রবিবার,২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিহত বাবার লাশের অপেক্ষায় সন্তানরা


জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিহত বাবার লাশের অপেক্ষায় সন্তানরা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৫.১০.২০২২

ডেস্ক রিপোর্ট:

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের অপারেশন কার্যক্রম পরিচালনাকালে সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে বাংলাদেশি তিন শান্তিরক্ষী নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরের মোহাম্মদ জসিম মিয়া (৩০) নামের এক সৈনিকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত মোহাম্মদ জসিম মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের খাটিংগা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরু মিয়ার ছেলে। এতে আহত হয়েছেন আরও দুই সেনা সদস্য।

বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) ভোর ৬টায় ওই ঘটনা ঘটে। পরিবার সূত্রে জানা যায়, নিহত জসিম ২০০৯ সালের জুলাই মাসের ৫ তারিখ চাকরিতে যোগ দেন। সিলেট ৬১ বেঙ্গল ই-রেজুয়ানের দায়িত্বে ছিল সৈনিক জসিম। সেখান থেকেই গত ৯ মাস আগে শান্তিরক্ষা মিশনে আফ্রিকায় যান জসিম মিয়া। ১২ বছরের চাকরিজীবনের এই প্রথম আফ্রিকায় শান্তিরক্ষা মিশনে গিয়ে গাড়িতে ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) বিস্ফোরণে নিহত তিনি।

মঙ্গলবার সকালে মোবাইলের মাধ্যমে জসিমের পরিবারকে মৃত্যুর খবর জানানো হয়। নিহত জসিমের মো. ইকরাম (৬) ও মো. ইমরান (৪) নামে দুটি ছেলে ও স্ত্রী রয়েছে বলেও জানা গেছে।

নিহতের বড় ভাই মোহাম্মদ জুলহাস মিয়া জানান, শান্তিরক্ষা মিশনে গিয়ে আমার ভাই আফ্রিকায় ডিভাইস বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন। আমার ভাই ৬১ বেঙ্গল ই-তে চাকরি করতেন। তার একটা স্বপ্ন ছিল দেশে ফিরেই তার দুই সন্তানকে ক্যাডেট স্কুলে ভর্তি ও সুন্দর একটা বাড়ি নির্মাণ করবে কিন্তু আল্লাহ ভাইয়ের মনের আশা পূরণ করেনি। তার লাশটি দ্রুত বাড়িতে পাঠানোর দাবি এবং তার পরিবার ও শিশুদের দায়িত্ব নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে নিহতের পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরু মিয়া বলেন, আমি দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি আমার ছেলেও দেশের জন্য দেশের বাইরে গিয়ে জীবন দিয়েছে। পরিবারের পাশে থাকা এবং ছেলের লাশটি দ্রুত দেশে আনার দাবি করেন তিনি।

বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ এইচ ইরফান উদ্দিন আহম্মেদ  বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে যেন জসিমের লাশ দ্রুত দেশে আনা যায় সে লক্ষে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। তার পরিবারের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করা হবে বলেও তিনি জানান।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি