বৃহস্পতিবার,১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


বিনা নোটিশে চকরিচ্যুত যেন নিয়তির লিখন!


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.১২.২০১৬

পূর্বাশা ডেস্ক:

বেসরকারি চাকুরি খাতে সুর্নির্দিষ্ট নীতিমালা না থাকায় নানাভাবে বিপাকে পড়তে হয় বেসরকারি চাকুরিজীবিদের। বিনা নোটিশে চকরিচ্যুত ও হয়রানি হওয়ার ঘটনা যেন নিয়তির লিখন। এছাড়া নেই কোন ভবিষ্যত, কেবল বর্তমান দিয়েই চলে জীবনযাপন। নেই পেনশন, নিয়ম কানুন।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের হিসেবে দেশের মোট জনশক্তির মোট ৯৫ ভাগ কর্মীই কাজ করে বেসরকারি খাতে। অবাক বিষয় হলেও সত্যি, তাদের চাকুরির নেই কোন নিশ্চয়তা। যার কারণে চাকুরি হারোনো নিয়ে আলাদা আতঙ্ক নিয়ে ভূগতে হয় তাদের। জীবন-জীবিকার চতুর্মূখী চাপে বেসরকারি খাতে কর্মরত কর্মজীবির সংখ্যা প্রয়ে সাড়ে পাঁচ কোটি। প্রতিদিন কাজ করছেন ১০ থেকে ১২ ঘন্টা। ফলে ভূগছেন অবসাদ ও অতিরিক্ত মানসিক চাপে। এমন অবস্থায় চাকুরি ছেড়ে দেওয়ারও কথাও ভাবেন অনেকেই।
কোম্পানীর দেওয়া নির্দিষ্ট টার্গেট পূরণ করতে না পরলে কর্মী ছাঁটাই প্রক্রিয়া ভাবিয়ে তোলে অনেককেই। কারণ কোম্পানী যা করবে তা মেনে নিতে বাধ্য। নেই জবাবদিহিতা, নেই আইন, কোম্পানী চলে নিজ নিয়মে! অনেকেই মানসিক চাপ থেকে মুক্তির আশায় চাকরি ছেড়ে দিয়ে চেষ্টা করেন নিজেই কিছু করার।
অথচ শ্রম আইন অনুযায়ী, তিন মাসের নোটিশ, নিয়মিত বেতন ও অন্যান্য পাওনা না পরিশোধ করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কোন কর্মচারীকে যদি চাকুরিচ্যুত করা হয় তাহলে ক্ষতিগ্রস্থরা সেই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শ্রম আদালতে মামলার করার সুযোগ পাবেন।
এ প্রসঙ্গে আইনজীবি ইউনুস আলী আকন্দ বলেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কোন চাকরিজীবি যদি চাকরিচ্যুত হয় তাহলে সেই ব্যক্তি শ্রম আদালতসহ সিভিল কোটেও মামলা করতে পারবে। এই মামলাটি নিয়ে প্রক্রিয়া মাফিক তিনি হাইকোর্টে ও সুপ্রীমকোর্টে যেতে পারবে।
অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বেসরকারি খাতে কোন সুনির্দিষ্ট নীতিমালা বা সার্ভিস রুল না থাকায় এ কারণে বেসরকারি খাতে পেনশন ব্যবস্থা চালু ও কর্মীদের আস্থাশীল করা বেশ কঠিন।
গবেষকরা বলছেন, এমন অনেকেই আছেন যারা চাকরিতে সন্তুষ্ট না হয়েও পরিবারের দিকে তাকিয়ে কাজ চালিয়ে যান। এর পরেও অনেকেই চাকরিচ্যুত হয়। তারা বলছেন, আইন থাকায় সরকারি খাতে চাকুরিচ্যুত করাটা বেশ কঠিন এবং বেসরকারি চাকুরিতে তা খুব সহজ বলেই প্রতিষ্ঠানের এই দায়বদ্ধহীনতা



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি