বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌনে ৮’শ গাড়ির ক্ষতিপূরণ চেয়ে আবেদন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৮.০২.২০১৫

bus-ed-400x2481

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের পরেও হরতাল-অবরোধে পুড়ে যাওয়া গাড়ির ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে না বাস মালিকরা। অবরোধ চলাকালে গত ১১ জানুয়ারি কুষ্টিয়া ১১ মাইল নামক স্থানে ঢাকা মেট্রো গ- ১৩-৪৭৬২ টয়োটা করলা নামক একটি গাড়ি পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা।

পুড়ে যাওয়া গাড়িটির ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদন করেন গাড়ির মালিক আয়নাল মাতুব্বর। গাড়ির ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য আবেদনপত্রটিতে সুপারিশ করে দেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নুজান সুফিয়ান এমপি। আরো সুপারিশ করেন খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান ও বাগেরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেক। তারপরও গাড়ির ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে না গাড়ির মালিক আয়নাল মাতুব্বর। জানেনা কার কাছে গেলে পাবেন ক্ষতিপূরণ।

PIC

চওঈগাড়ি মালিক আয়নাল মাতুব্বর এই প্রতিবেদককে বলেন, গত ১১ জানুয়ারি ঢাকা মেট্রো গ- ১৩-৪৭৬২ টয়োটা করলা নামক গাড়িটি আমার পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। আনুমানিক ৩০ মিনিট পরে ঘটনাস্থলে আসে টহলরত পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যগণ। এসময় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। ততক্ষণে আমার গাড়িটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এখন আমার জীবন বিপন্নের দ্বারপ্রান্তে। গাড়িটি পুড়ে যাওয়ায় আমার প্রায় ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে। আমার আয়ের একমাত্র সম্বলটি পুড়ে যাওয়ায় আমি এখন অচল হয়ে পড়েছি। আমার এক ছেলে ও এক মেয়েসহ সংসারে ৮ জন সদস্য। মেয়েটি খুলনা বিএল কলেজে হিসাব বিজ্ঞানে ২য় বর্ষে পড়ে। আমি প্রতিদিন গাড়ির ট্রিপ খেটে কোন রকম সংসার পরিচালনা করতাম। গাড়িটি ক্রয়ের দেনা এখনো পরিশোধ করতে পারিনি। আমি নিরুপায় হয়ে এমপি মন্ত্রীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। কিন্তু কেউ কোন ব্যবস্থা করে দেয়নি। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় একটি জিডিও করেছি। জিডি নং ০৪ তাং ১১.০১.২০১৫, ধারা ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩)।

তবে এই হরতাল-অবরোধে এক হাজারের বেশি গাড়ি ভাংচুর ও আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত ৭৭৪টি গাড়ির ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন সংশ্লিষ্ট মালিকরা। তবে এখনও কোনো ক্ষতিপূরণ পাইনি। কবে নাগাদ এসব ক্ষতিপূরণ পাবেন তাও জানেন না তারা। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে এসব গাড়ির ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

এই বিষয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এই প্রতিবেদককে বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন গাড়ি পুড়লে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। অবশ্যই এই ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। তবে ক্ষতিপূরণ দিতে একটু সময় লাগবে। এজন্য তাড়াহুড়া করলে চলবে না ধৈর্য ধরতে হবে। পরিবহণ শ্রমিক সমিতির নেতাদের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। এরপরে তদন্ত করা হবে এবং সত্য কি না তা যাচাই করা হবে। তারপরে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, প্রতিদিনই ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ির ক্ষতিপূরণ চেয়ে মালিকরা আবেদন করছেন। আমি এ পর্যন্ত পৌনে ৮’শ গাড়ির ক্ষতিপূরণ চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে আবেদন করেছি। এসব আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে নিজ নিজ গাড়ির মালিকরা চেকের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণের টাকা পাবেন। আরও যেসব আবেদন জমা পড়েছে, সেগুলো শিগগিরই জমা দেয়া হবে।

গাড়ির মালিকরা জানিয়েছেন, অবরোধে মহাসড়কে বাস বের করে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হলে সরকার তাকে ক্ষতিপূরণ দেবে বলে আশ্বস্ত করেছিলেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। গত ৯ জানুয়ারি শুক্রবার গাবতলীর মাজাররোডে স্থানীয় সংসদ সদস্যের কার্যালয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এ আশ্বাস করেন। বৈঠকে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মো. মসিউর রহমান রাঙ্গাও উপস্থিত ছিলেন। তবে এখনও কোনো ক্ষতিপূরণ পাইনি আমরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি