বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


বাজেটের ঘাটতি পূরণে বিদেশি ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়ছে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৭.০৬.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে ঘাটতির পরিমাণ ১ লাখ ১২ হাজার ২৭৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ বাজেটের এক-চতুর্থাংশের বেশি টাকা ঋণ নিয়ে মেটাতে হবে। এর মধ্যে বিদেশি ঋণ নেওয়া হবে মোট ৫১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা, বাকিটা নেওয়া হবে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে। বাজেটে ঘাটতি পূরণে বিদেশি সাহায্যের ওপর নির্ভরশীলতা পাঁচ বছরে বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি।

বাজেটের ঘাটতি অর্থ সংস্থানে ক্রমাগত হারে বিদেশি ঋণের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়াচ্ছে সরকার। ২০১৩-১৪ অর্থবছরের মূল বাজেটে ঘাটতি পূরণে বিদেশি ঋণ ধরা হয়েছিল ২১ হাজার ৬৮ কোটি টাকা, আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এর পরিমাণ হবে ৫১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা। তবে বাস্তবতা হলো, মূল বাজেটে বিদেশি ঋণের যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়, তার পুরোপুরি বাস্তবায়ন সম্ভব হয় না।

চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে নিট বিদেশি ঋণ (অনুদান ছাড়া) ধরা হয়েছে ২৪ হাজার ৭৭ কোটি টাকা। গত অথর্বছরে এ খাতে প্রাপ্তি ছিল ১৪ হাজার ৭৫৫ কোটি টাকা। চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিদেশি ঋণ ৩৬ হাজার ৩০৫ কোটি টাকা ধরেও সংশোধিত বাজেটে কমিয়ে করা হয়েছে ২৮ হাজার ৭৭১ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগামী অর্থবছরে বিদেশি ঋণের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় দ্বিগুণ বাড়ানো হলো।

এটাকে বাজেট বাস্তবায়নের বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, ‘বিদেশি সহায়তা প্রাপ্তির যে হিসাব দেখানো হয়েছে, সেটা উচ্চাভিলাষী। এতটা খরচ সরকার কখনও করতে পারেনি, এক অর্থবছরে এতটা বিদেশি ঋণও কখনও ছাড় হয়নি। এটা যে সরকার জানে না, তা নয়। তবে এটা কেন হলো, এর কোন ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই।’

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন অন্বেষণের সাম্প্রতিক প্রতিবেদন মতে, বর্তমানে দেশি ও বিদেশি মিলে মোট ঋণের স্থিতি প্রায় ৪ লাখ ৯১ হাজার ৮৩১ কোটি টাকা, যা জিডিপির ২৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এর মধ্যে দেশীয় ঋণ ২ লাখ ৮১ হাজার ৩৩১ কোটি এবং বিদেশি ঋণ ২ লাখ ১০ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। মাথাপিছু সরকারি ঋণের পরিমাণ ৩০ হাজার ৭৪০ টাকা।

সরকারি হিসাবে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের মাথাপিছু এ ঋণের পরিমাণ ছিল ২৬ হাজার ১৫২ টাকা। অর্থাৎ গত দুই বছরে মাথাপিছু সরকারি ঋণের পরিমাণ বেড়েছে ৪ হাজার ৫৮৮ টাকা। তবে সার্বিকভাবে মাথাপিছু সরকারি ঋণের এ পরিমাণ মাথাপিছু আয়ের তুলনায় কম। সর্বশেষ প্রাক্কলন অনুযায়ী আমাদের মাথাপছিু আয় ১ লাখ ২৮ হাজার ১৬০ টাকা (১,৬০২ ডলার)।

মাথাপিছু আয় ও ঋণের এ অনুপাত ভারত (মাথাপিছু আয় ১ লাখ ২৮ হাজার, ঋণ ৬৫ হাজার ৮১৫ টাকা), পাকিস্তানসহ (মাথাপিছু আয় ১ লাখ ২৫ হাজার ৬৮০ টাকা, ঋণ ৭৬ হাজার ১৮ টাকা) বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক কম।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাজেট বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিদেশি ঋণের প্রতিশ্রুতি ও সে অনুযায়ী অর্থছাড় দুটিই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আমাদের বিদেশি ঋণের বেশিরভাগ সহজ শর্তের ঋণ, যার সুদের হার ১ শতাংশেরও কম। ঋণ পরিশোধে সময়ও বেশি পাওয়া যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিদেশি সাহায্যপুষ্ট প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়ন করতে পারলে একদিকে যেমন বিদেশি ঋণের ছাড় বাড়বে, অন্যদিকে অভ্যন্তরীণ খাত থেকে সরকারের উচ্চ সুদে ঋণ গ্রহণও কমে আসবে। কিন্তু বিদেশি সাহায্য অর্জনের সার্বিক লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আমরা এখনও বেশ পিছিয়ে আছি।’

তবে চলতি অর্থবছর বিদেশি ঋণের যে দ্বিগুণ লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে, সেটিকে বাস্তবসম্মত বলে মনে করেন না এই অর্থনীতিবিদ। এদিকে ঋণ নিয়ে বাজেট ঘাটতি মেটানোর বিষয়ে অর্থনীতিবিদদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে। কেউ কেউ বলছেন, ঋণের কারণে সরকারের দায় বাড়ছে।

আবার কেউ বলছেন, আমাদের বাজেটের আকার উত্তরোত্তর বাড়ছে এবং বাস্তবতা হলো অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সেটার পুরোটা মেটানো সম্ভব নয়। তাই বাজেট বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিদেশি ঋণের ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। বিদেশি ঋণ বাড়লে তেমন কোনো অসুবিধা নেই। কারণ এই ঋণের বেশিরভাগই আসে রেয়াতি ঋণ হিসেবে।

পূর্বাশানিউজ/০৭-জুন,২০১৭/রুমকী



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি