রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


সহযোগিতা পেলে সুস্থ হয়ে যাবে আমার ছেলে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৩.০৯.২০১৭


পূর্বাশা ডেস্ক:

পা ভেঙে বিছানায় পড়ে আছেন প্রতিবন্ধী বদরুল আলম বাদল। বৃষ্টির মধ্যে উঠোনে পড়ে গিয়ে হাঁটুর জোড়া খুলে গেছে তার। দুস্থ পরিবারের সন্তান হিসেবে চিকিৎসার কোনো সামর্থ্য নেই।

পায়ের অবস্থা ক্রমেই খারাপের দিকে যাচ্ছে তার। তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। পায়ে মেজর অপারেশন করতে হবে। এ জন্য তার প্রায় ২ লাখ টাকার প্রয়োজন। কিন্তু দুস্থ আজিজের পক্ষে এই টাকার সংস্থান করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার রাহুলিয়া গ্রামের বৃদ্ধ আব্দুল আজিজ সরকারের ছেলে বাদল। জন্মগতভাবে শারীরিক প্রতিবন্ধী তিনি।

এখন তার বয়স ৩৫। বাবা একজন দিনমজুর। জায়াগা-জমি বলতে কিছুই নেই। মাত্র ২ শতক ভিটায় কোনো মতে ৪ সদস্যের পরিবার নিয়ে মাথা গুঁজে থাকেন। আজিজের আরও একটি ছেলে আছেন।

তবে তিনি প্রতিবন্ধী নয়। কাজ পেলে দুই বেলা ভাত জোটে তাদের। না পেলে উপোস থাকতে হয়। মাস তিনেক আগে প্রতিবন্ধী বদরুল আলম বাড়ির উঠোনে বৃষ্টির মধ্যে পড়ে গিয়ে তার হাঁটুর জোড়া খুলে যায়।

শারীরিক প্রতিবন্ধী হিসেবে এমনিতেই খুঁড়িয়ে হাঁটতেন তিনি। তার উপর এই দুর্ঘটনা তাকে পঙ্গু করে দিয়েছে। স্থানীয় ডাক্তার দিয়ে কোনোভাবে পা প্লাস্টার করলেও তাতে কোনো সুফল হয়নি।

ছেলের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে ছেলের করুন অবস্থার বর্ণনা দিয়ে কেঁদে ফেলেন বাদলের বাবা আব্দুল আজিজ।

চোখের পানি মুছে আবেগাপ্লুত কণ্ঠে আব্দুল আজিজ বলেন, ছেলেটি প্রতিবন্ধী হলেও আমারই তো সন্তান। আমি তাকে বাঁচাতে চাই। কিন্তু ছেলের চিকিৎসা করানোর মতো কোনো সামর্থ্য আমার নেই। দুই বেলা খাবার জোগাড় করতে যেখানে হিমশিম খাচ্ছি সেখানে কিভাবে ছেলের চিকিৎসা করাবো।

যদি দেশের সহৃদয় ব্যক্তিরা বাদলের চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা করেন হয়তো আমার ছেলেটি সুস্থ হয়ে যাবে। আমি সবার সহযোগিতা চাই। দয়া করে আমার এই প্রতিবন্ধী ছেলের চিকিৎসায় এগিয়ে আসুন।

আজিজের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের মোবাইল নম্বর-০১৭৫৯২০১০৫০। এই ফোনে কল দিয়ে তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে সহযোগিতা পাঠানো যাবে।

সূত্রে: জাগোনিউজ

পূর্বাশানিউজ/১৩সেপ্টেম্বর ২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি