রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » পর্যটন » কক্সবাজারের পাহাড়, মন্দিরও যুক্ত হবে পর্যটকদের ভ্রমণ তালিকায়


কক্সবাজারের পাহাড়, মন্দিরও যুক্ত হবে পর্যটকদের ভ্রমণ তালিকায়


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৬.১২.২০১৬

k
পূর্বাশা ডেস্ক:

সমুদ্র সৈকত ছাড়াও কক্সবাজারে রয়েছে আরও অনেক দর্শনীয় স্থান। পাহাড় কিংবা ঐতিহাসিক মন্দিরও যুক্ত হতে পারে পর্যটকদের ভ্রমণ তালিকায়।

শুধু মাত্র সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা আর প্রচারণার অভাবে জনপ্রিয় হচ্ছে না কক্সবাজারের এসব সৌন্দর্যমন্ডিত জায়গা। পর্যটন সংশ্লিষ্টরা বলছেন দেশের এ শিল্পের প্রসারে দরকার নতুন নতুন পর্যটন স্থান চিহ্নিত করা।

চারদিকে সাগরের নীল জলরাশি। তীর ঘেঁষে ম্যানগ্রোভ বন আর ছোট বড় অসংখ্য পাহাড়। এসব নিয়েই বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালী।

ট্রলার বা স্পিড বোটে এই দ্বীপে যেতে সময় লাগবে ২০ থেকে ৩০ মিনিট। বাঁকখালী নদীর কিছু অংশ এবং বঙ্গোপসাগরের মহেশখালি চ্যানেল পাড়ি দিয়ে যেতে হয় এই দ্বীপে। একটু রোমাঞ্চপ্রিয় হলে উত্তাল ঢেউ এর সাথে সার্ফিং এর সুযোগ ভ্রমণে যোগ করবে বাড়তি আনন্দ।

দ্বীপে নামার সাথে সাথেই পর্যটকদের স্বাগত জানাতে অপেক্ষা করছে দ্বীপটির সুমিষ্ট ডাবের পানি। কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতের পাশাপাশি পর্যটনের নতুন আকর্ষণ হতে পারে এই মহেশখালি। আকর্ষণ রয়েছে বিদেশি পর্যটকেরও।

তারা বলেন, এখানে পর্যটনের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। পর্যটন গন্তব্য দেশ হিসেবে ভিন্ন ভিন্ন পর্যটন স্থান দরকার। সেক্ষেত্রে কক্সবাজার অনন্য।

স্থানীয় পর্যটন সংশ্লিষ্টরাও তাই কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের পাশাপাশি নতুন নতুন স্থান পর্যটকদের কাছ তুলে ধরতে কাজ করছেন।

তারা বলেন, বেসরকারি ও সরকারী যৌথ উদ্যোগে বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে অন্যতম পর্যটন দেশ হিসেব গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন তারা।

মহেশখালি, সোনাদিয়া দ্বীপ বা রামুর মতো পর্যটন স্থানের প্রচারে কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পর্যটন মন্ত্রী।

রাশেদ খান মেনন বলেন, কক্সবাজারের জানা ও অজানা পর্যটন কেন্দ্রগুলোকে তুলে নিয়ে এসে আন্তর্জাতিক ভাবে পরিচিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

দেশের প্রচলিত ও পরিচিত পর্যটন স্থানের পাশাপাশি অন্যান্য স্থানগুলোকে দেশি বিদেশি পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে সরকারি পৃষ্টপোষকতার কোন বিকল্প নেই বলেই মনে করেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি