চৌধূরী
প্রাক্তন মহাব্যবস্থাপক,বেপজা

কেউ বলেন ফ্রি-পোর্ট, কেউবা রপ্তানী আবার কেহ বা বেপজা। হ্যাঁ, বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ এলাকা- ইপিজেড নিয়েই কথা। সমাজের ছোট বড় সবাই এখন ইপিজেড সম্পর্কে মোটামুটি ধারণা রাখেন। তাই মনে প্রশ্ন জাগতে পারে ইপিজেড থাকতে নতুন নতুন ইপিজেড না করে ঝঢ়বপরধষ ঊপড়হড়সরপ তড়হব(ঝঊত) বা বিশেষ শিল্পাঞ্চল এলাকা কেন? এটা আবার কি?

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিগত বছরগুলোতে বিভিন্ন সময়ে নানাভাবে এসইজেড এর কথা বলেছেন। অতি সম্প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের সময় চীনা বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল বানানোর ব্যাপারে চুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়েছে। ”দেশে আর ইপিজেড নয়, আমরা সারাদেশে এসইজেড বানাবো”। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ উক্তি,দেশের উন্নয়ন কার্যক্রম ,মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার জন্য নানামুখী পদক্ষেপ এবং সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল-ইপিজেড এর চাইতে কতবেশী কর্মসংস্থান সহায়ক ভূমিকা রাখতে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য কত- কতদূর সূদূর প্রসারী হতে পারে তা নিম্নের এ মৌলিক আলোচনায় বুঝতে চেষ্ঠা করব।
প্রথমেই বহুমাত্রিক জোনিং প্রক্রিয়ায় শিল্পয়ন ও উন্নয়ন সম্পর্কে যথাকিঞ্চিত বলা যেতে পারে। আমাদের মতো অতি ঘন-বসতি ও জনবহুল দেশে ভূমি স্বল্পতা শিল্পায়ন প্রক্রিয়ায় একটা বড় বাধা। কিন্ত সকল ধরণের উৎপাদন ব্যবস্থা ও একই ধরণের উৎপাদন প্রক্রিয়া যদি একটা সুনির্দিষ্ট কিন্তু সীমাবদ্ধ এলাকা কেন্দ্রিক গড়ে তোলা হয় তাহলে বিভিন্ন এলাকায় বা একই এলাকায় ছড়ানোছিটানো বিচ্ছিন্নভাবে স্থাপিত বা স্থাপিতব্য শিল্প প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত ভূমির চাইতে আমাদের অপ্রতুল কিন্ত উর্বর ভূমির ব্যবহার নিতান্তই কম হবে।আমাদের দেশের জন্য মূলতঃ এ কারনেই অতি দ্রুততার সাথে শিল্পায়ন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে বহুমাত্রিক জোনিং একট অবশ্যম্ভাবী ব্যবস্থা হতে পারে। এক একটা এলাকায় স্থাপিত সুনির্দিষ্ট সীমার মধ্যে বহুমাত্রিক জোনিং ব্যবস্থাই বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের (এসইজেড) একটা অত্যাধুনিক পরিশলিত রূপ।
ভৌগলিক ভাবে এসইজেড হলো একটা বহুমানিত্রক জোনিং এলাকা যার সীমানা সুনির্দিষ্ট,একক প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত,বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ,আকর্ষনীয় ও সুচিন্তিত প্রণোদনা প্যাকেজ যেমন ডিউটি ফি আমদানী-রপ্তানী, নিয়মনীতি অনুযায়ী স্থানীয় বাজারে পণ্য সরবরাহের সুযোগ,সুনির্দিষ্ট সময়ের জন্য কর রেয়াতের সুবিধা,সরলীকরণ কাষ্টমস নীতিমালা,জোনের সাথে সম্পর্কিত আর্থিক ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান স্থাপনের নিশ্চয়তা বিধান করা ইত্যাদি। ফলশ্রুতিতে বহুমুখী রপ্তানী আয়ের উৎস সৃষ্টি হওয়ার সুযোগ,আমদানী নির্ভরতা ক্রমাগত হ্রাস পেয়ে আত্বনির্ভরশীল বিকল্প শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠার সুযোগ, দেশীয় চাহিদার প্রতিপূরণ,স্যাটেলাইট পদ্ধতির নতুন নগরায়নের সূচনা,দেশীয় ও আর্ন্তজার্তিক চাহিদা অনুযায়ী আর্থিক ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠা ,শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র,আবাসিক এলাকা,বিনোদন ব্যবস্থা, হোটেল-মটেল-শপিংমল, সর্বোপরি প্রচুর কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা, ইত্যাদি আধুনিক এসইজেড এর অন্যতম বৈশিষ্টাবলী।
তাছাড়া,এসইজেড এর নিজস্ব যোগাযোগ অবকাঠামো,অতি সন্নিকটে অবস্থিত যোগাযোগ যেমন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর,রেলওয়ে, সমুদ্র-নদীবন্দর, লজিষ্ঠিকস্ কমপ্লেক্স,নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস,বিদ্যুৎ ও সুপেয় পানি, কঠিন/তরল বর্জ্যের পরিশোধন ব্যবস্থা,টেলিযোগাযোগ স্যাটেলাইট,আইটি ইত্যাদি এসইজেড এর আনুসাঙ্গিক ও অপিরহার্য্য বিষয়। এক কথায়,শিল্প-প্রতিষ্ঠান,ব্যবসা বাণিজ্য সহ জীবন যাপনের সকল আধুনিক উপকরণ নিয়েই এক একট স্বয়ং স¤পূর্ণ এসইজেড গড়ে উঠে।

-২-
সম্মানিত পাঠক,বর্ণিত অবস্থা থেকেই আপনি ইপিজেড এর সাথে এসইজেড এর গুনগত ও মানগত অবস্থা নিরূপন করতে পারেন। বর্তমানে অতি দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্ববাণিজ্য ও অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের প্রেক্ষাপটে আমাদের দেশে প্রচলিত ইপিজেড এখন সনাতনী ধারণা বলে বিবেচিত। বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ এলাকা আইন-১৯৮০ নামের মধ্যেই আপনি এর সুস্পষ্ঠ পার্থক্য দেখতে পারেন। এই আইন অনুযায়ী ইপিজেডে স্থাপিত প্রতিষ্ঠান সমূহ হবে শতভাগ রপ্তানীমুখী। আপনি শুল্কমুক্ত কাচাঁমাল আমদানী করবেন,প্রক্রিয়াজাত তথা উৎপাদন করে রপ্তানী করবেন,এর বাইরে কিছু করার সুযোগ আপনার নেই।

এসব সীমাবদ্ধতার কারণে উচ্চ প্রযুক্তির মূলধন নির্ভর শিল্প প্রতিষ্ঠান যেমন আইটি,ঔষধশিল্প ও উপকরণ উৎপাদন,ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স শিল্প ও প্রযুক্তি,সকল ধরণের গাড়ী এসেম্বলী/উৎপাদন,কসমেটিক্স ও উপরকণ শিল্প, ভারী যন্ত্র ও যন্ত্রাংশ,খেলার সমাগ্রী ও গৃহস্থালী দ্রব্যাদি ইত্যাদি নানা ধরণের শিল্প প্রতিষ্ঠানে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগে আগ্রহীরা যাঁরা একই সাথে সংশ্লিষ্ট পণ্যটি রপ্তানী করবেন আবার স্থানীয় বাজারেও বিক্রয় করতে চাইবেন,তারা ইপিজেডে বিনিয়োগে আদৌ আগ্রহী নন।

তাছাড়া ডব্লিউটিও ঐক্যমত্যের পূর্ব ও পরবর্তী বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা,উন্নত বিশ্বে শিল্প ও বাণিজ্যে কেন্দ্রিক অত্যাধিক ব্যয়,অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে অভূতপূর্ব পরিবর্তনের হাওয়া,প্রতিযোগীতামূলক বাজারে ঠিকে থাকার লড়াইয়ের প্রেক্ষাপটে উন্নত বিশ্ব-বাণিজ্য সম্প্রদায় উন্নয়নকামী দেশ সমূহে ব্যবসা বাণিজ্য স্থানান্তর সহ শিল্প কারখানায় প্রত্যক্ষ বিনিয়োগে প্রবলভাবে অনেক আগে থেকেই আগ্রহী হয়ে উঠেছেন, যেসব উন্নয়নকামী দেশ এসব বিদেশী বিনিয়োগকারীদের প্রত্যাশা ও চাহিদা অনুযায়ী বিনিয়োগ সুবিধাদি নিশ্চিত করবেন এবং বিনিয়োগের পূর্ণ নিরাপত্তা বিধান করবেন,স্বাভাবিক ভাবে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগ সেদিকেই ঝুঁকবে। সুতরাং, আমাদের ভূমি স্বল্পতার কথা মনে রেখে এক একটা সুনির্দিষ্ট ও সীমাবদ্ধ এলাকায় প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের নিকট গ্রহণযোগ্য ও সুপরিকল্পিত এসইজেড স্থাপন আমাদের জন্য অতীব জরুরীই নয়,এটা সময়েরও দাবী।

সরকার সর্বপ্রথম এসইজেড করার উদ্যোগ নেন ২০০৮ সালের এপ্রিলে। নোয়াখালী জেলার সুবর্ণচরে যথাক্রমে ২৪০০ ও ২০০০ একর সরকারী ভূমিকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আই এফ সি/ডি আই এফ ডি এর মাধ্যমে সমীক্ষা চালানো হয়।প্রস্তাবিত এলাকাকে ঢাকা-চট্টগ্রামের সাথে তুলনা করে প্রস্তুত সমীক্ষাটি ছিল প্রায় স¤পূর্ণ নেতিবাচক আর ব্যর্য়ে হিসাব দেখানো হয়েছিল গগণচুম্বী। ফলাফলঃ সমীক্ষকদের মতে আর্থিক বিবেচনায় এখানে এসইজেড গ্রহণযোগ্য নয়।
অথচ, চীন সরকার ১৯৮০ এর গোড়ার দিকে চীনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলে গুয়াংডং প্রদেশের ছোট্ট একটা অখ্যাত গ্রামে সর্বপ্রথম এসইজেড কার্য্যক্রম হাতে নেন। অতি অল্প সময়ের মধ্যে শেনজেন নামের এ এসইজেডটি অত্যন্ত সফলতার সাথে সারাবিশ্বের বিনিয়োগকারীদের নিকট গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠে। মাত্র ২০ বছরের মাথায় অখ্যাত এ ছোট গ্রামটি এক কোটি মানুষের একটি মহানগরে রূপ নেয়। শেনজেন ইপিজেডের অভূতপূর্ব সাফল্যে ও অনুরূপ এসইজেড এর কল্যাণে ” সমগ্র চীন দেশটাই যেন একট কারখান” হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করে। চীন সরকার বিশ্বব্যাংক বা সহযোগী প্রতিষ্ঠান দিয়ে সমীক্ষা চালিয়েছেন কিনা এমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

-৩-

সরকার যদি ২০০৮ এ নূন্যতম প্রক্রিয়ায় ও খরচে ইপিজেড অভিঞ্জতার আলোকে নোয়াখালীতে এসইজেড এর সিদ্ধান্ত নিতেন,তাহলে দেশে এসইজেড এর গোড়া পত্তন হতো,এ অঞ্চলের মানুষের বহুদিনের লালিত স্বপ্ন চট্টগ্রাম-নোয়াখালী সরাসরি রেল ও মহাসড়কের কাজ মাত্র এক ঘন্টার দুরুত্বে হয়ত এতোদিনে শেষ হতো। তাছাড়া, এ এসইজেড এর কারণে কোন না কোন সময় চট্টগ্রাম-সন্দ্বীপ ক্রস ডেমের চিন্তাভাবনা বাস্তবে রূপ নিলে পুরো অঞ্চলটি বাংলাদেশের প্রায়ই সমান আর একটা সিঙ্গাপুরে রূপ নিতে পারতো। ”সাজানো বাগানে নতুন প্রজাতির ফুল ফোটানো অতি সহজ,বন জঙ্গলে আচ্ছাদিত স্থানে ফুল ফোটানো একটু কষ্টের বৈ-কি”।

এসইজেড এ চীনের সাফল্যে উ™ু¢দ্ধ হয়ে ব্রাজিল, ভারত, ইরান, জর্দান, কাজাকিস্তান, পাকিস্তান, পোলান্ড, রুশিয়া প্রমুখ দেশ সমুহ চীনের মত করে প্রচেষ্টা চালান কিন্তু সফল হননি,তবে এক্ষেত্রে ভিয়েতনাম ব্যতিক্রম,তাঁরা নিজেরা,কোন কোন ক্ষেত্রে চীনের অনুসরনে ও আনুকুল্যে ইপিজেড, এসইজেড,সিঙ্গেল ফ্যাক্টরী ইপিজেড,ইন্ডাষ্ট্রিয়াল জোন,হাইটেক জোন,সফটওয়্যার পার্ক ইত্যাদি স্থাপনে বিশেষ সফলতা লাভ করেন। ২০০৮ এর হিসেবে এগুলোর সংখ্যা ১৮৫,এর মধ্যে মাত্র ২০টি সরকারী মালিকানাধীন।

বাংলাদেশে ইপিজেড স্থাপন ও কার্য্যক্রম পরিচালনায় অত্যন্ত সুনাম ও সফলতার সাথে বিশ্ব বাণিজ্যে ও শিল্প সম্প্রাদায়ের নিকট আমাদের ইপিজেড অত্যন্ত সমদৃত। ঢাকা-চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক ইপিজেড স্থাপনের একমুখীতা দূর করে বেপজা বোর্ড অব গর্ভনরস এর সম্মানিত প্রধান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত বলিষ্ঠ ও একক সিদ্ধান্ত, আঞ্চলিক উন্নয়নে সহানূভুতিশীল সম-সুদৃষ্টির কারণে ১৯৯৮-৯৯ সালে কার্য্যক্রম শুরু করে আজ ঈশ্বরদী,নিলফামারী ও মংলা ইপিজেড এ ঢাকা ও চট্টগ্রামের মতই বিনিয়োগ এগিয়ে এসেছে ও আসছে। ফলে এ এলাকাগুলোতে কর্মসংস্থানের অপূর্ব সুযোগও সৃষ্টি হয়েছে।

যেহেতু ইপিজেড স্থাপনে আমরা সফল হয়েছি এসইজেড স্থাপনেও আমরা সফল হব এটা অনস্বীকার্য্য। বেশকিছুর ইস্যুর উপর এসইজেড এর সাফল্য নির্ভর করেঃ যথাযথ স্থান নির্বাচন,এর কৌশলগত অবস্থান,নিরবিচ্ছিন্ন ইউটিলিটি সার্ভিস,অবকাঠামোর উন্নয়ন, বিনিয়োগ বান্দব সরকারী নীতিমালা যা বর্তমানে বিদ্যমান,কর্মকর্তাদের পেশাগত দক্ষতা ও সক্ষমতা ইত্যাদি এসইজেড এর গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

মনে রাখা প্রয়োজন,একজন বিদেশী তাঁর কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা একটি দেশে বিনিয়োগ করবেন,তাঁর দৃষ্টিকোন ও চাহিদার যথাযথ মূল্যায়ন হওয়া উচিত। যেসব কর্মকর্তা তাঁদের নিয়ে কাজ করবেন,যদি তারা নিজেরাই বিনিয়োগকারী হতেন তাহলে কি করতেন এ অপ্রকাশিত সত্যটি যিনি যত ভালভাবে উপলদ্ধি ও প্রয়োগ করতে পারবেন, অত্যন্ত সফলতার সাথে তিনি দায়িত্ব পালন করতে পারবেন,এটাও এসইজেড পরিচালনার অন্যতম চালিকাশক্তি।

এসইজেড বহুধা নামে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিচিতঃ ফ্রি-ট্রেড জোন,ইপিজেড,ফ্রি-জোনস্,ইন্ডাষ্ট্রিয়াল এষ্টেট/পার্ক,ফ্রি-পোর্টস্,আর্বান এন্টারপ্রাইজ জোনস্,সিঙ্গেল ইপিজেড ফ্যাক্টরী,ইপিজেড সাইন্স পার্ক,ফরেন ইনভেষ্টমেন্ট জোন,ইন্ডাষ্ট্রিয়াল গ্লোবাল পার্ক,স্পেশালাইজড জোনস্,টেকনোলজী ডেভেলাপমেন্ট জোনস্,ফরেন ট্রেড জোনস্ ইত্যাদি।
–৪–

একটা বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভিতর অনেকগুলো নির্দিষ্ট জোন বা ব্লক থাকতে পারে, এর বিন্যাস নিম্নভাবে হতে পারেঃ

১। রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা: যার শতভাগ রপ্তানী করবেন তাঁরা এ লাকা বেছে নেবেন।

২। ডমিষ্টিক প্রসেসিং বা দেশীয় শিল্প প্রক্রিয়াকরণ এলাকাঃ আমদানী পন্যের বিকল্প বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠান স্থাপনে আগ্রহী বিনিয়োগকারী যাঁরা সরকারী নীতিমালা মেনে স্থানীয় বাজারে পণ্য বিক্রি করবেন এবং একই সাথে রপ্তানীও করবেন তাঁদের জন্য এ এলাকা।

৩। মূলধন নির্ভর ভারী শিল্প এলাকা: ভারী শিল্পের জন্য অবকাঠামো কিছুটা ভিন্ন প্রকৃতির হতে পারে বিধায় এই আলাদা ব্লক।

৪। বাণিজ্যিক এলাকা: বাণিজ্যিক ব্যাংক,অফসোর ব্যাংকিং ইউনিট,বীমা,লজিষ্টিক্স হাব, ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপো,ডাক-তার টেলিফোন,ইন্টারনেট প্রভাইডার,বিশ্বমানের হোটেল রেষ্টুরেন্ট ও প্রশাসনিক দপ্তর সমুহ।

৫। নন প্রসেসিং এলাকা: আবাসিক এলাকা,হাসপাতাল,বিনোদন পার্ক,রেষ্ট হাউস,ইনভেষ্টরস ক্লাব/অফিসার্স ক্লাব,আন্তর্জাতিক মানের স্কুল কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়,গবেষণা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, প্রার্থনালয়,টুরিষ্ট স্পর্ট ইত্যাদি।
কোন একটা এসইজেড এ উপরের সবগুলো ব্লক থাকবে এমন নয়, সুবিধা অনুযায়ী উদ্দ্যেক্তারা নিজেদের এসইজেড বিন্যাস করে নিতে পারেন। এসইজেড হতে পারে সরকারী,বেসরকারী,সরকারী-বেসরকারী যৌথ মালিকানাধীন,সরকারী-বেসরকারী-বিদেশী যৌথ মালিকানাধীন।

মনে রাখা প্রয়োজন চট্টগ্রাম ইপিজেড এর সফলতার পরই কিন্তু ঢাকা ও অন্যান্য অঞ্চলে ইপিজেড স্থাপন করা হয়। তাই অর্থনৈতিক অঞ্চলের সার্বিক সফলতা স্থান নির্বাচনের মুন্সীয়ানার উপর পুরোপুরি নির্ভরশীল। আমাদের ভূমি সম্পদ অত্যন্ত সীমিত বিধায় এসইজেড এর ভূমি নির্বাচনের অত্যন্ত কৌশলী হতে হবে। তবে, চাকুরীর অপরীসিম সুযোগ সৃষ্টির স্বার্থে বা অন্যান্য খাতে দেশের লাভ কৃষির চাইতে অত্যাধিক হবে বিবেচনায় এ ব্যাপারে কিছুটা ছাড়ও দেয়া যেতে পারে।

ইপিজেডে সূদীর্ঘদিন কাজের অভিঞ্জতা, বিদেশী-দেশী বিনিয়োগকারীদের মনোভাব,এসইজেড এর বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ ও ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষনের আলোকে নিম্নের সম্ভাব্য স্থান দেখা যেতে পারেঃ

১। মীরসরাই-সোনাগাজী উপকূলীয় এলাকা: এসইজেড এর বিন্যাস অনুযায়ী এ সময়ে চট্টগ্রামের মীরসরাই-সোনাগাজী এলাকা বৃহৎ আকারের একটি এসইজেড এর সম্ভাবনার ধার খুলে দিতে পারে। মুহুরী বাধেঁর কল্যাণে এ এলাকায় প্রচুর ভুমি উঠে আসে। তাছাড়া,আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর,রেল যোগাযোগ,মহাসড়ক,চট্টগ্রাম ইপিজেড ইত্যাদির অতি নৈকট্যের কারণে স্থানটি বিশ্ব বাণিজ্যিক-শিল্প সম্প্রদায়ের নিকট তাৎক্ষনিক গ্রহণযোগ্য হতে পারে।

–৫–

২। রাংগাদিয়া পার্কি বিচ এলাকা থেকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত হয়ে টেকনাফ উপকুলীয় অঞ্চল পর্যন্ত বৃস্তিৃত এলাকা। টেকনাফের বি¯তৃর্ণ উপকুলীয় এলাকায় উপযুক্ত স্থানে এসইজেড স্থাপন মায়ানমার,থাইল্যান্ড,কম্বোডিয়া,ভিয়েতনাম,চীন সহ নিকটবর্তী অঞ্চলের যোগসূত্র আমাদের পূর্বমুখী অর্থনীতির সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিতে পারে। তাছাড়া, ভারত, ভুটান, নেপাল ও প্রকারন্তরে এ এসইজেড এর কল্যাণে উপকৃত হতে পারেন।

৩। বিশেষায়িত এসইজেড এর জন্য দুই বা তিনটি পার্বত্য জেলার সংযোগস্থাল।

৪। যমুনা নদীবিধৌত পশ্চিমাংশে সিরাজগঞ্জের বিশাল রিভার বেসিন,পুর্বাংশে টাংগাইল এলাকা

৫। বৃহত্তম যশোরের যে কোন উপযুক্ত এলাকা

৬। ঢাকা-টাংগাইল-ময়মনসিংহ মহাসড়ক বরাবর এলাকা,ভৈরব এলাকায় মেঘনা নদী বিধৌত অঞ্চল

৭। বৃহত্তর বরিশালের নদী বিধৌত উপযুক্ত স্থান,সমুদ্রবন্দর সহ কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত অঞ্চল।

৮। নোয়াখালীর সুবর্ণচর,মান্নান নগর এলাকা।
৯। চট্টগ্রাম ইপিজেড সংলগ্ন বেড়ীঁবাধের নীচুঁ উপকুলীয় এলাকা থেকে সীতাকুন্ডু উপকুলীয় এলাকা,তবে চট্টগ্রামের দুইটি ইপিজেডের কারণে এখানকার অতি ঘনবসতি ইকোলোজিক্যাল ইনব্যালেন্স সৃষ্টি করতে পারে।

১০। সরকারী বিবেচনায় বাংলাদেশের যে কোন এলাকা

১১। (ক) ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মেঘনা বিধৌত নরসিংদি অঞ্চল

(খ) বিশেষ কারণে ও বিবেচনায় বৃহত্তর সিলেটের গ্রহনযোগ্য যে কোন স্থান। বিশেষ কারণটি হলো: বৃহত্তর সিলেটের ব্যাপারে প্রবাসী সিলেটবাসীর আবেগঘন মানমানসিকতা ও বিনিয়োগ নিবিড়ভাবে জড়িয়ে আছে। বিষয়টি সকল পাঠকের জানার প্রয়োজন মনে করি: ২০০৭ সালে ১৯ জুন তারিখে যুক্তরাজ্যের মানচেষ্টার শহরে যুক্তরাজ্যের খেতাবপ্রাপ্ত প্রখ্যাত বাংলাদেশী বৃটিশ বিনিয়োগকারী,সীমার্ক গ্রুপের কর্ণধার জনাব ইকবাল আহমেদ(ঙইঊ) স¤পূর্ণ নিজ খরচে বেপজা প্রতিনিধি দলের লন্ডন সফরের সময় সীমার্ক হাউজে বিনিয়োগ উন্নয়ন/আকর্ষণ সেমিনারের আয়োজন করেন। সেমিনারে যুক্তরাজ্যে ছাড়াও ইউরোপের অন্যান্য দেশ,কানাডা ও যুক্তরাজ্যের বেশ কয়েকজন সিলেট প্রবাসি শিল্পপতি উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে সকল প্রবাসি সিলেট ব্যবসায়ী-শিল্প সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে জনাব ইকবাল অত্যন্ত আবেগঘন বক্তব্যে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি সকল প্রবাসি সিলেটবাসীর প্রাণের দাবী ”সিলেটে একটা এসইজেড” প্রতিষ্ঠান কথা বলেন। যদি সিলেটে এসইজেড হয় তবে প্রবাসি সিলেট ব্যবসায়ী-শিল্প সম্প্রদায় এখানে এক বিলিয়ন পাউন্ড-ষ্টালিং বিনিয়োগ করার ঘোষনা দেন। তাঁর বক্তব্যে এতই আবেগপূর্ণ ছিল যে, সকল প্রবাসি সিলেটবাসীর চোখে অশ্রু দেখা যায়। এ সভায় বৃটেনে তখনকার মান্যবর রাষ্ট্রদূত মহোদয় উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ ইপিজেড প্রতিনিধি দলের একজন সদস্য হিসেবে লেখক সরকারের নিকট পেশ করা রিপোর্ট প্রস্তুত করেন।

–৬–

কাকতলীয় ভাবে ২০০৮ এর জুলাই মাসে বেপজার তৎকালীন নির্বাহী চেয়ারম্যান মহোদয়ের ঐকান্তিক আগ্রহ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক সহযোগীতায় বৃহত্তর সিলেটের উপর নিবিড় জরিপ চালিয়ে সম্ভাভ্য স্থান নির্বাচন পূর্বক বেপজা বরাবরে প্রতিবেদন পেশ করা হয়।

একইভাবে বৃহত্তর নরসিংদির সম্ভাব্য স্থান উল্লেখ করে বেপজা বরাবরে আগষ্ট ২০০৮ এ আরেকটি প্রতিবেদন পেশ করা হয়।

সাধারণ ভাবে বলা যায়, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল আমাদের দেশের জন্য একটা আকষনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ কার্য্যক্রম হতে পারে। ভৌগলিক ভাবে সুনির্দিষ্ট ও সীমাবদ্ধ এক একটি এসইজেড এলাকায় অবকাঠামোর উন্নয়ন কাজ ও বিরাজমান সমস্যাসমূহ সারাদেশের উন্নয়ন কাজের তুলনায় অতি সহজেও দ্রুততার সাথে আমলে নিয়ে তাৎক্ষনিক সমাধান দেয়া সম্ভব। অতি অল্প কিন্তু দক্ষ জনবল দিয়ে এর দেখভাল করা যায়। এসইজেড কে দেশের বৃহত্তর প্রাতিষ্ঠানিক ও আর্থিক কর্মকান্ড থেকে আলাদা ভাবে দেখা যাবেনা। নিদেনপক্ষে একে ”অর্থনীতির ভিতরে অর্থনীতি” বা ”দেশের ভিতরে দেশ” এ আংগিকেই দেখতে হবে। এসইজেড হবে সার্বিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের একটা অংশ মাত্র। এর সফলতার জন্য বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ ও যথাযথ অবকাঠামোর উন্নয়ন প্রয়োজনীয়তা যেমন অনস্বীকার্য,তেমনি কোন অবস্থাতেই এসইজেডকে সারাদেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের ”বিকল্প মডেল” রুপে গ্রহণ করা যাবেনা। এসইজেডকে শিল্পায়নের চালিকাশক্তি,টেকসই ভিত্তি বা মডেল রুপে গ্রহণ করতে গিয়ে অধিকাংশ উন্নয়নকামী ও উন্নয়নের ক্রসরোডে অবস্থানকারী দেশ সমূহের প্রচেষ্টা ততটা সফল হয়নি।
ঊ-সধরষ:ংযধসংঁফফরহ১৯৫৪@ুধযড়ড়.পড়সShamsuddin  Picture



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি