রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


অন্তিমযাত্রার আগে জীবনের শেষ ‍ছবি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৯.০৭.২০১৫

apj_kalam_bg_507736480

ডেস্ক রিপোর্টঃ

প্রথমে প্লেনে আড়াই ঘণ্টার যাত্রায় গৌহাটি। সেখান থেকে সড়কপথে আড়াই ঘণ্টায় শিলং। তখন অনেক মানুষ অপেক্ষায় তার বক্তব্য শোনার জন্য। তাই দেরি না করে সোজা অনুষ্ঠান মঞ্চে। সেখানে পাঁচ মিনিট বক্তব্য দেওয়ার পর যে যাত্রা শুরু হলো সেটি অন্তিম যাত্রা।

ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্টের ছাত্ররা তার খুব প্রিয়। কথাও শুরু করেছিলেন হেসে। ‘কেমন আছো তোমরা? আগেও তোমাদের সঙ্গে দেখা হয়েছিলো।’
apj_kalam_shilolg
এরপর হার্ভাড-এমআইটি নিয়ে গল্প শুরু করলেন, স্বপ্ন দেখাতে শুরু করলেন সবে। কিন্তু শেষ সেখানেই। সে স্বপ্ন যাত্রার গল্প আর এগোলো না।

বুকে ব্যথা নিয়ে হঠাৎ লুটিয়ে পড়লেন মাটিতে। সঙ্গে সঙ্গে সবাই ধরাধরি করে নিলেন হাসপাতালে। কিন্তু ততক্ষণে শেষ একজন ‘স্বপ্নমানব’।

ভারতের এই ‘মিসাইলম্যানের’ শেষ ১২ ঘণ্টার সঙ্গী সৃজন পাল সিংহ বলছিলেন, গৌহাটি থেকে যে গাড়িতে এসকর্ট করে তাকে শিলং পর্যন্ত আনা হয় তাতে একজন জওয়ান মেশিনগান নিয়ে টানা দাঁড়িয়ে ছিলেন। তিনি বারবার বলছিলেন তাকে এভাবে দাঁড়িয়ে না থাকতে বলার খবর পৌঁছে দিতে। কিন্তু নিয়মের কারণে কাজ হয়নি। তাই ভ্রমণ শেষেই ওই জওয়ানকে ডেকে পাঠালেন। বললেন, ‘আমার জন্য এতটা পথ এভাবে আপনাকে দাঁড়িয়ে থাকতে হলো!’
apj_kalam_shilong_2
এরপর তাকে অবাক করে দিয়ে স্যার বললেন, ‘নিশ্চয়ই ক্লান্ত লাগছে? আমার সঙ্গে বসে কিছু খেয়ে যান।’ ভ্যাবাচ্যাকা ভাবটা কাটিয়ে উঠতে কয়েক সেকেন্ড সময় নিলেন লাপাং। তারপর বেশ জোরের সঙ্গে বললেন, ‘স্যার, আপনার জন্য তো ঘণ্টার পর ঘণ্টা অনায়াসে দাঁড়াতে পারি!’

হাত মেলানোর সেই ছবিটি ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছেন সৃজন পাল সিংহ। এখন পর্যন্ত প্রকাশিত এ ছবিটিই জীবিত অবস্থায় তার শেষ ছবি। যদি মঞ্চে অসুস্থ হওয়া একটি ছবি শেষ ছবি বলে ভাইরাল হযে ছড়িয়ে পড়েছে ইন্টারনেটে।

apj_kalam_Bagতিনি আরও একটি ছবি পোস্ট করেছেন এই ভারতরত্নের ব্যবহৃত ব্যাগের। যে ব্যাগটিতে আর কখনো পড়বে না তার হাতের স্পর্শ।

আবদুল কালাম বলতেন, ‘প্রত্যেক পাখি বৃষ্টির সময় নির‍াপদ আশ্রয় খোঁজে। কিন্তু ঈগল বৃষ্টি এড়িয়ে মেঘের উপর দিয়ে চলে।’

ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি, বিজ্ঞানী এপিজে আবদুল কালাম সেই মেঘের উপর দিয়ে চলা ঈগল। তিনি সবসময় উড়বেন মেঘের উপর দিয়ে। সাধারণ মানুষের চোখের অন্তরালে।

৮৪ বছরের জীবদ্দশার শেষ সেকেন্ডটিও তিনি দিয়ে গেলেন দেশের জন্য, দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে উৎসর্গ করে। কিন্তু মানবিকতার জয় চিরঅমর।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি