রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


বৃদ্ধা মায়ের কাঁধে বয়সী প্রতিবন্ধী কন্যা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০২.০৮.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:

মায়েরই বয়স (৭০) অথচ কাঁধে তার ৪০ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী মেয়ে বিলকিছ। বয়সের ভারে নুয়ে পড়া এই বৃদ্ধা বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার ইউপির নাট মরিচাই গ্রামের মৃত ছাবেদ প্রামানিকের বৃদ্ধা স্ত্রী বুলিমোন বেগম। স্বামী কৃষক ছাবেদ প্রামানিক প্রায় ৫/৬ বছর আগে মারা যাওয়ার পরে বৃদ্ধা বুলিমোন বেগমের ঠাই হয়নি শশুর বাড়িতে। ফলে চলে আসতে হয় তারই দরিদ্র ও অসহায় ভাই আব্দুল বাছেদের বাড়িতে।
ভাইয়ের বাড়িতে ঠাঁই মিললেও ৪০ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী মেয়ে ও ১০ বছর বয়সী ছেলেকে নিয়ে অন্যের বাড়িতে কাজ করে কোনো রকমে চলছে তাদের দিন-রাত। জন্ম লগ্ন থেকেই দুই পা অচল প্রতিবন্ধী মেয়ে বিলকিছের বিয়ে হলেও বেশিদিন থাকতে পারেনি স্বামীর ঘরে। ফলে তার দায়ভারও চলে আসে বৃদ্ধা বুলিমনের উপর। অভাবের তাড়নায় বাধ্য হয়ে প্রতিবন্ধী মেয়ে বিলকিছ কে কাঁধে তুলে নিয়ে কাজের ফাঁকে ফাঁকে ভিক্ষা করতে হয়। প্রায়ই তাকে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলা পোস্ট অফিসের সামনে দেখা যায়। বয়সী মেয়েকে কাঁধে তুলে অনেক কষ্টে বিভিন্ন দোকানে দোকানে গিয়ে সাহায্য-সহযোগিতার জন্য হাত পাতেন। দয়া হলে কেউ কিছু দেয় না হলে দেয় না। তবে এই সামান্য দানে ঘুরতে চায়না জীবনের চাকা।
সরকারি কোন সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছে কি না এই প্রশ্নে বুলিমোন বেগম অশ্রæশিক্ত নয়নে বলেন, ‘বৃদ্ধা ভাতা হিসেবে সরকার অল্প কিছু দিলেও এই ট্যাকা দিয়ে সংসার চালান যায় না, হামি এখন নিজেই চলবের পারিনে, তার উপর আবার প্রতিবন্ধীব বেটির বোঝা কেমনে সমো, কনতো ভাই? তাই বাধ্য হয়ে ভিক্ষে করি, তাও আবার মানুষের অনেক কথা সহ্য করে’। কান্না জড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলতে বলতে কিছুটা ভেঙেই পড়ছিলেন বুলিমোন বেওয়া। তার আকুল আবেদন, সরকার বা যে কেউ হোক তার পরিবারের সুরক্ষায় কেউ একজন বা কোন প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসুক। কিছুটা হালকা হোক তার কাঁধের বোঝা।

পূর্বাশানিউজ/0২ আগষ্ট ২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি