সোমবার,১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


স্বামীকে না জানিয়ে সৌদি গিয়ে পাচারচক্রে গৃহবধূ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৪.০৭.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

নেত্রকোণার দুর্গাপুরে এক গৃহবধূকে (৪০) তার স্বামীর অজান্তে বিদেশে পাঠানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। আঙ্গুরা খাতুন (৫০) নামের এক নারী ওই গৃহবধূকে কয়েক মাস আগে ফুসলিয়ে সৌদি আরব পাঠিয়েছেন। এখন গৃহবধূটি আছেন মহাবিপদে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূর ছেলে মো. হৃদয় হাসান বাদী হয়ে দুর্গাপুর থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন। গত ১১ জুলাই রাতে দুর্গাপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিলের সত্যতা নিশ্চিত করেন ডিউটি অফিসার রেজাউল করিম। উপজেলার দুর্গাপুর সদর ইউনিয়নের মধ্যম বাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অভিযোগের লিখিত বিবরণে বলা হয়েছে, আঙ্গুরা খাতুন মানব পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। আর বিদেশে পাঠানো গৃহবধূ গ্রামের সহজ সরল মানুষ। বিবাদী ভুক্তভোগীর প্রতিবেশী হওয়ায় ঘটনার আগে থেকে তাদের বাড়ীতে আসা যাওয়া করতেন। সেই সুযোগে বিবাদী ওই গৃহবধূকে সৌদি আরবে পাঠানোর প্রস্তাব দেয়। বিষয়টি গোপন রাখার শর্তে গত ২২ এপ্রিল সৌদিতে পাঠায়। এক পর্যায়ে ভুক্তভোগীর সঙ্গে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয় পরিবারের লোকজন।

এরপর হঠাৎ তার ছেলে হৃদয় হাসান ইমো একাউন্টে ভয়েস এসএমএস পান। সেখানে তাকে কে কখন কিভাবে সৌদিতে নিয়েছে তা বিস্তারিত জানান। এসএমএসে তিনি বলেছেন, অভিযুক্ত আঙ্গুরা খাতুন তাকে সৌদি আরবে মানব পাচার চক্রের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। সৌদি আরবে গৃহবধূর ওপর ব্যাপক নির্যাতন চলছে বলেও ভয়েস রেকর্ডে বলা হয়েছে।

হৃদয় হাসানের অভিযোগ, তিন লাখ টাকা দেওয়ার শর্তে তার মাকে দেশে এনে দিতে চাচ্ছেন আঙ্গুরা। নয়তো লাশটাও খুঁজে পাবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি প্রশাসনকে জানালে প্রয়োজনে পরিবারের লোকজনদের খুন করার হুমকি দিয়েছেন আঙ্গুরা।

মানবপাচারে সংশ্লিষ্ট থাকার বিষয়ে অভিযুক্ত আঙ্গুরা খাতুনের মুঠোফোনে বার বার কল করেও রিসিভ না করায় কোন বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক জানান, মানবপাচার বিষয়ক একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। সেটির তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি