শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


প্রথমে ফুটন্ত পানি, পরে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৩.০৩.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:
গৃহকর্তা ও তার পরিবারের সদস্যরা প্রথমে ফুটন্ত পানিতে তার শরীর ঝলসে দেয়। প্রচণ্ড যন্ত্রণায় সে ছটফট করতে থাকলে তাকে বাথরুমে আটকে রাখা হয়। আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য এক পর্যায়ে তাকে বলা হলো নিজের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়ার জন্য। এতে সে রাজি না হওয়ায় তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। দগ্ধ শরীরে কোনো চিকিত্সা মেলেনি। উল্টো পাঠিয়ে দেয়া হয় তার বাড়ি খুলনায়। সেখানে চার দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে গত মঙ্গলবার সে মারা যায়। অভাবের তাড়নায় খুলনা থেকে কেরাণীগঞ্জের একটি বাসায় কাজ করতে এসে এভাবে প্রাণ গেল ফাতেমা বেগমের (২২)।
ফাতেমার বাড়ি খুলনার মংলায় সিগন্যাল টাওয়ার এলাকায়। বাবার নাম মোজাম সরদার।
নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, স্বামী পরিত্যক্তা ফাতেমা ৯ মাস আগে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জের হাসনাবাদ এলাকায় দেলোয়ার হোসেনের বাসায় কাজ নেয়। বেতন ছাড়াই পেটেভাতে কাজ করতে থাকে। কিছুদিন আগে কাপড় ধোয়ার সময় অসাবধানতাবশত দুটি কাপড়ে রং লেগে যায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে গৃহকর্তা দেলোয়ার ও তার ছেলে আশিক ফাতেমাকে পেটাতে থাকে। এ সময় গৃহকর্ত্রী সালমা ফাতেমার শরীরে গরম পানি ঢেলে দেয়। এতে ফাতেমার সারা শরীর ঝলসে যায়। অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে বাথরুমে আটকে রাখা হয়। হত্যার উদ্দেশ্যে ফাতেমার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বাড়ির লোকজন। এতেও প্রাণে বেঁচে যান ফাতেমা। এ অবস্থায় ঢাকায় কোনো চিকিত্সা না দিয়ে একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করে ফাতেমাকে খুলনা নিয়ে যায় গৃহকর্তা দেলোয়ার। পরিচয় গোপন রেখে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ফাতেমাকে ভর্তি করে সেখান থেকে পালিয়ে যায় দেলোয়ার ও তার লোকজন। পরে ফাতেমার অগ্নিদগ্ধ হওয়ার খবর তার পরিবারকে মোবাইল ফোনে জানায় দেলোয়ার। চার দিন পর চিকিত্সাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার ফাতেমার মৃত্যু হয়।
জানা গেছে, মৃত্যুর আগে হাসপাতালে স্বজনদের কাছে নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন ফাতেমা। তার এ বর্ণনা মোবাইল ফোনে ভিডিও করা হয়েছে।
মংলা থানার ওসি লুৎফুর রহমান জানান, ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বাগেরহাট হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, মংলা পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টি আমাদের অবগত করা হয়েছে। অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান চলছে।


এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি