বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


বিল পরিশোদের বিড়ম্বনা থেকে মুক্তি অত্যাধুনিক উপায়ে সময়ের সাশ্রয়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০২.১২.২০১৪

GP-Logo
বিশেষ প্রতিনিধিঃ

২০০৬ সালে চট্টগ্রামে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে মোবাইলে বিদ্যুৎ বিল প্রদান নিয়ে কাজ শুরু করে গ্রামীণফোন। এ সেবার নাম গ্রামীণফোন বিল-পে সার্ভিস। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রথম এবং উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ ছিল গ্রামীণফোনের এ উদ্যোগ। বিল প্রদানে বিড়ম্বনা দূর করা, স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা এবং দূরত্বে বাধা দূর করতেই গ্রামীণফোন এ উদ্যোগ গ্রহণ করে। শুরুতেই বেশ জনপ্রিয় হতে থাকে এ সেবা। তরুণ থেকে শুরু করে নানা পেশাজীবীর মানুষ এ সেবার মাধ্যমে দ্রুত বিল পরিশোধ করতে পারছে। প্রথমদিন গ্রামীণফোন বিল-পে সার্ভিসে মোট ৭,৬১৬ টাকার ৮টি বিল জমা পড়ে। ২০০৬ সাল থেকে চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত মোট ২৬.৭৯ বিলিয়ন টাকার বিল জমা পড়েছে এ মোবাইল সেবার মাধ্যমে।
এ সেবার মাধ্যমে গ্রাহকরা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যেকোন জায়গা থেকে যেকোনো সময় বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে পারবেন। গ্রামীণফোন গ্রাহকরা নিজ ফোন ব্যবহার করে খুব সহজেই বিল পরিশোধ করতে পারবেন। পাশাপাশি অন্য অপারেটর ব্যবহারকারীরা এমনকি যাদের মোবাইল নেই তারাও গ্রামীণফোন অনুমোদিত বিল-পে/ মোবিক্যাশ আউটলেটের মাধ্যমে বিল পরিশোধ করতে পারবেন।
বিল পরিশোধের জন্য গ্রামীণফোনের এই উদ্যোগে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করছে পিডিবি চট্টগ্রাম, পিডিবি রাজশাহী, পিডিবি সিলেট, ডেসকো, ডিপিডিসি, বাখরাবাদ গ্যাস, কর্ণফুলী গ্যাস, জালালাবাদ গ্যাস, তিতাস গ্যাস এবং চট্টগ্রাম ওয়াসা। সেবা চালু করার পর থেকে ২০১৪ সালের মে মাস পর্যন্ত প্রায় ১৫ লক্ষ গ্রাহক এই সেবা ব্যবহার করে লাভবান হচ্ছেন। এই সময়ে প্রায় ২কোটি ৬০ লক্ষ বিল পরিশোধ লেনদেন সম্পন্ন হয়েছে। বছর প্রতি এই পরিশোধকৃত বিলের পরিমন ৪৭% করে বৃদ্ধি পাচ্ছে।
এই পদ্ধতিতে বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে কোনরূপ অসুবিধা দেখা দিলে গ্রামীণফোন সবধরনের তথ্যমূলক সহায়তা প্রদান করছে। প্রয়োজনবোধে নির্দিষ্ট গ্যাস,পানি বা বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে তথ্য গ্রহন করা হয়।
এ ব্যাপারে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিবেক সুদ বলেন, “বিশ্বের সকল আধুনিক দেশগুলোতে বিল পরিশোধের প্রক্রিয়া স্বয়ংসম্পূর্ণ। এদিক দিয়ে বাংলাদেশ তথা এ্র জনসাধারনকে বাকি বিশ্বের সাথে হালনাগাদ করানোকে আমাদের দায়িত্ব বলে মনে করি। দেশব্যাপী মোবাইল ফোন ব্যবহার বিকাশ লাভ করার সাথে সাথে বিল পরিশোধ করার পাশাপাশি অন্যান্য সেবা স্বয়ংক্রিয়বাবে প্রদান কের জনগনকে স্বাবলম্বী করার প্রয়াস রয়েছে আমাদের।”
গ্রামীণফোন গ্রাহকদের ১২০০ নম্বরে একটি এসএমএস পাঠিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে যে অ্যাকাউন্ট তৈরি হবে সে অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে গ্রাহক যখন খুশি তখনই বিল পরিশোধ করতে পারবেন। এ সুবিধা প্রদানের জন্য সারাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গ্রামীণফোন বিল-পে/মোবিক্যাশ আউটলেট স্থাপন করা হয়েছে। অন্য অপারেটরের গ্রাহকরা এবং যাদের মোবাইল নেই তারা বিলের কাগজ নিয়ে বিল-পে/মোবিক্যাশ আউটলেটে গিয়ে বিল পরিশোধ করতে পারবেন। বিল পরিশোধের সঙ্গে সঙ্গে গ্রহণ নিশ্চিত করতে ফিরতি এসএমএস চলে আসে। এছাড়া বিল-পে কল সেন্টারে ফোন করে বিল পরিশোধের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়। গ্রাহকরা ইচ্ছে করলে গ্রামীণফোন সেন্টার থেকে পরিশোধিত বিলের স্টেটমেন্ট সংগ্রহ করতে পারেন।
এই সেবা ব্যবহারকারী সরকারী চাকুরে সাদিয়া জানান, “অফিস থেকে বাসায় এসে অন্য সব কাজ শেষ করে আরাম আয়েশ করেই এখন বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করি। নিজেই এসএমএসের মাধ্যমে বিল পরিশোধের রেকর্ড পরীক্ষা করি। অফিসের কাজ ফেলে যেমন ব্যাংকে যাওয়ার দরকার নেই তেমনি সকাল ১০টা থেকে বেলা ১ টার মধ্যেই জমা দিতে হবে এমন ধরাবাঁধা সময় মানতে হয় না। এখন যেটা হয় বিলের কাগজ হাতে আসা মাত্রই অন্যহাতে মোবাইল দিয়ে বিল পরিশোধ করে দেই।”



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি