রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » নারী ও শিশু » ধানমন্ডিতে গৃহকর্ত্রীর হাতে ১৩ বছরের গৃহকর্মীকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ


ধানমন্ডিতে গৃহকর্ত্রীর হাতে ১৩ বছরের গৃহকর্মীকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২০.০৭.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

ঢাকার ধানমন্ডিতে গৃহকর্মী মেরুনা (১৩) কে শারিরীক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে গৃহকত্রী শবনমের বিরুদ্ধে।  বুধবার বিকালে ঢাকার রায়ের বাজার থেকে মেরুনাকে উদ্ধার ও রায়ের বাজার স্থানীয় বাসিন্দাদের কবল থেকে শবনমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে ধানমন্ডি থানা পুলিশ।

ধানমন্ডির ৫ সড়কের ৫৫ নম্বর বাসার বিল্লাল-শবনম দম্পত্তির ফ্ল্যাটে প্রায় এক বছর ধরে কাজ করত ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের মেয়ে মেরুনা।

এখানে মেরুনাকে কাজ ঠিক করে দেন তারই সাক্ষাত চাচাত বোন রায়ের বাজারের বাসিন্দা রুমেলা বেগম। রুমেলাও বিভিন্ন বাসায় কাজ করেন।

বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় ধানমন্ডি থানায় বসে রুমেলা আমাদের সময় ডটকমকে জানান, তিনি মাঝেমধ্যে মেরুনাকে দেখতে যেতেন। কিন্তু কখনও বুঝতে পারেননি মেরুনাকে শারিরীক নির্যাতন করা হয়েছে। অতিসম্প্রতি বিল্লাল-শবনম দম্পতির ফ্ল্যাটেরই একজন ছুটা বুয়া, যিনি রুমেলার বাসার কাছেই ভাড়া থাকেন, তিনি রুমেলাকে জানান, মেরুনার গলায় নাকি জখমের চিহ্ন। এ কথা শুনে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মেরুনার সঙ্গে তিনি কথা বলেন। কিন্তু মেরুনার কাছ থেকে তিনি কিছু জানতে পারেননি।

রুমেলা জানান, তার বাসায় থাকেন তারই একজন বয়স্ক ফুফু। তিনি গুরুতর অসুস্থ। মেরুনাকে ফুফু দেখতে চান- দুইদিন পূর্বে এমন কথা রুমেলা জানান শবনমকে। কিন্তু মেরুনাকে একা ছাড়তে রাজি হননি শবনম। বুধবার বিকালে অসুস্থ ফুফুকে দেখতে মেরুনাকে রিকশায় করে নিয়ে রায়ের বাজারের উদ্দেশে বের হন শবনম। রিকশায় ছিলেন রুমেলাও। রুমেলার বাসায় প্রবেশের পর এক কোণে ফুপিয়ে কান্না শুরু করে মেরুনা। এটা লক্ষ্য করেন মেরুনা। কারণ জানতে চাইলে মেরুনা ক্ষতবিক্ষত পিঠ ও বাম উরু দেখায় রুমেলাকে এবং শবনমের বাসায় আর না যাওয়ার আবদার জানায়।

এসময় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় শবনমকে আটকে রুমেলা ঘটনা জানতে চান। শবনম বলে দেন, তিনি এসবের কিছুই জানেন না। পরে এলাকাবাসী শবনমকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

মেরুনার উদ্ধৃতি দিয়ে রুমেলা বলেন, পিঠের মইদ্যে খালি কেচির (কাঁচি) খোচা। বাম উরুতে ব্লেডের পোজ। মাথার এক সাইড ফোলা। বেলন দিয়া বলে বারি মারতো। সারাদিন বলে কাম করাইতো। শুইতেও দিত না, খাইতেও দিত না। কয়েকদিন আগে ডাক্তারের কাছে নিছিল। কইছে- ডাক্তার যদি জানতে চায় কপাল ফুলছে কেম্নে, তাইলে কইতে রাস্তায় এক্সিডেন্ট হইছিল। আর যদি আসল কথা কয়, তাইলে বলে মাইরা লাইব, যা মারছে তা বলে স্যাম্পল। পুলিশরে টেকা দিলেই বলে মার্ডার মামলা শেষ হইয়া যায় গা।

থানায় মেরুনার বাবা হাশেমকে পাওয়া যায়। খবর পেয়ে তিনি গ্রাম থেকে বুধবার রাতেই ছুটে আসেন। তিনি এ ঘটনার বিচার দাবি করে বলেন, এক বছর ধইরা মাইয়া মুখ দেখি না। মোবাইল কইরা দেখতে চাইলে কইতো- দেইখা কি করবেন- টেকা পয়সা তো বিকাশ কইরা ঠিকই পাঠাইতাসি।

বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে জানতে চাইলে ধানমন্ডি থানার ওসি (অপারেশন) সেলিম হোসেন আমাদের সময় ডটকমকে বলেন, মামলা করা হচ্ছে মেয়ের বাবাকে বাদি করে। আসামি করা হবে শবনমকে। বর্তমানে সে আমাদের কাছে আটক। তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে।

মেয়েটির গায়ে নির্যাতনের প্রচুর আলামত আছে বলে স্বীকার করেছেন তিনি।

হাশেম-মদিনা দম্পত্তির ৫ মেয়ে, ৩ ছেলের মধ্যে মেরুনা পঞ্চম। দারিদ্রতার কারণে মেয়েকে ঢাকায় কাজ করতে পাঠান তারা।

শবনম গৃহিণী। তার স্বামী বিল্লাল একটি বেসরকারি কোম্পানি কর্মরত। শবনম পুলিশকে জানিয়েছেন, বিল্লাল অফিসিয়াল কাজে সিলেটে গেছেন।

ঘটনা সুরাহা করতে থানায় এসেছেন শবনমের মা। ওসি (অপারেশন) জানান, পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, এখানে কোনো ছাড় নেই।

২০/০৭/২০১৭/ Choity.



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি