শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু মাহমুদা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২২.০৭.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:
৮ বছরের শিশু মাহমুদা। যে বয়সে হেসে খেলে বেড়ানোর কথা, সে বয়সে যন্ত্রনা নিয়ে অস্থির সে। সারা শরীরে দগদগে ঘা। সেই ঘায়ে হাত ও পায়ের ২০টি আঙ্গুলই গলে পড়ে গেছে তার। হাত দিয়ে যেমন কিছু ধরতে পারে না, তেমনি পায়ে ভর দিয়ে ঠিকভাবে হাটতে পারে না সে। বিরল এই রোগে আক্রান্ত মেয়ের চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করতে পারছে না দরিদ্র ভ্যানচালক বাবা। তাই বাড়িতেই রেখেছেন মেয়েকে। সহযোগিতা চেয়েছেন সরকার ও বিত্তবান মানুষের। দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের কামদেবপুর গ্রামের দরিদ্র ভ্যানচালক আব্দুর রহিমের মেয়ে মাহমুদা। আব্দুর রহিমের ২টি মেয়ে সন্তান মাহাফুজা ও মাহামুদা। বড় মেয়ে মাহাফুজা বনগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। ৮ বছর আগে জন্মের পর থেকেই মাহমুদার শরীরে দেখা দেয় ফসকা পড়া রোগ। পরে তা ঘা’য় পরিণত হয়। এখন তার সারা শরীরে দগদগে ঘা। দিনের পর দিন ঘা’র ফলে মাহমুদার হাত ও পায়ের আঙ্গুল গলে পড়ে গেছে। এখন হাতের মধ্যে শুধু তালু। তাই হাত দিয়ে সে কিছুই ধরতে পারে না, আবার পায়ে ভর দিয়ে চলতে পারেনা ঠিকভাবে । হেসে খেলে বেড়ানোর এই বয়সে সে সবসময় ব্যস্ত থাকে চুলকানো ঘায়ের যন্ত্রনায়। ঘা ও পুষ্টিহীনতার ফলে ঠিকভাবে বেড়েও উঠেনি সে। শিশুটির বাবা মা সাহিদা খাতুন জানায়, জন্মের পর থেকেই তাদের মেয়ের এই ধরনের সমস্যা। অনেক চিকিৎসা করালেও কোন লাভ হয়নি। চিকিৎসকরা রোগ নির্ণয় করতে পারেনি। এখন সহায়-সম্বল শেষ করে অর্থে অভাবে চিকিৎসা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। বাবা আব্দুর রহিম জানান, দিনাজপুরে অনেক চিকিৎসা করালেও কোন লাভ হয়নি। চিকিৎসকরা রোগ নির্ণয় করতে পারেনি। এখন সহায়-সম্বল শেষ করে অর্থের অভাবে চিকিৎসা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। ওই এলাকার ব্র্যাকের স্বাস্থ্যকর্মী মর্জিনা বেগম জানান, জন্মের পর থেকেই চলছে শিশুটির চিকিৎসা, কিন্তু কোন উন্নতি হয়নি। সরকারের সহযোগিতায় শিশুটির সু-চিকিৎসা হলে তার সুস্থ্য হয়ে উঠা সম্ভবনা রয়েছে। বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ফজলুর রহমান জানান, বাবা-মা একই পরিবারের হওয়ায় জেনেটিক সমস্যার কারনে মাহামুদা এই বিরল “এপিডার্মোলাইসিস বুলোসা (ঊঢ়রফবৎসড়ষুংরং ইঁষষড়ংধ)” রোগে আক্রান্ত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছে। রোগে আক্রান্ত মাহামুদার হাত ও পায়ের আঙ্গুল ঘায়ের কারনে নতুন করে চামড়ার আবরন তৈরী হয়েছে। ফলে হাত দিয়ে যেমন কিছু ধরতে পারে না, তেমনি পায়ে ভর দিয়ে হাঁটতে পারে না সে। বাবা-মা একই পরিবারের অর্থাৎ মামাতো-ফুপাতো ভাই-বোন হওয়ায় জেনেটিক সমস্যার কারনে মাহামুদা এই বিরল “এপিডার্মোলাইসিস বেলোসা  (Epidermolysis Bullosa)” রোগে হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছে । এদিকে বিরল রোগে আক্রান্ত নিষ্পাপ শিশু মাহামুদা’র সরকারি ভাবে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হলে সে সুস্থ্য হয়ে অন্যান্য শিশুদের মত স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে এমন প্রত্যাশা এলাকাবাসী ও স্বজনদের মাহমুদার জীবন বাঁচাতে সমাজের সকল পর্যায়ের মানুষ ও সরকারের  প্রতি সাহায্য চেয়ে আবেদন জানিয়েছেন তার বাবা-মা ও স্বজনরা। তাকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা-ডাচ্ বাংলা ব্যাংক, দিনাজপুর শাখার সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর- ১৭২.১৫১.১৫২৩৯৬ এবং ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং- ০১৭৫১-৩০০১৭৮৩ নম্বরে সাহায্যের জন্য সকলের প্রতি আবেদন করেছেন। আব্দুর রহিমের সাথে যোগাযোগের মোবাইল নম্বর-০১৭৫১৩০০১৭৮।

২২ জুলাই ২০১৭/ Choity.



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি