শুক্রবার,৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ


কেউ ভাতা কার্ড দেয় না, তবুও থেমে নেই জীবন।


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৮.০৩.২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট : তবু থেমে নেই জীবন, মানুষের দ্বারে দ্বারে ভিক্ষা করে অন্নের জোগার,২৫ বছর পৃর্বে স্বামীর মৃত্যু, ভিক্ষা করতে গিয়ে ৮ বছর পূর্বে হোঁচট খেয়ে ভেঙে গেছে পা, বয়সের ভারে, রোগে, আস্তে আস্তে,নুয়ে পড়ছে শরীর, বয়স ৭৪ পেরুলেও সরকারী অনুদানের বিধবা, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী ভাতা কিংবা অন্য কোন কিছুই জোটেনি আছিয়ার কপালে।

বয়সের ভারে শরীরে বাসা বেধেছে, নানা ব্যধি লাঠিতে ভর করে বাড়ি বাড়ি ভিক্ষা করে চলে সংসার।বর্তমানে তার বয়স জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী ৭৪ বছর হলেও প্রকৃত বয়স আরো বেশী । ক্ষীন হয়ে আসছে চোখের আলো সহজে চিনতে পারেনা সবাইকে। অন্যের সহযোগিতায় চলাফেরা করেন তিনি।

উপার্জনে অক্ষম বয়স্ক ব্যক্তিদের সামাজিক নিরাপত্তায় সরকার ভাতা দিলেও আছিয়া বেওয়ার ভাগ্যে জোটেনি তেমন সহোযোগিতা। বয়োজ্যেষ্ঠ দুস্থ ও স্বল্প উপার্জনক্ষম অথবা উপার্জনে অক্ষম বয়স্ক জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা বিধানে এবং পরিবার ও সমাজে মর্যাদা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১৯৯৭-৯৮ অর্থ বছরে ‘বয়স্কভাতা’ কর্মসূচি চালু হলেও তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন ৭৪ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী আছিয়া বেওয়া ।

সাদুল্লাপুর উপজেলার খোর্দ্দকোমরপুর ইউনিয়নের খোর্দ্দকোমর পুর পশ্চিম পাড়া গ্রামের মৃত নজব উদ্দীনের স্ত্রী হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী আছিয়া বেওয়া। ৩ ছেলে আর ২ মেয়েকে নিয়ে চলতে থাকে তাঁর সংসার।২৫বছর পূর্বে স্বামীর পরে মারা গেছে তার বড় দুই ছেলেও। আট বছর পূর্বে সড়ক দুর্ঘটনায় পা ভেঙ্গে যায় তার। সম্বল বলতে মাথা গোঁজার ঠাঁই টুকু।অর্থের অভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় নানা অসুখ বাধাঁ বেধেছে শরীরে।

বর্তমানে তিনি অনেকটাই নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে হত দরিদ্র ছেলের সংসারে। সন্তানের সংসার সচ্ছল না থাকায় প্রতিনিয়ত বিবেকের তাড়নায় একমুঠো ভাতের জন্য ঘুরতে হয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে।

স্থানীয়রা জানান, চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের টাকা দিলেই বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড পাওয়া যায়।সেই টাকা হতদরিদ্র আছিয়ার নাই।আর একারণেই হয়তো তার ভাগ্যে জোটেনি ভাতা কার্ড।

কোনটে পাকু ভাতা কার্ডের টাকা। অনেক কে বলছিনু, বলছিল করে দেবে, কৈ এখনো তো পাওনি। প্রতিবেদককে সামনে পেয়ে তার মনের ভিতর জমা আক্ষেপের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। কারো প্রতি কোন অভিযোগ না থাকলেও সবটাই ,ছেড়ে দিলেন সৃষ্টিকর্তার উপর, এসবই তার নিয়তি বলেই মেনে নিয়েছে আছিয়া বেওয়া।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী জানান, বৃদ্ধা আছিয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। সাদুল্লাপুর উপজেলা

সমাজসেবা কর্মকর্তা মানিক চন্দ্র রায় জানান, সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান, মেম্বাররা কার্ড বাছাই করে থাকেন। তারা কেন এত বয়স্ক একটি মানুষকে ভাতা কার্ড দেয়নি তা খতিয়ে দেখা হবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি