শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বাংলাদেশের সেরা দশ পর্যটন আকর্ষণ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০২.০৪.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের আধার এই অপরূপ বাংলাদেশ। নদী, পাহাড়, সমুদ্র, ফসলের মাঠ, সবুজ বন আর নানা ঐতিহাসিক স্থাপনায় সমৃদ্ধ এই দেশের সৌন্দর্য্যের কোন তুলনা নেই। প্রতিদিন নতুন নতুন পর্যটন আকর্ষণ খুঁজে বেড়াচ্ছেন এদেশের তরুণরা। তবে সৌন্দর্য্য আর মানুষের পছন্দের বিচারে এখানে আমরা তুলে ধরলাম বাংলাদেশের সেরা দশটি পর্যটন এলাকা। আসুন আপনিও একবার পড়ে নিন। কোথাও যাওয়া না হলে একবার সময় নিয়ে ঘুরে আসুন।

সেরা দশ পর্যটন আকর্ষণ

১. কক্সবাজার:
ছুটিতে বেড়িয়ে আসার জন্য পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত কক্সবাজারের তুলনা হয় না। সারি সারি ঝাউবন, বালুর নরম বিছানা, সামনে বিশাল সমুদ্র। কক্সবাজার গেলে সকাল-বিকাল সমুদ্রতীরে বেড়াতে মন চাইবে। আর রয়েছে নীল জলরাশির গর্জন। এ জেলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে মাতা মুহুরী, বাঁকখালী, রেজু, কুহেলিয়া ও নাফ নদী। পর্যটন, বনজসম্পদ, মৎস্য, শুঁটকি, শামুক, ঝিনুক ও সিলিকাসমৃদ্ধ বালুর জন্য কক্সবাজারের অবস্থান তাই ভ্রমণবিলাসী পর্যটকদের কাছে সবার শীর্ষে।

কক্সবাজার গিয়ে বেড়াতে পারেন হিমছড়ি ও ইনানী বিচে। কক্সবাজারের ১২ থেকে ২২ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে রয়েছে এ দুটি আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান। যারা ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজার যেতে চান তারা ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজার অথবা সরাসরি বাসে কক্সবাজারে যেতে পারেন। কক্সবাজারে রয়েছে আন্তর্জাতিক মানের বেশকটি হোটেল, মোটেল ও রিসোর্ট।

২. সুন্দরবন: (খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা)

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও জীববৈচিত্র্যে ভরপুর বিশ্বের ঐতিহ্য (ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ) সুন্দরবন। এখানকার সব কিছুই বিস্ময়ে ভরা। প্রায় ছয় হাজার ১৭ বর্গকিলোমিটার আয়তনের বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট এই সুন্দরবন চব্বিশ ঘণ্টায় ছয়বার তার রূপ বদলায়। সুন্দরবনের করমজল বন্য ও কুমির প্রজনন কেন্দ্র, হারবাড়িয়া ইকো সেন্টার, কটকা, কচিখালী ও নীলকমল অভয়ারণ্য আছে। অল্প সময়ে কম খরচে সুন্দরবন ভ্রমণের স্বাদ নিতে হলে করমজলে যেতে পারেন। ট্যুর অপারেটরগুলো বছরজুড়ে সুন্দরবন প্যাকেজ রাখেন। বছরে মোটামুটি ১২ থেকে ১৫ লাখ দেশি বিদেশি পর্যটক সুন্দরবন দেখতে যান।

৩. সেন্ট মার্টিন দ্বীপ

সেন্টমার্টিন। আকাশের নীল আর সমুদ্রের নীল সেখানে মিলেমিশে একাকার। তীরে বাঁধা নৌকা, নান্দনিক নারিকেল গাছের সারি আর ঢেউয়ের ছন্দে মৃদু পবনের কোমল স্পর্শ- এটি বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন প্রবাল দ্বীপ। ঢাকা থেকে সরাসরি টেকনাফের বাসে গিয়ে সেখান থেকে সি-ট্রাকে চলে সেন্টমার্টিন যাওয়া যায়। আবার কক্সবাজারে গিয়ে সেখান থেকে বাস বা মাইক্রোবাসে করে টেকনাফ, টেকনাফ থেকে সি-ট্রাক, জাহাজ কিংবা ট্রলারে চড়ে পৌঁছবেন সেন্টমার্টিন। সেখানে থাকার জন্য বেশ উন্নতমানের কয়েকটি হোটেল ও কটেজ রয়েছে।

৪. বান্দরবান
সবুজ আর পাহাড়ের অনন্য রূপ মিলেমিশে রয়েছে বান্দরবানে। এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ ছুটে যায় প্রতিবছর। উল্লেখযোগ্য স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে নীলগিরি, স্বর্ণমন্দির, মেঘলা, শৈল প্রপাত, নীলাচল, মিলনছড়ি, চিম্বুকসহ বেশ কয়েকটি জায়গা।

বান্দরবান জেলা সদর থেকে ৪৭ কি.মি. দক্ষিণ পূর্ব দিকে লামা উপজেলার অংশে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২২০০ ফুট ওপরে বাংলাদেশের নতুন পর্যটন কেন্দ্র নীলগিরির অবস্থান।বাংলাদেশের দার্জিলিং হিসেবে পরিচিত নীলগিরি যেতে হলে আগে থেকে ল্যান্ডক্রুজার জিপ ভাড়া করতে হবে। বান্দরবনের স্বর্ণমন্দির উপাসনালয়টি বান্দরবান জেলার অন্যতম একটি অন্যতম পর্যটন স্পট । আরেক পর্যটন আকর্ষণ শৈল প্রপাত বান্দরবান শহর হতে ৭ কি.মি. দক্ষিণ পূর্বে চিম্বুক বা নীলগিরি যাওয়ার পথে দেখা যাবে। পাহাড়ের চূড়া থেকে চারদিকের সবুজ প্রকৃতির সৌন্দর্য অবগাহন এখানে প্রকৃতিপ্রেমীদের টেনে আনে। ঢাকা থেকে ট্রেনে বা বাসে প্রথমে চট্টগ্রাম তারপর চট্টগ্রাম থেকে সোজা বান্দরবান।

৫. রাঙ্গামাটি
পাহাড়ের বুকে সূর্যালোক, ভরা পূর্ণিমা রাতে হ্রদের পানিতে মৃদু ঢেউয়ের ওপর জোছনার ঝলকানি আর গিরি নির্ঝর ঝরনার রূপমাধুরী দেখেনি যে, সে যেন অপরূপ পাহাড়ি অরণ্যের জনপদ রাঙামাটি দেখেনি। এলোমেলো সারিতে সাজানো উঁচু-নিচু ছোট-বড় অসংখ্য পাহাড়ের সমাবেশ। এসব নিয়েই পাহাড়ি জনপদ রাঙামাটি।

তাই তো সময় পেলেই প্রকৃতিপ্রেমীরা ছুটে আসছেন রাঙামাটির দৃষ্টিকাড়া মনোরম পর্যটন স্পট আর নৈসর্গিক আবেশে, ঘুরে বেড়াচ্ছেন পাহাড়ে। ঢাকা থেকে রাঙামাটি যেতে সরাসরি বিলাসবহুল বাস সার্ভিস। চট্টগ্রাম থেকে যাওয়া যায় খুব সহজে। চট্টগ্রাম থেকে প্রায় ৭৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পর্যটন শহর রাঙামাটি। চট্টগ্রাম শহর থেকে রাঙামাটি আসতে সময় লাগবে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা।

৬. শ্রীমঙ্গলের চা বাগান (মৌলভীবাজার)
উঁচু-নিচু পাহাড়ের বুকে রয়েছে সারি সারি সবুজ চায়ের বাগান শ্রীমঙ্গলকে অপরুপ সাজে সাজিয়েছে। প্রকৃতি আর বাগানে কাজ করা চা শ্রমিকদের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে এক নান্দনিক সৌন্দর্যে। মূলত চা শিল্পকেন্দ্রিক বিধায় এ শহরটিকে চায়ের রাজধানীও বলা হয়। বেড়াতে যাওয়ার জন্য শ্রীমঙ্গল হলো একটি আদর্শ। সিলেট অঞ্চল বেড়াতে গিয়ে জাফলং, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতের পাশাপাশি শ্রীমঙ্গল ঘুরে আসতে পারেন।

ঢাকা থেকে ব্যক্তিগত গাড়ী, বাস বা আন্তঃনগর ট্রেনে করে শ্রীমঙ্গল আসতে পারেন। পর্যটকদের রাতযাপনের জন্য এখানে বেশ কয়েকটি হোটেল, রিসোর্ট, রেস্ট হাউস, কটেজ রয়েছে। টিলার ওপর নির্মিত টি-রিসোর্ট বা পাঁচতারকা মানের গ্র্যান্ড সুলতান রিসোর্ট অ্যান্ড গলফের নজরকাড়া সৌন্দর্য পর্যটকদের বিমোহিত করে তোলে। টিলার ওপর নির্মিত কটেজগুলোতে রাতযাপন করে পর্যটকরা প্রকৃতিকে খুব কাছ থেকে অবলোকন করার সুযোগ পাবেন।

৭. কুয়াকাটা (পটুয়াখালী)
সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের জন্য বিখ্যাত কুয়াকাটা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য কুয়াকাটার প্রতিদ্বন্দ্বী আর কেউ নেই। নৈসর্গিক সৌন্দর্য অপরূপ। প্রকৃতির উপহার দীর্ঘ সাগর সৈকত সত্যিই বিস্ময়কর। বিশ্বের আকর্ষণীয় সমুদ্র সৈকতগুলোর মধ্যে কুয়াকাটা অন্যতম। কুয়াকাটার এই মনোরম সাগর সৈকতে গেলেই সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের মতো বিরল, বর্ণিল দৃশ্য সহজেই দেখা যায়, তাও একই স্থানে দাঁড়িয়ে।

ঢাকা থেকে পটুয়াখালী লঞ্চে করে যাওয়া যায়। সেখান থেকে বাসে করে কুয়াকাটা। ঢাকা থেকে সরাসরি কুয়াকাটা পর্যন্ত বাস চলাচল করে। কুয়াকাটায় থাকার জন্য আছে সরকারি পর্যটন হলিডে হোমস, সরকারি ভিআইপি ডাকবাংলো, ব্যক্তিমালিকানাধীন হোটেল-মোটেল, গেস্ট ও রেস্ট হাউস। খাবার হোটেল রয়েছে কুয়াকাটায় পর্যাপ্ত। কম মূল্যে আপনি পরিবারসহ পছন্দসই তৃপ্তি নিয়ে খাওয়া-দাওয়া করতে পারবেন।

৮. সাজেক (রাঙ্গামাটি)
পাহাড় আর মেঘের খেলা দেখার অপরুপ স্থান বাংলাদেশের সাজেক ভ্যালি। রাঙ্গামাটি জেলার সর্ব উত্তরে ভারতের মিজোরাম সীমান্তে অবস্থিত। সাজেক হলো বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন । যার আয়তন ৭০২ বর্গমাইল । সাজেকের উত্তরে ভারতের ত্রিপুরা ও পূর্বে ভারতের মিজোরাম।

সাজেক রাঙামাটি জেলায় অবস্থিত হলেও এর যাতায়াত সুবিধা খাগড়াছড়ির দীঘিনালা থেকে। খাগড়াছড়ি জেলা সদর থেকে এর দূরত্ব ৭০ কিলোমিটার। ঢাকা থেকে খাগড়াছড়ি বা দিঘিনালা গিয়ে সেখান থেকে চাঁন্দের গাড়িতে সাজেক যাওয়া যায়। সাজেকে থাকার জন্য সেনাবাহিনীর একটি রিসোর্ট আছে। এছাড়া স্থানীয় উপজাতিদের কটেজেও থাকতে পারবেন।

৯. নিঝুমদ্বীপ (নোয়াখালী)
নিঝুম দ্বীপ বাংলাদেশের একটি ছোট্ট দ্বীপ। নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার একটি ইউনিয়ন নিঝুমদ্বীপকে ‘দ্বীপ’ বলা হলেও এটি মূলত একটি ‘চর’। নিঝুম দ্বীপ এখন হরিণের অভয়ারণ্য। প্রায় ৯১ বর্গকিমি আয়তনের নিঝুম দ্বীপে ৯টি গুচ্ছগ্রাম রয়েছে।

শীতের মৌসুমে অজস্র প্রজাতির অতিথি পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত হয় নিঝুম দ্বীপ। নিঝুম দ্বীপে বিশাল এলাকা পলিমাটির চর। জোয়ারের পানিতে ডুবে এবং ভাটা পড়লে শুকায়। এই স্থানগুলোতে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির বসবাস। নিঝুম দ্বীপে সুন্দরবনের মতো ম্যানগ্রোভ গাছ জন্মায়। ঢাকা থেকে হাতিয়ায় লঞ্চে এসে সেখান থেকে ট্রলারে নিঝুমদ্বীপে সহজে আসা যায়।

নিঝুম দ্বীপে পর্যটকদের জন্য রয়েছে অবকাশের নিঝুম রিসোর্ট। যেখানে জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুতের ব্যবস্থার আছে। খাবারের জন্য রয়েছে স্থানীয় হোটেল। সব মিলিয়ে পর্যটকদের মন জুড়াবে নিঝুম দ্বীপ।

১০. ষাট গম্বুজ মসজিদ (বাগেরহাট)

ষাট গম্বুজ মসজিদের জন্য বিখ্যাত বাগেরহাটে প্রতিদিন কয়েক হাজার পর্যটক বেড়াতে যান। দেশের পাশাপাশি বিদেশি পর্যটকরা বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদ ছাড়াও অনান্য দর্শনীয় স্থান হযরত খানজাহান আলী (রঃ) ও তাঁর মাজার, খাঞ্জেলী দীঘি, নয়গম্বুজ মসজিদ ও জিন্দাপীর মসজিদের মতো দর্শনীয় স্থান ভ্রমণ করেন। দর্শনীয় স্থানগুলোর পাশাপাশি বাগেরহাটের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যও মানুষকে আকর্ষন করে। ঢাকা থেকে সরাসরি বাগেরহাটের বাস চলাচল করে। অনেকে খুলনা ও বাগেরহাট একসাথে ভ্রমণ করতে পারেন। খুলনায় অনেকগুলো ভালো মানের আবাসিক হোটেল আছে।

পূর্বাশানিউজ/০২-এপ্রিল,২০১৭/ফারজানা

 



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি