রবিবার,২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


২২ বছর ধরে মেয়েরা খবর নেয়না বাবার, কিন্তু কেন?


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.১০.২০১৭

পূর্বাশা ডেস্ক:
বাবার, মেয়ের সম্পর্কটাই অন্যরকম। কথিত আছে প্রায় প্রতিটি পরিবারের ক্ষেত্রে দেখতে পাওয়া যায়, বাবার প্রতি টান থাকে মেয়ের। আর মায়ের প্রতি টান থাকে ছেলেদের। কিন্তু আজকে একজন বাবার গল্প বলছি, যে গল্পটি জেনে হয়তো আপনার চোখে থাকা পানি টলমল করে উঠতে পারে। অথবা ঝরেও পড়তে পারে। সত্য এই ঘটনাটি কিছুক্ষণ আগে ফেসবুকে লিখেছেন ফিল্ম মেকার আমজাদ মাহমুদ। তিনি  বলেন, পুরান ঢাকায় একটি কাজে যাই আমি। বৃদ্ধ এই মানুষটিকে দেখে আমার ইচ্ছা হয় কথা বলতে। কথা বলতে গিয়ে যে ঘটনা শুনলাম। তাতে আর চোখের পানি ধরে রাখতে পারি নাই। তাই শেয়ার করেছি ফেসবুকে।

চলুন পাঠক পড়ে নেই,কেন ২২ বছর ধরে তার মেয়েরা খবর নেয় না এই ৮২ বছর বয়সী বাবার। কেনই বা তিনি এই বয়সে টেইলার্সের কাজ করছেন? গল্পটি তার মুখ থেকেই শোনা যাক-

‘আমার নাম অজিত চন্দ্র নাথ। বয়স ৮২ বছর। মামাতো বোনকে বিয়ে করি তখন বয়স ১৬/১৭ হবে। বিয়ের এক বছর পর আমার একটা ছেলে হয়। তার পরের বছর বড় মেয়ের জন্ম। ছেলেটার ২ বছর হওয়ার পর ডায়রিয়া হয়ে মারা যায়। অনেক চেষ্টা করছি, বাঁচাতে পারি নাই। ওর জন্য অনেক কান্না করছি, অনেক কষ্ট আছে ছেলেটার জন্য, ওরে বাঁচাতে পারলাম না। আমি তখন টেইলারির কাজ করি, কোন রকম সংসার চলে। বাবা ছোট একটা চাকরি করত, টানাটানির সংসার ছিল আমাদের ।

বড় মেয়ে হবার পর ভগবানকে বলি একটা ছেলে দিতে, কিন্তু পরের বার ও মেয়ে। ছেলের আশা করতে করতে এমন করে ৫ টা মেয়ে হইছে। ভগবান আমাকে ছেলে দেয় নাই। এই ৫ মেয়েরে নিয়ে অনেক কষ্ট করে সংসার চলত। যখন একাত্তরের যুদ্ধ শুরু হয় তখন সবাইকে নিয়ে ভারত চলে যাই, আমি এই মেয়েদের রেখে যুদ্ধে যাইতে পারি নাই। ওখানে প্রথম প্রথম অনেক কষ্ট হয়, কিছু দিন যাবার পর অনেক ভালোই চলছিল। ২ মেয়েকে ওখানে বিয়ে দিয়ে দেই। যুদ্ধ শেষ হবার পর অনেকেই দেশে চলে আসে। কিন্তু আমাকে মেয়েরা আর মেয়ের জামাইরা আসতে দেয় নাই। পরে মনোনিবেশ করি ওখানে থেকে যাবো। সব মেয়েকে ওখানে বিয়ে দিয়ে দেই। ৮ বছর থাকার পর আর মন টিকে না, আমার জন্মভূমির জন্য মন কাঁদে। পরে সব মেয়েকে রেখে আমার বউকে নিয়ে দেশে চলে আসি। ওরা অনেক চাইছিল আমাকে রেখে দিতে। কিন্তু থাকি নাই, আমি মরলে আমার জন্মভূমি তে মরমু।

এরপর আগে মেয়েরা খোঁজ খবর নিত, আজকে ২০/২২ বছর কেউ আর খোঁজ খবর নেয় না। ৪ বছর আগে আমার বউ মারা গেছে। এখন একা থাকি, কোন রকম কাজ করে চলি। এখন তো বুড়া হয়ে গেছি কেউ কাজ দেয় না, কেউ কাজে নেয়ও না। কারো কাছে হাত পাতি না, মানুষের পুরান কাপড় জোড়া তালি দিয়ে কোন রকম চলি। এখন শুধু একটাই চাওয়া আমাকে যেন ভগবান তাড়াতাড়ি ওপারে নিয়ে যায়। আমি জানি আমাকে ছাড়া আমার বউ ভালো নাই। সে আমাকে অনেক ভালোবাসত, আমাকে ছাড়া কোনদিন সে কোথাও যেত না, তার বাবার বাড়িতে ও থাকত না। তাই তাড়াতাড়ি ওর কাছে চলে যেতে চাই।’

এই বলে বৃদ্ধ বাবাটির চোখে পানি চলে আসে। আর আমজাদ হোসেনও চোখের পানি নিয়ে ঘরে ফিরে আসেন। কিন্তু এখন কথা হচ্ছে যে, মেয়েদের এত কষ্ট করে মানুষ করে যুদ্ধের সময় যুদ্ধে না গিয়ে মেয়েদের বাঁচিয়ে রাখলেন যিনি, সেই বাবার আজ এই করুণ অবস্থা কেন? এখন কি পাঠকের মনে প্রশ্ন আসেনি, আদৌ কি আমরা সন্তান হয়ে জন্ম নিতে পেরেছি? আদৌ কি আমরা মানুষ হতে পেরেছি?। ভাবুন একবার পাঠক!

পূর্বাশানিউজ/০১ অক্টোবর ২০১৭/মাহি



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি