সোমবার,১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


অষ্ট্রিয়ায় বাংলাদেশের বিজয় দিবস উদযাপন-


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.১২.২০১৬

পূর্বাশা ডেস্ক:

ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে মহান বিজয়ের ৪৬তম দিবস উদযাপন করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস ভিয়েনা। অষ্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার হউফসাইলস্থ বাংলাদেশ দূতালয়ে ১৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানটি দুই পর্বে ভাগ করা হয়। প্রথম পর্বে সকাল ১০.০০টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

বিকেল ৫টায় দ্বিতীয় পর্বে ছিল ‘স্বাধীনতা কি করে আমাদের হলো’ শীর্ষক প্রামান্যচিত্র প্রদর্শনী ও মহান বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য বিষয়ে আলোচনা।

উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, রাষ্ট্রদূত মো: আবু জাফর, উপস্থাপনা করেন কাউন্সেলর ও চ্যান্সারী প্রধান শাবাব বিন আহমেদ।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রীর প্রেরিত বাণী পাঠ করা হয়।

‘স্বাধীনতা কি করে আমাদের হলো’ শীর্ষক প্রামান্যচিত্র প্রদর্শনীর পর মহান বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য বিষয়ে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ, প্ল্যানিং কমিশনের সদস্য ড. শামসুল আলম, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দীন, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আব্দুল মালেক, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সচিব এন.এম. জিয়াউল আলম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গভর্নেন্স ইনোভেশন ইউনিট (জিআইইউ) এর পরিচালক দেবব্রত চক্রবর্তী।

সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, অষ্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী, লেখক, সাংবাদিক এম. নজরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ অষ্ট্রিয়া ইউনিট কমান্ডের কমান্ডার বায়েজিদ মীর, অষ্ট্রিয়ান শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তা মিজানুর রহমান খান, জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক আনবিক সংস্থার কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ শামসুদ্দিন, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির, আওয়ামী লীগ নেতা আকতার হোসেন, রুহী দাস সাহা, নয়ন হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস নিমূলে আমরা সর্বাত্তক চেষ্টা করে চলছি’। তিনি বলেন, ‘আপনাদের সব ধরনের সমস্যা সমাধানে আমাদের সরকার সব কিছু করছে এবং করবে।’

প্ল্যানিং কমিশনের সদস্য ড. শামসুল আলম বলেন, ‘বর্তমান সরকার ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি ক্ষুধা, দারিদ্র ও নিরক্ষরতামুক্ত, উদার ও গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এই প্রচেষ্টায় প্রবাসী বাঙালিদের আন্তরিক অংশগ্রহণই কেবল সফলতা এনে দিতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘প্রবাসে আপনারা প্রত্যেকে এক এক জন রাষ্ট্রদূত। আপনাদের আচার-আচরণ, কর্ম-কান্ডের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিদেশীদের কাছে ফুটে উঠে।’

রাষ্ট্রদূত মো: আবু জাফর তাঁর বক্তব্যে মহান বিজয় দিবসের এই রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনের জন্য সমবেত সুধীজনকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি স্বাধীনতা লাভে বাঙালির আত্মত্যাগ এবং স্বাধীনতা উত্তরকালে এযাবত দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রবাসে সকলকে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে এম. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘যেসব স্বপ্নে তারিত হয়ে লাখ লাখ মুক্তিযোদ্ধা বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেশ স্বাধীন করেছিলেন, সেসব স্বপ্ন আজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পূরণ হচ্ছে। অর্থনৈতিক মুক্তির পথে দেশ অনেক এগিয়েছে। দেশকে রাজাকারমুক্ত করার চেষ্টা চলছে। এক কথায় দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণের মহাসড়কে আমরা দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছি। তারপরও আজকের দিনটি আমাদের নতুন প্রত্যয়ের। মহান বিজয় দিবস হোক সুখী-সমৃদ্ধ, রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার পুর্নব্যক্ত করার দিন।’

অনুষ্ঠানের শেষে বাংলাদেশের সুখ, সমৃদ্ধি ও উন্নয়ন কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি