বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


দুর্গোৎসবের অর্থনীতি সমাজ ও সংস্কৃতি


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১১.১০.২০১৬

base_1476128711-ghj

পূর্বাশা ডেস্ক:

বিশ্বজগৎ বৈচিত্র্যময়। এখানে আছে হাসি-কান্না, আনন্দ-বেদনা, সুখ-সমৃদ্ধির উত্সাহ, অভাব-অনটনের অশান্তি। ভোগবাদী পার্থিব জীবনের পাশাপাশি আছে ত্যাগ ও তিতিক্ষার জীবনের প্রতিচ্ছবি, বৈরাগ্যে পূর্ণ প্রশান্ত জীবনের চালচিত্র। তবে একটি বাস্তব সত্য হচ্ছে যেখানে সংযম নেই, সেখানে সত্য ও সাধনা নেই । ত্যাগ, সংযম, সত্য ও ব্রহ্মচর্যই সঠিক জীবনের মূল ভিত্তি। এ শিক্ষা প্রচার হতে হবে সর্বত্র। দুর্গোৎসবের মহাধুমধামের মাঝে ত্যাগ ও সংযমের বার্তা পৌঁছাতে হবে প্রতি ঘরে ঘরে। সমাজে সম্প্রীতি ও সৌহার্দের বার্তা প্রতিষ্ঠিত করতে না পারলে, সব আনন্দ ও উত্সাহ হয়ে ওঠে অর্থহীন। তাই দুর্গোৎসবের অর্থনীতিতে থাকতে হবে সমাজজীবনে কল্যাণ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ। বাণিজ্যিক ভাবনা যেন কোনোভাবে শিক্ষা ও সংস্কৃতির ধারাবাহিকতাকে বিপন্ন করতে না পারে, তার প্রতি খেয়াল রাখতে হবে সমাজের সব কর্ণধারকে।

সাম্প্রতিককালে লক্ষ করা যায় যে, দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে বিশাল এক অর্থনৈতিক পরিমণ্ডল গড়ে উঠেছে। বাণিজ্যিক লেনদেনের প্রসার হচ্ছে সংশ্লিষ্ট সব অঙ্গনে। লাখ লাখ টাকা ব্যয় করে পূজামণ্ডপ নির্মাণ, আলোর ঝর্ণাধারার মাঝে বিমোহিত করে তুলছে সব দর্শনার্থীকে। মহাষষ্ঠী থেকে শুরু করে বিজয়া দশমী পর্যন্ত চলে বাদ্য ঘণ্টার বিশাল আয়োজন। এছাড়া আছে বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আছে বিজয়ার পুনর্মিলনী উৎসব। বিশেষভাবে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করা হচ্ছে নামি-দামি শিল্পী ও কলাকুশলীদের। ব্যাপক বৈচিত্র্যের মাঝে সজ্জিত করা হচ্ছে পূজার অঙ্গন এবং পরিবেশ। পূজার আরাধনা ও প্রার্থনার গণ্ডি পেরিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব রূপ নিয়েছে এক সাংস্কৃতিক চর্চার অঙ্গন হিসেবে, বিশাল পরিধির আবর্তে আবিষ্ট করেছে দেশের অর্থনৈতিক পরিমণ্ডলকে।

শুধু যে উদ্যোক্তারা তাদের নিজস্ব তহবিল থেকে বিনিয়োগ করছেন তা নয়। সরকার ও প্রায় প্রতিটি পূজামণ্ডপে কম-বেশি অনুদান দিচ্ছে, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে। প্রায় দুই লাখ সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী দুর্গোৎসবের প্রাক্কালের দুই মাসের সমপরিমাণ বেতনের উৎসব ভাতা পাচ্ছেন সরকারি কোষাগার থেকে। ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় থেকে অনেক সাহায্য দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে। প্রায় প্রতিটি সংগঠন থেকে পূজা উপলক্ষে প্রকাশ করা হচ্ছে বিশেষ ম্যাগাজিন বা ক্রোড়পত্র। এসব প্রকাশনায় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে ব্যাংক, বীমা কোম্পানিসহ প্রচুর শিল্প ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। সবচেয়ে বেশি ব্যবসা করছেন মিষ্টির ব্যবসায়ীরা, কারণ পূজা উপলক্ষে রসগোল্লা, সন্দেশ, চমচম, পানতোয়া, ক্ষীরতোয়া, রসমালাই, ছানামুখীসহ জিলাপি ও লাড্ডু এবং নানা রকমের আকর্ষণীয় মিষ্টির কদর বেড়ে ওঠে। এছাড়া নিজের হাতে পূজারীরা তৈরি করছে নানা বৈচিত্র্যের নারকেলের সন্দেশ ও নাড়ু। তার পর আছে পূজার শাড়ির ব্যবসা, সে হচ্ছে এক বিশাল বাজার। পূজার সঙ্গে সম্পৃক্ত কুমারপাড়ার কারিগরদের বার্ষিক উপার্জনের উৎস ছাড়া ও পূজার উপকরণের ব্যবসা হচ্ছে বিশাল।

বাংলাদেশে এ বছর ২৯ হাজার ৩৯৫টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে প্রায় ২২৯টি মণ্ডপে পূজা হচ্ছে রাজধানী ঢাকা শহরে। শহরকেন্দ্রিক পূজার সংখ্যা বেড়েছে অনেক বেশি। নগরায়ণের সঙ্গে সঙ্গে নাগরিক দুর্গোৎসবের পরিমাণ বেড়েছে দ্রুতগতিতে।

এমন কোনো সিটি করপোরেশন এবং পৌরসভা নেই, যেখানে প্রায় প্রতি ওয়ার্ডে কমপক্ষে একটি করে পূজার আয়োজন হচ্ছে না। হিসাব করলে দেখা যাবে, প্রতিটি পূজামণ্ডপে যদি গড়ে ৫০ হাজার টাকাও খরচ হয়, তাহলে মোট বাণিজ্যের পরিধি দাঁড়াবে প্রায় ১৫০ কোটি টাকার বেশি।

বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় ৩০ শতাংশ লোকজন শহরে বাস করে। ১১টি সিটি করপোরেশন এবং ৩২৬টি মিউনিসিপ্যালিটির প্রত্যেকটিতে অত্যন্ত জাঁকজমকভাবে দুর্গোৎসবের আয়োজন করা হয়। নগরকেন্দ্রিক পূজার আয়োজনের মাঝে আছে কিছু রাজনীতি ও দলীয় ভাবনা। তাই দেখা যায়, প্রতিযোগিতামূলক আলোকসজ্জা এবং প্রসাদ বিতরণ। সব মিলেমিশে লক্ষ করার বিষয় হচ্ছে, ব্যাপক অর্থনৈতিক লেনদেন এবং বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড এ দুর্গোৎসব ঘিরে সূচনা হয়, যার প্রভাব পড়ে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে। তবে গ্রামীণ পূজায় বাণিজ্যিক প্রভাব কম থাকলেও ক্ষুদ্র ও মাঝারি ধরনের ব্যবসায়ীরা পূজার অঙ্গন ঘিরে দোকান খুলে বসে এবং প্রায় সপ্তাহব্যাপী দারুণ ব্যবসা করে লাভবান হচ্ছে। এমন বেচাকেনার মাঝে আছে সামাজিক হূদ্যতা, পারস্পরিক সম্প্রীতির বন্ধন, উত্সাহ ও আনন্দ উপভোগের বিশাল অঙ্গন।

প্রসঙ্গত, ১৭৯০ সালে কাশিমপুরের রাজা হরিনাথ মহাশয় বারোয়ারী পূজার ভাবনার বিকাশ সাধনে উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং ১৮৩২ সাল থেকে বারোয়ারী শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হলে রাজাদের আধিপত্য তিরোহিত হয়। মজার ব্যাপার হলো, ১৭৬৫ সালেও ব্রিটিশ অফিসাররা দুর্গাপূজায় অংশ নিয়ে মা দুর্গাকে হাত জোড় করে প্রণাম জানাতেন। অবশ্যই তার পেছনে বৃহৎ ব্যবসায়ের ভাবনা ছিল প্রকট, মা দুর্গার প্রতি ভক্তি ও বিশ্বাস নয়। তবে ১৯১০ সালের মধ্যেই এ বাংলায় সার্বজনীন দুর্গাপূজা পুরোপুরি প্রসার লাভ করে এবং অবসান হয় দুর্গোৎসবে রাজা বা জমিদারদের আধিপত্য। দুর্গাপূজা এখন সার্বজনীন, যার পরিচালনা করে সংঘ বা সমিতি। অনেকে করে ভক্তিভরে, আবার অনেকে করে প্রভাববলয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে। তবে পারিবারিকভাবে পূজার আয়োজন হয় প্রচুর, সেখানে বাণিজ্যিক ভাবনা খুবই সীমিত।

দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু ধর্মাবলম্বী বাংলাদেশের দেড় কোটি মানুষ শুধু যে বেচাকেনায় জড়িয়ে পড়ে তা-ই নয়, এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে যায় সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের লোকজনও নানাভাবে। শিল্পী, গায়ক, বাদ্যকর ছাড়াও পরিবহনের সব ব্যবসায়ী বিভিন্নভাবে জড়িয়ে পড়েন। মজার ব্যাপার হলো, শারদীয়া শুভেচ্ছার কার্ড মুদ্রণ ও বিতরণের সঙ্গে চলে নানা উদ্ভাবনীমূলক আবেদন ও আকর্ষণীয় চিত্রমালা। এর মাধ্যমে প্রকাশ হয় বাংলার ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির দৃশ্যপট, যা বাংলাদেশের মানুষের মননশীলতাকে দৃশ্যমান করে তোলে।

বাংলাদেশ সরকার এ বিশাল দুর্গোৎসবের প্রাক্কালে শুধু যে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করে তা নয়, প্রায় দুই লাখ কর্মচারীকে একসঙ্গে দুই মাসের বোনাস দিতে গিয়ে সরকারের বিশাল অংকের টাকা বের হয়ে যায় একসঙ্গে। সে টাকা চলে যায় সরাসরি বাজারে, নানা পণ্যের কেনাকাটায়। শুধু যে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বোনাস পান তা নয়, অবসরভোগীরাও এ সুবিধা ভোগ করেন। আসলে উৎসব জনগণের হলেও সরকারের ব্যয় হচ্ছে বিশাল। পর পর দুই ঈদে দুটি বোনাস, কিন্তু দুর্গাপূজায় একসঙ্গে দুটি বোনাস, দুই মাসের বেতন। তাই নগদ অর্থ খরচের জন্য ঘরে ঘরে চলে পরিকল্পনা। নারীরা রাজশাহী সিল্ক, বেনারসি, কাতান, জর্জেট নিয়ে হিসাব শুরু করে দেন। ছেলেদের খরচের গতিপ্রকৃতি বোঝার উপায় নেই। তবে সবাইকে দোকানদার এ শুভদিনে ঠকিয়ে দু’পয়সা আদায় করে নেয়, এতে কোনো সন্দেহ নেই; তাতে কিইবা এসে যায়, এ টাকা তো আর সুইস ব্যাংকে জমা হচ্ছে না, দেশের মাটিতেই বিচরণ করছে।

বাণিজ্যিক ভাবনার বাইরে হচ্ছে, বাংলাদেশে উৎসবকে মনে করা হয়, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। তাই এ উৎসব নিবেদিত হয় সব মানুষের কল্যাণে এবং দেশ ও জাতির প্রগতির বৃহত্তর স্বার্থে। মানবতার বাণী প্রতিষ্ঠিত করার প্রয়োজনে। দেবীর আগমনের শুভ মুহূর্তে সংঘাতময় বিশ্বকে শান্তির নীড় হিসেবে রূপান্তরের মহাযজ্ঞে স্মরণ রাখতে হবে ‘জীবে দয়া করে যেইজন, সেইজন সেবিছে ঈশ্বর’। মানবতার জয়গানে মুখরিত করতে হবে সর্বত্র। তবেই হবে উৎসবের সার্থকতা, গ্রহণযোগ্য হবে দুর্গাপুজার সার্বজনীন বার্তা সব মানুষের কাছে সহজভাবে। সবার পরশে পবিত্র হবে ধরণী, ঘরে ঘরে প্রতিষ্ঠিত হবে শান্তি, গ্রামগঞ্জ হবে উৎসবমুখর, সব মানুষের মাঝে জাগরিত হবে মানবতার মহান বার্তা। জঙ্গিবাদের ভাবনা দূর হতে হবে বাংলার মাটি থেকে, তবেই হবে বাংলার মানুষের দুর্গোৎসবের সার্থক চেতনা সুপ্রতিষ্ঠিত।

জগজ্জননী মা দুর্গার আগমনী উৎসবের এ মহাযজ্ঞে মহা উৎসবে স্মরণ রাখতে হবে সব মানুষের সম অধিকারের বার্তা, প্রতিষ্ঠিত করতে হবে ঘরে ঘরে, ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই’। জগত্বাসীর কল্যাণে মায়ের আগমন এ ধরণীতে। প্রত্যাশা— দেশের মানুষের মন থেকে দূর হবে শঙ্কা, শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে বাংলাদেশে, সমৃদ্ধি আসবে বিশ্বভুবনে, যার অংশীদার হবে জগত্বাসী, বিশ্বের সব প্রাণী। মা জননী দুর্গার আগমনে শান্তি আসুক ধরাধামে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি