শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বংশগত রোগে ৪ ছেলেই প্রতিবন্ধী, মায়ের ভিক্ষা ছাড়া আর কী করার আছে?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৫.০৭.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

দুরারোগ্য বিরল বংশগত রোগে আক্রান্ত হয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধী এখন চার ভাই। মেডিকেলের পরিভাষায় ‘করিয়া’ নামের এ রোগে মারা গেছেন তাদের বাবা-দাদা। এখন মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে তারাও। পরিবারে নেই কর্মক্ষম কেউ। অর্থের অভাবে চলছে না তাদের চিকিৎসাও। বৃদ্ধা মা জবেদা বেগম ভিক্ষা ও দানের অর্থ দিয়ে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন ছেলেদের। বংশগত জিনের মাধ্যমে ছড়ানো এ রোগ হয় ১৫-২০ বছর বয়সে। আস্তে আস্তে আক্রান্তরা হয়ে পড়েন শারীরিক প্রতিবন্ধী। আর ৪০-৫০ বছর বয়সেই এর একমাত্র পরিণতি মৃত্যু।

বৃদ্ধা মা জবেদা বেগম জানায়, এক সময় ঢাকায় প্রাইভেটকার চালিয়ে আয়-রোজগার করতেন বরগুনা সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের ছোট লবনগোলা গ্রামের সরকারি আবাসনের বাসিন্দা আব্দুল খালেক ফকিরের ছেলে মো: মিজানুর ফকির। কিন্তু বংশগত জিনে ছড়ানো দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে সম্পূর্ণ প্রতিবন্ধী মিজানুর ও তার তিন ভাই। দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই তাদের শরীর নড়াচড়া করে। কাজকর্ম করতে পারেন না, বন্ধ হয়ে গেছে তাদের স্বাভাবিক চলাফেরাও।

একই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তাদের বাবা-দাদা। এভাবে চোখের সামনে চারটি ছেলের প্রতিবন্ধী হয়ে পড়াকে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না বৃদ্ধা মা জবেদা বেগম। একদিকে অর্থের অভাবে চলছে না সংসার, অন্যদিকে চিকিৎসা। কোনোটিরই সক্ষমতা নেই বৃদ্ধা মায়ের। তাই সকলের সহযোগিতায় ছেলেদের বাঁচিয়ে রাখার আকুতি তার। বিত্তবান ও সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে উদ্যোগ নিয়ে চার ভাইয়ের চিকিৎসাসহ পুনর্বাসনের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রাও।

মিজানুরের প্রতিবেশী সাবেক ইউপি সদস্য গনি মিয়া, কিরণ হাওলাদার ও রফিক দফাদার জানান, ঢাকা, বরিশাল থেকে শুরু করে দেশের বিভিন্ন এলাকার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়েও কোনো সুরাহা পাননি এ রোগীরা। সরকারি সহায়তা ছাড়া তাদের বেঁচে থাকার আর কোনো পথ নেই।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো: সোহরাব উদ্দীন বলেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে রোগটি সঠিকভাবে নির্ণয় ও উন্নত চিকিৎসা দিতে পারলে তাদেরকে ভালোভাবে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব। তবে বরগুনা ও বরিশালে এ রোগের পরীক্ষা করা সম্ভব নয়।

বৃদ্ধা মায়ের আকুল আবেদন দেশের বিত্তবান ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের কাছে একটু সহযোগিতা পাওয়ার। তাদেরকে সহযোগিতা করতে পারেন জেলা সাংবাদিক ফোরাম বরগুনার মাধ্যমে। পার্সোনাল বিকাশ নম্বর-০১৯১৮৫৪৩৩৭৬।

পূর্বাশানিউজ/২৫ জুলাই ২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি