শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


জেন্ডার বাজেট চান নারী অধিকার কর্মীরা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.০৪.২০১৭

 
পূর্বাশা ডেস্ক:

বিশ্ব এখন দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, পরিবর্তনও হচ্ছে খুব দ্রুত। পরিবর্তনশীল এই বিশ্ব বাস্তবতায় টিকে থাকতে হলে নারীদের প্রযুক্তি ব্যবহারের দক্ষতা বাড়ানো প্রয়োজন মনে করছেন নারী অধিকার কর্মীরা।

তারা এও মনে করছেন, নারী-পুরুষ অসমতার কারণে আজ জেন্ডার বাজেটের প্রয়োজন হয়েছে। জেন্ডার বাজেটে বড় জায়গা হওয়া উচিৎ নারীর দক্ষতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণের জন্য ব্যয় করা। কারণ দক্ষ শ্রমিক হিসেবে নারী গড়ে উঠলেই কেবল সে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারবে।

মঙ্গলবার বিকেলে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘জেন্ডার সংবেদনশীল জাতীয় বাজেট প্রণয়ন এবং পরিবীক্ষণ প্রক্রিয়া’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এই প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন বিভিন্ন স্তরের নারী অধিকার কর্মীরা।

সভায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখা নারী অধিকার কর্মীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন। বিআইডিএস’র সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সায়মা হক বিদিশা এবং মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরমিন্দ নিলোর্মী।

বক্তারা আগে গার্মেন্টে ৮০-৮৫ ভাগ কর্মীই ছিল নারী, এখন এটি ৬০-৬৫ ভাগে নেমে এসেছে মন্তব্য করে বলেন, এর কারণ হলো প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতার অভাব। কারণ এসব পেশায় এখন প্রযুক্তির ব্যবহার চলে আসছে। প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা অর্জন করতে না পারলে নারীরা পিছিয়ে যাবে। সে কারণে নারীর প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়াতে হবে।

নারীর গৃহস্থালি কাজের স্বীকৃতি না থাকার বিষয়টি তুলে ধরে বক্তারা বলেন, একজন নারী ঘরে রান্নার কাজ করলে অর্থ পায় না। কিন্তু হোটেলে গিয়ে রান্নার কাজ করলে অর্থ পায়। মেয়েদের কাজের স্বীকৃতিটা জিডিপিতে হিসাব করা হয় না। এটিকে জিডিপিতে আনা দরকার। জিডিপি বাড়াতে চাই না, কিন্তু নারীর কাজকে অর্থনৈতিকভাবে মূল্যায়ন করা প্রয়োজন। নারীদের ‘প্রচলিত গৎবাধা’ কাজের বাইরে এসে বিভিন্ন কাজে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান তারা।

পূর্বাশানিউজ/১৭-এপ্রিল,২০১৭/রুমকী



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি