রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


অকৃতকার্যরাও আমাদের সন্তান


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০৭.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হলে শারমিন আক্তার অকৃতকার্য হয়। এ খবর জানার পর শারমিন নিজ ঘরেই ছিল। সন্ধ্যায় পরিবারের সদস্যদের অনুপস্থিতে বিষপান করে। এরপর তাকে উদ্ধার করে হারদী হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এমন একটি নয়, একাধিক মৃত্যুর ঘটনা আমাদের কানে আসবে। ঘটনার সম্মুখীন হতে হয় প্রতিবার এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পরপর। এবারও তার ব্যতিক্রম বা ব্যত্যয় ঘটেনি।

মুল ঘটনার আগে গল্পে আসি। কোন এক সময় এক ব্যক্তির আশ্রয় হলো পশু চামড়া ব্যবসায়ীর ট্যানারির পাশে। দুর্গন্ধে টেকা দায়। বেচারা প্রতিদিন অভিযোগ করতে থাকে। কিন্তু ট্যানারি মালিকের জবাব ছিল ওই একটাই, ‘আর দুইটা দিন সময় দিন। ঠিক করে ফেলব।’ এভাবে মাসের পর মাস চলে যেতে লাগলো। এক সময় অভিযোগ আসা বন্ধ হয়ে গেল। জনৈক ব্যক্তির চামড়ার দুর্গন্ধে অভ্যাস হয়ে গেছে ততদিনে।
জাফর ইকবাল স্যার তার একটি লেখায় প্রশ্ন ফাঁসে বিচলিত হয়ে আবেগী এক শিরোনাম দিয়েছেন, ‘দোহাই, আমাদের শিশুদের ক্রিমিনাল বানাবেন না।’

স্যারদের মতো দুই-একজন আকুতি জানিয়ে যাবে। তবে আমাদের একসময় এসব সয়ে যাবে। ওই ট্যানারির পাশে বসবাসরত মানুষটির মতো। এক সময় আমরা অভিযোগ করতেও ভুলে যাবো। নির্বিকার হয়ে যাবো। এই চিন্তাটা স্রেফ আতঙ্কিত করে!

এসএসসি, এইচএসসির পরে এবার জুনিয়র বোর্ড পরীক্ষাগুলোতেও প্রশ্ন ফাঁসের নেক্কারজনক ঘটনা ঘটলো। এর প্রভাব শুধু দুই একজন শিশুর উপরে পড়বে ভাবলে তা হবে মস্ত ভুল। একটি মেধা শুন্য জাতির দিকে এগিয়ে চলেছি আমরা! অভিভাবকদের বিবেক বর্জিত প্রত্যাশার চাপ সবাইকে এই পথে ঠেলে দিচ্ছে। সায় দিচ্ছে অনেক অভিভাবক, অনেকে আবার নিজ উদ্যোগে ছেলে মেয়েদের হাতে তুলে দিচ্ছে আত্মহননের হাতিয়ার! বিষাক্ত কাগজগুলো। ছোট ছোট শিশুরা শিখছে অন্যায় করার উপায়। এরা বড় হয়ে প্রশ্ন ফাঁসের আশায় থাকবে না তো কী করবে? এরা দুর্নীতি করবে না তো কারা করবে? এরা অপরাধী হবে না তো কারা হবে?
অনেকাংশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে ইচ্ছুরা এর শিকার হয়। কেউ কেউ শতভাগ নম্বর পেয়ে চান্স পায়। আর অনেক মেধাবী হাহাকার করে জীবন কাটায়।

এই আঘাতটা অনেক বড় আঘাত। এই আঘাতটা আমাদের শিক্ষায়! জাতির মেরুদণ্ডে। আর একটি জাতিকে ধ্বংস করতে তার শিক্ষা-দীক্ষায় নষ্টামির বীজ বপণ করে দেয়াই যথেষ্ট। এই ঘৃণ্য চক্রান্তে সবাই উল্লাসে মেতেছি। পরিণাম যে কতোটা ভয়াবহ হতে পারে তা চিন্তা করছেনা কেউ।

পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা কলাপ্স হতে যাচ্ছে এসবের পরিণামে। ধ্বংস হতে চলেছে এগিয়ে যাবার। পরিশ্রম করে মেধাকে শানিত করার স্পৃহা।

গত শাসন আমল ও এবারের সময়টুকু মিলিয়ে বাংলাদেশ সরকারের সবচে বড় ব্যর্থতা আমার দৃষ্টিতে এটিই। শিক্ষামন্ত্রীর আচরণও ছিল যথেষ্ট শিশুসুলভ। প্রথমে তো তিনি প্রশ্ন ফাঁসের বিষয়টিই অস্বীকার করলেন। এখনও মেনে নিতে চাইছেন না নিজেদের ব্যর্থতা। পদ্ধতির ব্যর্থতা! যদি সমস্যাকেই স্বীকার করা না হয়, তবে সমাধান আসবে কী করে? শিক্ষামন্ত্রীর উচিত এ বিষয়টির দ্রুত সুরাহা করা। আর যদি তার সামর্থ্যে না কুলায় তবে যোগ্য লোকের হাতে দায়িত্ব অর্পণ করে পদত্যাগ করা।

আর ব্যবস্থা গ্রহণ মানে ছাত্রছাত্রীদের প্রতি বিরূপ আচরণ নয় মোটেই। যেটা এখন পর্যন্ত তিনি বক্তব্যে বা কার্যকলাপে প্রকাশের চেষ্টা করেছেন। সমস্যা পদ্ধতিতে। সমস্যা প্রশ্ন তৈরির ব্যবস্থায়। সমস্যা প্রশ্নের নিরাপত্তায়। এগুলোর সমাধান করতেই হবে। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর কাছে অনুরোধ একটু নড়েচড়ে খোঁজখবর নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এইচএসসি পরীক্ষার ফল আশাব্যঞ্জক হলেও এ বছর অন্য যে কোনো বারের চেয়েও বেশি পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে। অবশ্য এ বছর পাসের হার আগের বছরের তুলনায় কমে যাওয়ায় অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা এখন অনেক বেড়ে গেছে। এ বছর অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা অন্যবারের চেয়েও বেশি। কিন্তু এরপরও প্রশ্ন থেকে যায়, এত বেশি পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হওয়ার কারণ কী? তাদের ভবিষ্যতই বা কী? অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের জন্য এখন আমাদের কী করা দরকার?

আমাদের দেশে প্রতিবছর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় অনেকে অকৃতকার্য হচ্ছে। বিগত বছরগুলোয় এসএসসি পরীক্ষায় দুই লাখেরও বেশি পরীক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছিল। আমাদের পর্যবেক্ষণ বলছে, পরীক্ষায় যারা ভালো ফল করে কেবল তাদের নিয়েই গণমাধ্যমসহ প্রায় সব মহলে ব্যাপক প্রশংসা করতে দেখা যায়। সাফল্যের আনন্দে উচ্ছ্বসিত পরীক্ষার্থীদের হাস্যোজ্জ্বল ছবি প্রকাশিত হয় মিডিয়ায়। পরীক্ষায় ভালো করা সেরা স্কুল-কলেজের প্রধানদের প্রতিক্রিয়া ও অভিমতও প্রকাশিত হয় একই সঙ্গে। কেন এবং কিভাবে ভালো ফল হলো তার যত কলাকৌশল রয়েছে সেগুলো উঠে আসে এসব আলোচনায়। আলোচনা হয় ভালো ফল করার পেছনে বিভিন্নমুখী প্রচেষ্টা এবং শিক্ষার মান নিয়ে। অথচ ফেল করা পরীক্ষার্থীদের নিয়ে তেমন কোনো আলোচনাই হয় না। বলতে গেলে অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীরা একরকম আড়ালে থেকে যায়। এটাই শিক্ষা নিয়ে আমাদের চিন্তা-চেতনার এক দুর্বল দিক বলে মনে করি।

সন্দেহ নেই, যারা পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয় তারা অনেকটাই মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে। পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার কারণে তাদের পরিবারের কাছ থেকে এমনকি স্কুলের কাছ থেকেও তারা সচরাচর কোনো ইতিবাচক আচরণ পায় না। শুধু তাই নয়, ফেল করা পরীক্ষার্থীদের সবাই অন্য চোখে দেখে। তাদের খবর কেউ রাখে না। ফলে তারা নিজেদের অবাঞ্ছিত মনে করে। কেন তারা ফেল করল? কী করলে তারা আগামীতে পরীক্ষায় ভালো করতে পারবে, এমন উদ্যোগ ও পরিকল্পনা নিয়েও কেউ তাদের কাছে এগিয়ে যায় না বললেই চলে। অথচ আমাদের অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে ভেবে দেখা দরকার। যারা পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয় তারা যদি ভবিষ্যতে পুনরায় পরীক্ষা দিয়ে ভালো করার কোনো উত্সাহ না পায়, তাদের সামনে যদি কোনো সঠিক পথ তুলে ধরা না হয় তাহলে একসময় তারা হারিয়ে যাবে পড়ালেখার জগত্ থেকে। অনেকেই পড়ালেখার মূল ধারা থেকে ছিটকে পড়ে বিপথগামী হয়। কেউ কেউ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে নিজেকে জড়িয়ে ফেলে। অনেকটা না জেনে-বুঝেই। এভাবে তারা পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য বিরাট বোঝা হিসেবে আবির্ভূত হয়। এসব ঘটে তারা বয়ঃসন্ধিকালের শিক্ষার্থী হওয়ার ফলে। কারণ এ সময় তারা অনেকটা আবেগতাড়িত হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। কাজেই যারা পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছে তাদের জন্য সরকারিভাবে বিভিন্ন প্রণোদনামূলক কর্মসূচি গ্রহণ করা প্রয়োজন। তারা যাতে পুনরায় পরীক্ষায় অংশগ্রহণে আগ্রহী হয় সেজন্য নিতে হবে কার্যকর পদক্ষেপ। পরিবার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে তাদের প্রতি করতে হবে ইতিবাচক আচরণ। তাদের উত্সাহ দিতে হবে আগামী প্রজন্মের স্বার্থেই। দরকার হলে পরবর্তী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ব্যয় কমানোর পদক্ষেপসহ আর্থিকভাবে সহায়তা করার পরিকল্পনাও নিতে হবে। আর যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফল ভালো হয়নি সে সব প্রতিষ্ঠানকে আরো ভালো করার উদ্যোগ নিতে হবে দ্রুত।

অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের বলতে চাই মনোবল ভাঙা যাবে না। একবার না পারিলে দেখো শতবার। সুদিন ও সফলতা তোমাদের কাছে আসবেই।

২৫ জুলাই ২০১৭,/ Choity.



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি