শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


জহিরন বেওয়া ৯০ বছরেও সাইকেলে চড়ে গ্রামে গ্রামে ছুটছেন


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৩.০৪.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

লালমনিরহাটের আদিতমারি উপজেলার গ্রামে গ্রামে ৯০ বছরের বেশি বয়স্কা জহিরন বেওয়া সাইকেল নিয়ে ঘুরে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত পরামর্শ ও সেবা দিয়ে আসছেন গত ৪৪ বছর ধরে। সকাল থেকে বিকেল এভাবে তার মত একজন বয়স্কা নারী সাইকেলে চড়ে মানুষের কল্যাণে বাড়ি বাড়ি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তাও পল্লী গ্রামে এটা সচারচর চোখে পড়ে না। সবাই তাকে বাংলার নানী বলেই ডাকেন। গ্রামে গ্রামে কোনো অসুস্থতার খবর পেলেই সাইকেল নিয়ে তার চিকিৎসা ও পরিচর্যায় ছুটে যান নানী।

সাইয়েদ আলীর বিধবা স্ত্রী জহিরন বেওয়া বলেন, আমি শুধু একেবারেই সাধারণ অসুখের জন্যে চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকি। আদিতমারির ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের তালুক দুলালি গ্রামের বাসিন্দা তিনি। তবে কোনো গুরুতর অসুখের জন্যে চিকিৎসকের কাছে যাবার পরামর্শ দেওয়ার পাশাপাশি তিনি অসুস্থ ব্যক্তিকে হাসপাতালেও পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। জহিরন ১৯৭৩ সালে স্বাস্থ্য সেবা ও পরিবার পরিকল্পনায় ৬ মাসের প্রশিক্ষণ নেন। এরপর তিনি পল্লী স্বাস্থ্য কর্মী হিসেবে কাজ করে আসছেন। এরপর থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে তিনি অসুস্থকে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে আসছেন। এবং তা আজও অব্যাহত রয়েছে।

হাজিগঞ্জ গ্রামের ৬৮ বছরের কৃষক আজিজুল ইসলাম জানান, আশেপাশের গ্রামগুলো তিনি সাইকেলে চড়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অসুস্থকে এ সেবা ও পরামর্শ দিয়ে আসছেন। অথচ তিনি এজন্যে কোনো ফি নেন না। ওষুদের মূল্যটুকুই গ্রহণ করেন। এমনকি গরীব রোগিদের তিনি বিনামূল্যে ওষুধ সরবরাহ করেন।

চাঁদপুর গ্রামের ৬৭ বছরের মনোয়ারা বেওয়া জানান, তিনি চিকিৎসক নন। কিন্তু তার অসাধারণ অভিজ্ঞতা আছে যা দিয়ে তিনি সাধারণ অসুখের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেন। এর ফলে আমরা চিকিৎসা ও শুশ্রুষা পেয়ে থাকি।

দুলালি গ্রামের ৪২ বছর বয়স্ক সন্তানসম্ভবা মা খাদিজা বেগমও জহিরনের প্রশংসা করে বলেন, কখনো তিনি চিকিৎসা সেবা বা পরামর্শের জন্যে ফি নেন না। বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের সেবার ব্যাপারে তার অসাধারণ অভিজ্ঞতা রয়েছে।

টাঙ্গাইলে বিয়ের আগে বাবার বাড়িতে জহিরন তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করেছিলেন। দিনে এখন অন্তত ৮টি গ্রামে ৬০ জন রোগিকে তিনি চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, মাসে অন্তত ৩০টি গ্রাম ঘুরে এধরনের চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শ দেই। দিনে ওষুধ বিক্রি করে দেড়’শ টাকা আয় হয়।

জহিরনের নাতি ৪৯ বছর বয়স্ক সিদ্দিক আলী স্বীকার করেন যখন তার দাদি সকালবেলায় সাইকেল নিয়ে অসুস্থের বাড়ি ছুটে যান তখন তিনি দুশ্চিন্তায় থাকেন। কিন্তু জহিরনের স্বাস্থ্য এখনো চমৎকার। সিদ্দিক জানান, তার দাদির প্রত্যেকটি দাঁত এখনো অটুট রয়েছে। শারীরিকভাবে তিনি প্রবল সক্রিয়। কিন্তু তার প্রধান সম্পদ মুখের অমলীন হাসি।

জহিরন নিজেও জানান, গত ৫০ বছর ধরে কোনো অসুখ হয়নি তার। একথা বলেই সেই ভূবন ভুলানো হাসি হাসেন। তার সবচেয়ে ছোট ছেলে ৫৮ বছরের তোরাব আলী জানান, কিছু জমিজমা আছে আমাদের, তাতেই কোনো প্রকার চলে যায়। এমন অনটন নেই যে মা’কে কাজ করতে হবে। আমি মা’কে অনেকবার এধরনের কাজ করতে মানা করেছি, কিন্তু তাতে কোনো কাজ হয়নি।

জহিরন বলেন, তিনি শুধু নিজের জন্যেই কাজ করেন না। জহিরন বলেন, এটা সামাজিক কল্যাণের জন্যে এবং প্রত্যেকের উচিত এধরনে কাজে নেমে পড়া।

জহিরনের ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে। তার বড় ছেলে দানেশ আলী ৮ বছর আগেই ৬৬ বছর বয়সে মারা গেছে। ৬ বছর আগে স্বামী মারা গেছে। জহিরনের স্বপ্ন তবু থেমে থাকে না, সাইকেলের চাকার মত দুর্বার গতিতে ঘুরতে ঘুরতে সে স্বপ্ন বাড়ি বাড়ি ছড়িয়ে দেয় এক আলোকমালা যেন শেষ নিঃশ্বাস টুকু নেওয়ার আগ পর্যন্ত জহিরন কোনোভাবেই তাতে ক্ষান্ত দেবেন না।

পূর্বাশানিউজ/২৩-এপ্রিল,২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি