শনিবার,২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


দক্ষিণ আফ্রিকায় স্বামীর হাতে বাংলাদেশি গৃহবধূ খুন, স্বামী পলাতক


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৯.০৮.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি শান্তা ইসলামকে (২২) পিটিয়ে ও ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে।

রোববার (২৮ আগস্ট) বাংলাদেশ সময় রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। স্ত্রীকে খুন করে সুমন মিয়া পালিয়ে গেছেন বলে জানা গেছে।

শান্ত ইসলাম টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের থলপাড়া গ্রামের আব্দুস ছালাম শিকদারের মেয়ে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, পার্শ্ববর্তী বাসাইল উপজেলার কাঞ্চনপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের খোকা মাস্টারের ছেলে সুমন মিয়া প্রায় ৮ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান। সেখানে লাইটেন বার্গ শহরে ব্যবসা করেন তিনি। গত এক বছর আগে থলপাড়া গ্রামের আব্দুস ছালাম শিকদারের মেয়ে শান্তা ইসলামকে পারিবারিকভাবে মোবাইলে সুমন বিয়ে করেন।

প্রায় ছয় মাস আগে শান্তা ইসলামকে সুমন মিয়া দক্ষিণ আফ্রিকায় তার কাছে নিয়ে যান। নিয়ে যাওয়ার কয়েকদিন পর থেকে তাদের দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। ব্যবসা বাড়ানোর জন্য সুমন শান্তাকে বাবার (শ্বশুর) কাছ থেকে টাকা চাইতে বলে। এক পর্যায় শারীরিক নির্যাতনও চালানো হয়। বিষয়টি জানার পর কয়েক দফায় সুমনকে সাত লাখ টাকা দেন বাবা ছালাম শিকদার। রোববারও শান্তাকে শারীরিক নির্যাতন করা হয়।

রোববার বিকেলের দিকে মোবাইল ফোনে কল করা হলে শান্তাকে না পেয়ে ছালাম শিকদার আফ্রিকায় বসবাসরত তার আত্মীয়দের বিষয়টি জানান। পরে আফ্রিকায় বসবাসরত কয়েকজন আত্মীয় সুমনের বাসায় যান। বাসায় গিয়ে তালা দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন তারা। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তালা ভেঙে ভেতরে শান্তার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম ও পেটে ১৪টি চাকুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ মরদেহের পাশ থেকে চাকু, হাতুরি ও রেঞ্জ উদ্ধার করেছে। পুলিশ শান্তার আত্মীয়দের জানিয়েছেন, তার স্বামী তাকে পিটিয়ে ও চাকুর আঘাতের পর মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে গেছে।

পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

শান্তার ফুফা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, সুমন ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে দিতে শান্তাকে চাপ দিতো। মাঝে মধ্যে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করতো। মেয়ের সুখ-শান্তির কথা চিন্তা করে বিভিন্ন এনজিও এবং লোকজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে কয়েক দফায় সুমনকে সাত লাখ টাকা দিয়েছেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আগামী বৃহস্পতিবার অথবা শুক্রবার শান্তার মরদেহ দেশে আসতে পারে বলে আফ্রিকায় বসবাসরত আত্মীয়রা তাদের জানিয়েছেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি