মঙ্গলবার,২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


মে মাসে সাড়ে ৫ হাজার সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৬৩১


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৮.০৬.২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট:

প্রতিনিয়ত সড়কে ঝরছে প্রাণ। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। সময়ের সঙ্গে বাড়ছে দুর্ঘটনাও। গত মে মাসে সারা দেশে সব মিলিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫ হাজার ৫০০টি।এতে মারা গেছেন ৬৩১ জন এবং আহত হয়েছেন ৬ হাজার ৫৩৬ জন।

সেভ দ্য রোড-এর মহাসচিব শান্তা ফারজানা প্রেরিত গণমাধ্যমে পাঠানো প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২৩ সালের ১ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত দেশে এক হাজার ৬২টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে এক হাজার ১৮৭ জন এবং নিহত হয়েছে ৫০ জন। একই মাসে এক হাজার ৪৯৬টি ট্রাক দুর্ঘটনায় এক হাজার ৭৫২ আহত এবং ৬২ জন নিহত হয়েছেন।

একই সময়ে নির্ধারিত গতিসীমা না মানা, পরিবহন মালিকদের উদাসীনতা ও সতর্কতা অবলম্বন না করায় বিশ্রাম না নিয়ে টানা ১২ থেকে ২০ ঘণ্টা বাহন চালনাসহ বিভিন্ন নিয়ম না মানায় ১ হাজার ৬০৫টি বাস দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৮৫৩ আহত এবং ২৬৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন।

এ ছাড়া দায়িত্বে অবহেলা, স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের দুর্নীতিসহ বিভিন্নভাবে সড়ক-মহাসড়কে অবৈধ বাহন নসিমন-করিমন এবং অন্যান্য তিন চাকার বিভিন্ন ধরনের বাহনের ১ হাজার ৩৩৭টি দুর্ঘটনায় ১ হাজার ৭৪৪ জন আহত এবং ২৫৬ জন নিহত হয়েছেন।

২০ টিভি চ্যানেল, ২২টি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা, সময় সংবাদসহ ৮৮টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সেভ দ্য রোডের স্বেচ্ছাসেবীদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে বলে জানায় সেভ দ্য রোড।

সড়কপথ ছাড়াও সেভ দ্য রোড নৌ, রেল এবং আকাশপথের তথ্যও সংগ্রহ করে থাকে। তারা জানায়, গত মে মাসে দেশের নৌপথে ৫২টি দুর্ঘটনায় ৯৭ জন আহত এবং ১১ জন নিহত হয়েছেন। অপরদিকে রেলপথে ৪১টি দুর্ঘটনায় ৫৮ জন আহত এবং ২১ জন নিহত হয়েছেন।

তবে দেশের আকাশ-সড়ক-রেল ও নৌপথ দুর্ঘটনামুক্ত রাখার লক্ষ্যে সেভ দ্য রোড ৭ দফা ঘোষণা করেছে। এগুলো হলো:

১. মিরেরসরাই ট্র্যাজেডিতে নিহতদের স্মরণে ১১ জুলাইকে ‘দুর্ঘটনামুক্ত পথ দিবস’ ঘোষণা করতে হবে।

২. ফুটপাত দখলমুক্ত করে যাত্রীদের চলাচলের সুবিধা দিতে হবে।

৩. সড়কপথে ধর্ষণ-হয়রানি রোধে ফিটনেসবিহীন যান চলাচল নিষিদ্ধ করতে হবে। কমপক্ষে অষ্টম শ্রেণি পাস ও জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া চালক-সহযোগী নিয়োগ ও হেলপার দ্বারা পরিবহন চালানো যাবে না। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

৪. স্থল-নৌ-রেল ও আকাশপথ দুর্ঘটনায় নিহতদের সরকারিভাবে কমপক্ষে ১০ লাখ ও আহতদের ৩ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

৫. ‘ট্রান্সপোর্ট ওয়ার্কার্স রুল’ বাস্তবায়নের পাশাপাশি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে ‘ট্রান্সপোর্ট পুলিশ ব্যাটালিয়ন’ বাস্তবায়ন করতে হবে।

৬. দুর্ঘটনার সঠিক তদন্ত ও সাজা ত্বরান্বিত করার মাধ্যমে সতর্কতা তৈরি করতে হবে। ট্রান্সপোর্ট পুলিশ ব্যাটালিয়ন গঠনের আগপর্যন্ত হাইওয়ে পুলিশ, নৌ পুলিশসহ সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতা-সহমর্মিতা-সচেতনতার পাশাপাশি সব পথের চালক-শ্রমিক ও যাত্রীদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। সব পরিবহন চালকের লাইসেন্স থাকতে হবে।

৭. ইউলুপ বৃদ্ধি, পথ-সেতুসহ সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি প্রতিরোধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। যেন ভাঙা পথ, ভাঙা সেতু ও ভাঙা কালভার্টের কারণে আর কোনো প্রাণহানি না হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি