বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিনিয়োগে বাড়তি শঙ্কা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১১.০১.২০১৫

Saltamami1

পূর্বাশা ডেস্কঃ
রাজনৈতিক অস্থিরতা ফলে তৈরি পোশাকশিল্পে এরই মধ্যে উৎপাদন ৩০ শতাংশ পর্যন্ত কমে গেছে। উৎপাদন কম হওয়ায় এর প্রভাব পড়ছে কর্মসংস্থানের ওপর। অর্থবছরের ছয় মাস শেষে রপ্তানির প্রবৃদ্ধি এখন মাত্র দেড় শতাংশ। এরই মধ্যে চলতি মাসে রাজনৈতিক অস্থিরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় তৈরি হয়েছে বাড়তি শঙ্কা।

গবেষকেরা বলছেন, এর প্রভাবে রাজস্ব আদায়ে বড় ধরনের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। ফলে সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনা ব্যাহত হবে। এর বিরূপ প্রভাব পড়বে সামগ্রিক বিনিয়োগ ও জাতীয় উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির ওপর।

এফবিসিসিআই সভাপতি কাজী আকরাম বলেছেন, সুসংহত অর্থনৈতিক নীতি, অনুকূল বাণিজ্য পরিবেশ ও স্থিতিশীল রাজনৈতিক সময়ে তাঁরা বিনিয়োগে যথেষ্ট আগ্রহী থাকেন। আর এগুলো অবশ্যই দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করার অন্যতম পূর্বশর্ত।

এমসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, সম্প্রতি কৃষি খাত ভালো করলেও অবকাঠামো ঘাটতি ও বিদ্যুৎ খাতের সমস্যা শিল্প উৎপাদনকে ব্যাহত করেছে। এর সাথে যোগ হয়েছে রাজনৈতিক অস্থিরতা। তাই সরকারের উচিত হবে এসব সমস্যাসহ ভৌত অবকাঠামোর বাধা এবং জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ সংকটগুলো দূর করা।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে সরকার ৭ দশমিক ৩ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং বার্ষিক গড় মূল্যস্ফীতির হার ৭ শতাংশে বেঁধে রাখার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। চলতি ২০১৪-১৫ অর্থবছরে সরকার কর ও করবহির্ভূত খাত মিলিয়ে ১ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে।

অর্থবছরের ছয় মাস শেষে রপ্তানির প্রবৃদ্ধি এখন মাত্র দেড় শতাংশ। আগের অর্থবছরের একই সময়ে প্রবৃদ্ধি ছিল ১৮ শতাংশ। আবার গত নভেম্বর পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি মাত্র ১৪ শতাংশ, অথচ লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে ২৪ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি হতে হবে। গবেষকেরা বলছেন, এই হারে চলতে থাকলে অর্থবছর শেষে রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি হবে ২৫ হাজার কোটি টাকারও বেশি।

তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিকেএমইএ এরই মধ্যে বলছে, অনাকাঙ্খিক্ষত ধ্বংসাত্মক রাজনৈতিক পরিস্থিতি দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করছে। এ অবস্থা চললে দেশের জাতীয় প্রবৃদ্ধি চলতি বছরশেষে সাড়ে ছয় শতাংশ থাকবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, হয়তো অনিশ্চয়তার কারণে অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ হচ্ছে না। তবে আগামী দিনে বিনিয়োগ বাড়বে। তাহলে বিনিয়োগকারীরা কিসের জন্য অপেক্ষা করছেন, এই প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘আমি জানি না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি