সোমবার,২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


হোমিওপ্যাথির দোকানে নেশাগ্রস্থদের ভিড়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.০৯.২০১৬

vejalপূর্বাশা ডেস্ক:

বিলীন হয়ে যাচ্ছে হোমিওপ্যাথির সাফল্য। হোমিওপ্যাথি ওষুধ তৈরিতে ইথাইল এ্যালকোহলের বদলে ব্যবহার হচ্ছে কাঠ বার্ণিশ করার মিথাইল এ্যালকোহল। নিষ্ক্রিয় সাদা বড়ির সঙ্গে কাঠ বার্ণিশের এ্যালকোহল মিশিয়ে হাতুড়ে চিকিৎসকরা বিক্রি করছে ওষুধ। এমনকি নেশার দ্রব্য হিসেবে এ্যালকোহল পেতে ওলিগোলির হোমিও দোকানগুলোতে ভিড় বাড়ছে নেশাগ্রস্থতদের।

সুলভ, সহজলভ্য ও দরিদ্রবান্ধব এক চিকিৎসা পদ্ধতি হোমিওপ্যাথ। রোগ নিরাময়ক ওষুধ হিসাবে হোমিওপ্যাথের সঠিক মিশ্রণে বানানো ওষুধের যথাযথ ব্যবহারে অনেক দূরারোগ্য অসুখও সেরে যাওয়ার নজির আছে। কিন্তু ওষুধ যখন আটা, ময়দা, চিনির সঙ্গে শুধু এ্যালকোহলের মিশ্রণে বানানো তখন সেটা নিরাময়ক হবে?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি ও ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মুনীরুদ্দিন আহমদ বলেন, ‘একটি কাগজের ভেতরে চালের গুড়া বা আটা অথবা ময়দা যদি পুরিয়া বানিয়ে কোন রোগীকে খাওয়ানো হয় তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে জিজ্ঞাসা করা হলে সে বলবে আমার এখন ভালো লাগছে। আসলে সেটি তার মনতৃপ্তি মাত্র।’

কাঠ বার্ণিশের এ্যালকোহল অথবা আটা ময়দা দিয়ে বানানো ওষুধই নয় বরং বোতলের গায়ের লেবেল বদলে নি¤œমানের উপাদান বিখ্যাত বিদেশি ল্যাবরেটরির নামেও চালিয়ে দিচ্ছেন ওলি-গোলির কিছু চিকিৎসক।

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক নেতা ডা. তসলিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘কোন ফার্মেসি সরাসরি এ্যালকোহল পায়না। কোম্পানি যখন এলকোহল পায় তখন তারা সেটির ডাইমেনশন করে। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বাহির থেকে এ্যালকোহল নিয়ে এসে নেশা হিসেবে বিক্রি করছে।’

ঢাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আ ব ম ফারুক বলেন, ‘অনেক হোমিওপ্যাথি ডাক্তার এ্যালকোহল ফুরিয়ে গেলে বাজার থেকে এ্যালকোহল কিনে আনে। যে লোক গোপনে খোলাবাজার থেকে এ্যালকোহল বিক্রি করলো সে আবার ইথাইল এ্যালকোহলের বদলে মিথাইল এ্যালকোহল দিয়ে দিচ্ছে। মিথাইল এ্যালকোহল সাধারণত ব্যবহার হয় কাঠ বার্ণিশের জন্য। সেটা খেলে লিভার এবং কিডনী নষ্ট হয়ে যাবে।’

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার মূল সাফল্য ছিলো- রোগ নয় রোগীর চিকিৎসা। ভেজাল, অপব্যবহারের পাশাপাশি নজরদারীর অভাবে বিলীন হয়ে যাচ্ছে সে সাফল্য।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি