শনিবার,২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


২০ দিনে ৬ বাংলাদেশি খুন দক্ষিণ আফ্রিকায়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১২.০৭.২০২৩

ডেস্ক রিপোর্ট:

দক্ষিণ আফ্রিকায় শেষ বিশ দিনে জোহানসবার্গ, ফ্রি স্টেট, ইস্টার্নকেপ, কেপটাউন প্রদেশ ও এলাকাগুলোতে ছয় বাংলাদেশি খুন হয়েছে। চলতি সপ্তাহের সোমাবার ও মঙ্গলবার দুই বাংলাদেশি খুন হয়েছে। এ ছাড়া জুন মাসের শেষ সপ্তাহে চার প্রবাসী দেশটিতে বিভিন্নভাবে অপমৃত্যুর শিকার হয়েছে।

মঙ্গলবার (১১ জুলাই) সকালে কেপটাউনের লিডেন ডেল্ফ এলাকায় নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে একদল বন্দুকধারী বাংলাদেশি নাজমুল হোসেনকে গুলি করে ঘটনাস্থলে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। নাজমুল হোসেনের দেশের বাড়ি ফেনী জেলার দাগনভূঁইয়া উপজেলার দুধমুখা এলাকায় বলে জানা গেছে।

আগের দিন সোমবার (১০ জুলাই) জোহানসবার্গের পস্তুরাস এলাকায় ডাকাতের গুলিতে শামীম নামের এক বাংলাদেশি খুন হয়েছে। প্রবাসীরা জানান, চাঁদা দাবির করার পর না পেয়ে চাঁদাবাজরা দোকানের বাইরে থেকে শামীমকে লক্ষ্য করে গুলি করলে মাথায় গুলিবৃদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান। তার দেশের বাড়ি মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলায়।

এর আগে, গত মাসের শেষ সপ্তাহের ২৬ জুন ফ্রি স্টেট প্রদেশের বুসাবেলোতে রিগান ইসলাম নামে এক বাংলাদেশিকে গুলি করা হত্যা করা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পুর্ব থেকে ওঁতপেতে থাকা সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে চলে যায়। তারা ধারণা করছেন রিগান টার্গেট কিলিংয়ের শিকার হয়েছেন।

পাশাপাশি ২৫ জুন রাত সাড়ে সাতটার সময় ইস্টার্নকেপ প্রভিন্সের স্টেকস্প্রিট শহরের পার্শ্ববর্তী লোকেশনে দোকানে ঢুকে আব্দুল মতিনকে ডাকাত দল গুলি করে হত্যা করে নগদ অর্থ, মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে চলে যায়। তার দেশের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলায়। তিনি দীর্ঘদিন ওই এলাকায় দোকান দিয়ে ব্যবসা আসছিলেন।

এ ছাড়াও শনিবার (২৪ জুন) সন্ধ্যার পর জোহানেসবার্গ শহরের ব্রামফন্টেইনে বাংলাদেশি মালিকানাধীন দোকানে ডাকাতির সময় বাধা দিতে গেলে মাকসুদুর রহমান মহসিন নামের এক বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে চলে যায়। তার দেশের বাড়ি কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলায় বলে জানা গেছে।

একই দিন সন্ধ্যার পর জোহানেসবারর্গের সুয়েটোতে প্রবীণ বাংলাদেশি কমিউনিটির পরিচিত মুখ মোহাম্মদ হারুন নিজ দোকানে ডাকাতদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। হারুনের দেশের বাড়ি নোয়াখালী জেলার বসুরহাটে।

সম্পত্তি দেশটিতে প্রবাসীদের এসব অপমৃত্যু নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা শাখা আ.লীগের উপদেষ্টা ও কমিউনিটি সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনিস রহমান বলেন, প্রবাসীদের সর্তকভাবে চলাফেরা করতে হবে। এখন অনেক কঠিন হয়ে গেছে। মরদেহ দেশে পাঠানো ও মামলা চালানোর জন্য ভুক্তভোগীদের যতটা সম্ভব প্রবাসীদের পাশে থেকে তাদের সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশি খুনের ঘটনা বেড়ে যাওযায় দেশটিতে বসবাস করে আসা বাংলাদেশিদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি