বৃহস্পতিবার,২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ


৭২ শিশু পেল কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইস


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৯.০৬.২০১৭


পূর্বাশা ডেস্ক:

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উদ্যোগে ৭২ শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুকে বিনামূল্যে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট বরাদ্দপত্র দেয়া হয়েছে। রোববার এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিএসএমএমইউ’র শহীদ ডা. মিলন হলে এ বরাদ্দপত্র দেয়া হয়। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় বাস্তবায়নাধীন কর্মসূচি কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট কার্যক্রম।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রতিটি কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইসের বাজারমূল্য ১০ লাখ টাকা। সে হিসেবে ৭ কোটি ২০ লাখ টাকার ডিভাইস বিনামূল্যে প্রদান করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএসএমএমইউ ভিসি অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মহানুভবতায় শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় বিএসএমএমইউ’র অনন্যসাধারণ মহতী সেবা কার্যক্রম হলো কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারি কর্মসূচি। প্রধানমন্ত্রী আছেন বলেই অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুরা লাখ লাখ টাকার চিকিৎসা বিনামূল্যে পেয়েছে। ফলে ওই শিশুরা আজ শুনতে পারছে, কথা বলতে পারছে এবং তাদের মা-বাবার মুখে হাসি ফুটেছে। তিনি বলেন, একজন শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশু যখন কানে শুনতে পায় ও কথা বলতে পারে; তখন এর অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। ভিসি বলেন, আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে এ ধরনের কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট বরাদ্দ হলো প্রতিবন্ধীবান্ধব সরকার ও বিএসএমএমইউ’র পক্ষ থেকে শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য ঈদের অমূল্য উপহার। সরকার, সামাজিক শক্তি, চিকিৎসক ও সাংবাদিকরা একত্রে কাজ করলে শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুরাও সমাজের মূল স্রোতধারার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাবে। শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য অচিরেই এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও বৃহৎ পরিসরে স্পিচ ও হেয়ারিং সেন্টার চালু করা হবে।

অনুষ্ঠানে কর্মসূচি পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোঃ আবুল হাসনাত জোয়ারদার জানান, বধিরতা বাংলাদেশে একটি বড় ধরনের জনস্বাস্থ্য সমস্যা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে বাংলাদেশে বধিরতার হার ৯ দশমিক ৬ শতাংশ। দেশে প্রায় ১৬ লাখ মানুষ মারাত্মক বধিরতায় ভুগছেন; যারা সবাই কক্লিয়ার ইমপ্লান্টের সম্ভাব্য প্রার্থী। বিশ্বজুড়ে প্রতি ১ হাজার শিশুর মধ্যে দুইটি শিশু বধিরতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। সে হিসেবে বাংলাদেশে প্রতি বছর ২ হাজার ৬০০ শিশু বধিরতা নিয়ে জন্মায় এবং প্রায় সমসংখ্যক জনগোষ্ঠী শ্রবণশক্তি নিয়ে জন্মালেও তাদের জীবদ্দশায় কোনো না কোনো সময়ে বধিরে পরিণত হয়। শৈশব ও বাল্যকালে শ্রবণ প্রতিবন্ধকতা শিশুর মৌখিক ভাষার বিকাশ এবং মানসিক বিকাশকে সরাসরি বাধাগ্রস্ত করে। শ্রবণপ্রতিবন্ধী শিশু বা ব্যক্তি পরিবার ও সমাজের বোঝা হয়ে থাকে। তাই একজন শ্রবণপ্রতিবন্ধীর দ্রুত শ্রবণ পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। মারাত্মক বধিরতা অথবা সম্পূর্ণ বধিরতা যেখানে হিয়ারিং এইড ব্যবহার করেও কানে শোনা সম্ভব হয় না, সেক্ষেত্রে এখন অন্তঃকর্ণেও কক্লিয়ার স্থাপনযোগ্য জৈব ইলেকট্রনিক যন্ত্র কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট অত্যন্ত উপযোগী ব্যবস্থা হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বিএসএমএমইউতে এ পর্যন্ত প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৫২ জনের কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারি সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে ১৪০ জনই শিশু। ফলে ১৪০ মা-বাবা শুনতে পাচ্ছেন প্রিয় সন্তানের মুখে মা-বাবা ডাক এবং অন্য ১২ শ্রবণপ্রতিবন্ধীও শুনতে ও কথা বলতে পারছেন। ১৫২ জনের মধ্যে বিনামূল্যে এ সেবা পেয়েছেন ১২৮ জন এবং ২৪ জনকে নিজ অর্থে ক্রয় করা কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইস লাগানো হয়েছে। কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট একটি ব্যয়বহুল চিকিৎসা। বিদেশে এ ধরনের কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারিতে ৫০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা ব্যয় হয়। বার্ষিক কর্মসূচির আওতায় আরও ৭২ জনকে বিনামূল্যে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট বরাদ্দ দেয়া হলো। ৫ বছরের আগেই যদি শিশুদের বধিরতা ও কক্লিয়ার ইমপ্লান্টের উপযোগিতা চিহ্নিত করা যায়, তবে ইমপ্লান্ট-পরবর্তী ওইসব শিশুকে কথা শেখানো সহজ হয়।

পূর্বাশানিউজ/১৯,জুন ২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি