বুধবার,৩০শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


আমাদের কি নায়িকা নেই ,কলকাতা কেন ?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৬.০৩.২০১৭


পূর্বাশা ডেস্ক:

কলকাতার নায়িকা ঢাকার ছবিতে। বিষয়টা ইদানীং একটু বেশিই দেখা যাচ্ছে। এর প্রধান কারণ কলকাতার সঙ্গে যৌথ প্রযোজনার ছবি নির্মাণ বলেই মনে করছেন অনেকে। তারপরও বিষয়টি নিয়ে কথা হচ্ছে চায়ের দোকান থেকে শুরু করে চলচ্চিত্রাঙ্গনে। এ বিষয়ে আমরা কথা বলেছি এ সময়ের চিত্রনায়িকা, চিত্রপরিচালক ও সাংবাদিকদের সঙ্গে।

বিদেশি জিনিসের প্রতি আমাদের আকর্ষণ একটু বেশিই থাকে- মাহিয়া মাহি, চিত্রনায়িকা

বিদেশি জিনিসের প্রতি আমাদের আকর্ষণ সব সময় একটু বেশিই দেখা যায়। এই বিষয়টি মাথায় রেখেই আমাদের পরিচালকরা কলকাতার নায়িকা নিয়ে কাজ করছেন। তবে এটি খারাপ নয়। এতে বাজার বাড়ছে। আমাদের নায়করাও কিন্তু কলকাতার ছবিতে অভিনয় করছেন। পিছিয়ে নেই নায়িকারাও। তাই বলে আমি কিন্তু এটা মানতে রাজি নই যে, আমাদের দেশে নায়িকা সংকট। প্রথম সারিতে অনেক ভালো অভিনেত্রী আছেন। দ্বিতীয় সারির নায়িকার তালিকাটাও ছোট নয়, যারা প্রত্যেকেই ভালো অভিনয় করে যাচ্ছেন। এসব অভিনয়শিল্পীর কাছ থেকে অভিনয় বের করে আনার দায়িত্ব পরিচালকের।

রুচির পরিবর্তন আনতেও অনেকে বিদেশি শিল্পী নিয়ে কাজ করেন- বিদ্যা সিনহা মিম, চিত্রনায়িকা

দেশে নায়িকা থাকতেও কলকাতার অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে কেন কাজ করা হচ্ছে, এ বিষয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না। নায়িকা সংকটÑ এটা মানতে রাজি নই। তবে এখন যেহেতু ভারতের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় ছবি নির্মিত হচ্ছে, তাই কলকাতার নায়িকা আসতেই পারেন। কারণ যৌথ প্রযোজনার নিয়মই হচ্ছে, এ দেশের নায়ক, তো অন্য দেশের নায়িকা কিংবা এ দেশের নায়িকা, অন্য দেশের নায়ক। মানে সবকিছু সমান সমান। এ ছাড়া কোনো পরিচালক যদি মনে করেন, গল্পের প্রয়োজনে অন্য দেশ থেকে নায়িকা আনা প্রয়োজন, তবে ঠিক আছে। দর্শকের রুচির পরিবর্তন আনতেও অনেকে বিদেশি শিল্পী নিয়ে কাজ করেন।

ওরা আসে, কাজ করে, এটাকে এত গুরুত্ব দেওয়ার কিছু নেই- বুবলী, চিত্রনায়িকা

সবার আগে নিজের দেশকে প্রাধান্য দিতে হবে। তারপর আপনি দেশের বাইরে তাকাবেন। এখন আপনি যদি শুরুতেই চিন্তা করেন কলকাতা থেকে নায়িকা এনে ছবি নির্মাণ করবেন, তবে বিষয়টি অবশ্যই খারাপ। কলকাতার নায়িকা যেমন আমাদের এখানে এসে কাজ করছেন, তেমনি আমাদের নায়িকারাও কলকাতায় গিয়ে কাজ করছেন। তবে আমাদের দেশে তাদের নিয়ে যতটা মাতামাতি হয়, ওদের দেশে আমাদের নিয়ে কিন্তু তার অর্ধেকও হয় না। ওরা শাকিব খান কিংবা জয়া আহসানকে নিয়ে মাতামাতি করেন। তারা সুপারস্টার। কিন্তু আমাদের এখানে তো ওদের দ্বিতীয় সারির একজন আসলে সবাই ঝাঁপিয়ে পড়ে। ওরা আসুক, কাজ করুক। কিন্তু সেটা এত গুরুত্ব দিয়ে দেখার কিছু নেই।

অভিনয়শিল্পীর কাছ থেকে ভালো কাজ আদায় করতেই অনেকে জানেন না- পরীমণি, চিত্রনায়িকা

‘দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া/ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া/একটি ধানের শিষের উপরে/একটি শিশিরবিন্দু।’ আমাদের অবস্থা হয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এই কবিতার মতো। আমাদের দেশের পরিচালকরা বিদেশ থেকে শিল্পী এনে কাজ করছেন। অথচ আমাদের এখানেও যে ভালো নায়িকা আছেন, তারা হয়তো সেটা জানেনই না অথবা একজন অভিনয়শিল্পীর কাজ থেকে কিভাবে অভিনয় আদায় করে নিতে হয়, তাদের সেটাও জানা নেই। তাই তারা কলকাতা থেকে নায়িকা এনে কাজ করছেন। তবে যৌথ প্রযোজনার কথা ভিন্ন। এতে দুই দেশের অভিনয়শিল্পীরাই অভিনয় করেন। কিন্তু যদি কেউ বলে থাকেন আমাদের নায়িকা সংকট, তবে সেটা মানা যায় না।

বাসায় ফার্নিচার নেই বলে কি পাশের বাসা থেকে ধার আনবেন- এসএ হক অলীক, পরিচালক

অবশ্যই আমাদের দেশে অনেক ভালো অভিনয়শিল্পী আছেন। নায়িকা আছে। আর যদি না থাকে, তবে আমাদের উচিত নতুন নায়িকা তৈরি করা। ছবি নির্মাণের পাশাপাশি এটাও একজন পরিচালকের কাজ। আমরা সেটা পারি না। তাই বিদেশি শিল্পী এনে কাজ করি। তবে বিষয়টা মোটেও ঠিক নয়। আপনার বাসায় ফার্নিচার নেই কিংবা নষ্ট, তা হলে আপনি কী প্রতিদিন পাশের বাসা থেকে ফার্নিচার ধার আনবেন? নাকি নিজের ফার্নিচার ঠিক করবেন?

বাধ্য হয়েই কলকাতার নায়িকা নিয়ে কাজ করতে হয়- অনন্য মামুন, পরিচালক

আমাদের দেশে প্রতিবছর ৩৫টি ছবি নির্মিত হয়। এতগুলো ছবি নির্মাণ করার নায়িকা কই? তাই বাধ্য হয়ে কলকাতার নায়িকা নিয়ে কাজ করা। আবার গল্পের প্রয়োজনেও বিদেশি নায়িকা নিয়ে আমাদের কাজ করতে হয়। বিষয়টা এখন বেশি বেশি হচ্ছে। কারণ যৌথ প্রযোজনার ছবি। তাই এখন এটা নিয়ে কথা বলার কিছু নেই। আমাদের নায়িকা ওদের ওখানে গিয়ে কাজ করবে, ওদের নায়িকা আমাদের এখানে এটা স্বাভাবিকভাবে দেখলেই হয়।

প্রথম সারির নায়িকা সংকট বলেই এমন হচ্ছে- মোস্তফা কামাল রাজ, পরিচালক

আমাদের দেশে প্রথম সারির নায়িকা সংকট। তাই কলকাতার নায়িকা নিয়ে অনেকে কাজ করছেন। আপনি একটি ছবি নির্মাণ করতে গেলে প্রথমেই নায়ক-নায়িকা খুঁজবেন। যেহেতু কথা হচ্ছে নায়িকা নিয়ে, তাই বলবÑ আপনার হাতে প্রথম সারিতে নায়িকা আছেন চারজন। ছবি হচ্ছে প্রতিদিন। তবে আপনি কাকে নিয়ে কাজ করবেন? তাই বাধ্য হয়ে বিদেশি নায়িকা নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। এটাকে খারাপ চোখে দেখার কিছু নেই।

ভালো ছবির দিকে গুরুত্ব দিন কলকাতার নায়িকা কোনো বিষয় নয়- মাহমুদ দিদার, পরিচালক

আমাদের এখানে দেখার মতো ছবি কই? নায়িকা কে এল, কে গেল এটা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে কিভাবে ভালো ছবি নির্মাণ করা যায়, সেদিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত। কলকাতার নায়িকা এখানে এসে কাজ করলেই তাদের গুরুত্ব দেওয়া হয়। এটা খুবই বাজে একটা দিক। আগে দেখতে হবে সে ভালো অভিনয় করছে কি-না?

এমন নায়িকা কোথায় যার ওপর আস্থা রাখা যায়- জনি হক, সাংবাদিক

মৌসুমী, শাবনূর, পূর্ণিমা ও পপির পর আমাদের দেশে এমন নায়িকা কোথায়, যার ওপর আস্থা রাখা যায়? স্বাভাবিক কারণে কলকাতার নায়িকা নিয়ে নির্মাতারা ছবি নির্মাণ করছেন। বিষয়টার ভালো দিক আছে, আবার খারাপ দিকও আছে। ভালো দিক হচ্ছে, এতে চলচ্চিত্রের বাজার বাড়ছে। আর খারাপ দিক হচ্ছে, এর ফলে নির্মাতারা নতুন নায়িকা তৈরি করতে চাচ্ছেন না।

দেশের অভিনয়শিল্পীরা সময়ের মূল্য জানেন না- জাহিদ আকবর, সাংবাদিক

আমাদের শিল্পীরা মোটেও প্রফেশনাল নয়। তাদের জন্য একটি ছবির খরচ অনেক বেড়ে যায়। সাধারণ মানুষ মনে করেন, কলকাতার নায়িকা মানে অনেক খরচ করে তাকে আনা হয়েছে। কিন্তু বিষয়টা মোটেও তেমন নয়। তাদের নিয়ে ছবি নির্মাণ করলে সেটা ঠিক সময়েই শেষ হয়। বরং আমাদের কাউকে নিয়ে কাজ করলে সেটা কবে শেষ হবে, কেউই বলতে পারেন না। আমাদের দেশের শিল্পীরা সময়ের মূল্য দিতে জানেন না।

নিজেদের শিল্পীরা প্রফেশনাল নয় বলেই বিদেশিরা কাজ করছেন- এফ আই দীপু, সাংবাদিক

কলকাতার নায়িকাদের ডাকলেই পাওয়া যায়। তারা সময়ের কাজ সময়ে করে। কারো সিডিউল ফাঁসায় না। কিন্তু আমার কাছে আমাদের দেশের এমন অনেক ছবির নাম আছে, শুধু নায়ক-নায়িকার কারণে যেগুলোর কাজ অর্ধেক বা শুরু হয়েই থেমে গেছে। প্রতিটি ইন্ডাস্ট্রির শিল্পী হবে প্রফেশনাল। দেশের শিল্পীরা প্রফেশনাল না হলে বিদেশি শিল্পী দিয়েই কাজ করানো উচিত।

কলকাতার নায়িকা এ দেশে এলে সমস্যা কী- দাউদ হোসেন রনি, সাংবাদিক

আমার তো মনে হচ্ছে, বিষয়টা উল্টো! এখন তো আমাদের দেশের নায়িকারা কলকাতার ছবিতে বেশি অভিনয় করছেন। তা হলে কলকাতার নায়িকা এ দেশে এলে সমস্যা কী? আর সিনেমা হচ্ছে সারা বিশ্বের জন্য। এখন আমরা যদি মনে করি, নিজেদের সিনেমা নিজেরাই দেখব, তবে সেটা হবে বোকামি। আর গল্পের প্রয়োজনে আমি যে কাউকে নিয়েই কাজ করতে পারি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি