সোমবার,১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


৬ কোটি ১০ লাখ চীনা শিশু বাবা-মায়ের সঙ্গ থেকে বঞ্চিত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১০.১২.২০১৬

পূর্বাশা ডেস্ক:

চীনকে এখন আমরা চিনি বিশ্বের দ্বিতীয় অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে। আমেরিকার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে উঠছে পৃথিবীর একটি পরাক্রমশালী দেশ হিসেবে। সারা পৃথিবীতে অর্থ বিনোয়োগ করছে। বিশাল দেশ। প্রাচুর্য আর ঐশ্বর্যের ছড়াছড়ি। তাদের উন্নত শহরগুলো সদা আলোকোজ্জ্বল, হাস্যময়, জাঁকজমকপূর্ণ। কিন্তু শহর থেকে একটু দূরে গভীর ক্ষত। ভিতরে ভিতরে গোমড়ে কাঁদে তাদের ৬১ মিলিয়ন শিশু। তাদের বাবা-মা’রা কাজ করে শহরে, শহরকে আরো উন্নত করতে। কিন্তু, নিজেদের শিশুদের কাছে রাখার সমর্থ হয় না তাদের। এসব দুর্ভাগা বঞ্চিত শিশুরা পিতা-মাতার সান্নিধ্য ছাড়া দিন কাটায় বছরের পর বছর। তাদের জন্য বাবা-মার আদর নেই, ভালোবাসা নেই। ঠিক মতো শিক্ষাও পায় না তারা। তারা বেড়ে উঠে মানসিক ও শারীরিক ভগ্ন স্বাস্থ্য নিয়ে।

চীনের শহরগুলোর বেশির ভাগ শ্রমিক, নিরাপদভুক্ত কর্মচারীদের বাড়ি গ্রামের দিকে। কাজের সন্ধানে তারা শহরগুলোতে নির্বাসিত হয়। কিন্তু, তাদের বেতন এতোই সামান্য যে পুরো পরিবার নিয়ে তারা থাকতে পারে না। বেশির ভাগ সময় তাদের জায়গা দেয় কোনো কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু, সেখানে তাদের বাচ্চাদের থাকার অনুমতি নেই। তাই বাধ্য হয়েই তাদের বাচ্চাদের রেখে আসতে হয় গ্রামে। অনহুই, হেনান এবং সিচুয়ান প্রদেশের প্রায় ৪৪ শতাংশ বাচ্চাই তাদের বাবা-মাকে ছেড়ে থাকে। গ্রামে থাকে শুধু বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা, তাদের দাদা-দাদীরা। তরুণ-তরুণী এবং মধ্যবয়সী নারী-পুরুষরা সবাই শহরে চলে গেছে কর্মসূত্রে।

লি ইকুইয়ের বয়স মাত্র ১৩ বছর। উপরে উপরে সে দেখাতে চায় সে ভালোই আছে। কিন্তু, ভিতরে ভিতরে সে পোড়ে মরে প্রতি মুহূর্তে। সে বলে, ‘আমি আমার  স্কুলের বন্ধুদের সঙ্গে থাকতে ভালোবাসি, তাই কখনা নি:সঙ্গবোধ করি না।’ ইকুই গত চার বছর ধরে তার বাবাকে দেখেনি। তার মা প্রতি বছর একবার আসে তাকে দেখতে। যখন তাকে জিজ্ঞেস করা হয় তুমি তাদের মিস করো কি-না, তখন তার চোখের পানি আটকে রাখতে কষ্ট হয়। বেরিয়ে আসা চোখের পানির ফোটাটি চোখের ভিতর ফেরত নিতে তাকে প্রায় যুদ্ধ করতে হয়। সে আর কোনো কথা বলে না।

ইকুইয়ের মতো এমন লক্ষ লক্ষ শিশু এখন চীনের বিভিন্ন প্রদেশে পিতা-মাতার শূন্যতা অনুভব করতে করতে চোখের পানি আটকে রাখার যুদ্ধ করে প্রতিদিন। একটি গবেষণায় দেখা গেছে এদের মধ্যে প্রায় ৭০ ভাগ শিশুই হতাশা, শূন্যতা আর মানসিক আঘাত নিয়ে বেড়ে উঠছে।

তাদের বলা হচ্ছে হারিয়ে যাওয়া প্রজন্ম, ধ্বংস হয়ে যাওয়া প্রজন্ম। চীনের সিসিআই প্রতিষ্ঠাতা জোশেফ লিম বলেছেন, ‘আমি জানি না তারা চীনের জন্য কী করবে, আর চীনই-বা তাদের নিয়ে কী করবে’।

পিতা-মাতারা ভাবে এটা তাদের সন্তানদের জন্য তাদের সর্বোচ্চ আত্মত্যাগ। তারা পরিবারের ভরণ-পোষণের জন্য সর্বাত্মক  চেষ্টা করছে। যেভাবে পারে দরিদ্রতা দূর করে সন্তানদের ভালো করে লেখাপড়া শিখিয়ে তারা সন্তানদের ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে চায়। কিন্তু, তারা জানে না ভবিষ্যতের আশায় তারা তাদের সন্তানদের অতীত ও বর্তমান সম্পূর্ণ ধ্বংস করে ফেলছে। বুঝতে পারলেও তাদের কিছু করার নেই। তাদের সন্তানদেরও তারা এটা বুঝিয়েছে যে তাদের জন্যই তাদের বাবা-মারা কষ্ট করছে, তাদেরও তাদেও বাবা-মা’র মতো কষ্ট করতে হবে। এটা বাচ্চারাও মেনে নিয়েছে। তাদের বাবা-মা বলছে, ‘আমরা তেমন লেখাপড়া জানি না। আমরা তাদের শুধু শিক্ষকদের হাতেই ছেড়ে দিয়েছি। এর বেশি কিছু আর তাদের জন্য আমরা করতে পারছি না।’

চীন সরকার সম্প্রতি এ নিয়ে গভীর উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করছে। তারা বুঝতে পারছে না এর ভবিষ্যত ঠিক কী হতে পারে। সিসিআইয়ের কয়েকজন প্রতিনিধি সম্প্রতি এদের মধ্যে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর সঙ্গে কথা বলেছে। স্থানীয় অফিসের কর্মকর্তা মি. জু মিপিং বলেছেন, ‘এর একমাত্র সমাধান যেভাবেই হোক বাবা-মার সঙ্গে শিশুদের থাকার ব্যবস্থা করা। যা তাদের জন্য সবচেয়ে বেশি দরকার তা হচ্ছে বাবা-মার সান্নিধ্য’।

সিসিআইয়ের প্রতিনিধিদল প্রথমদিন সাক্ষাত করে ১৪ বছর বয়সি জিয়াং লিং-এর সঙ্গে। সে তার দাদীর কাছে থাকে। কান্নাভেজা সুরে সে প্রতিনিধিদলকে জানায়, ‘খুব সকালে উঠেই আমি নাস্তা তৈরি করি, তারপর স্কুলে যাই। স্কুল থেকে ফিরে এসে কাপড়চোপড় ধুই, গোসল করি, রাতের খাবার রান্না করি’। এই অবস্থা চলছে তার দশ বছর বয়স থেকে।

সূত্র: সিএনএন



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি