শনিবার,২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


জীবাশ্ম জ্বালানি সৃষ্ট বায়ুদূষণজনিত মৃত্যুতে ২য় অবস্থানে বাংলাদেশ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১০.০২.২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

বাংলাদেশে বায়ুদূষণের কারণে এক-তৃতীয়াংশ অকালমৃত্যুর জন্য দায়ী জীবাশ্ম জ্বালানি। বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় এই সংখ্যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক এক গবেষণা প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া যায়।

নতুন এই গবেষণায় ২০১২ সালের বায়ুদূষণ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত ব্যবহৃত হয়েছে। সেবছর বায়ুদূষণে বাংলাদেশে ৬ লাখ ৯২ হাজার ৮১ জন মৃত্যুবরণ করে। তাদের মধ্যে ২ লাখ ৫২ হাজার ২৭ জনের মৃত্যু বায়ুতে উপস্থিত জীবাশ্ম জ্বালানির কণার কারণে হয়েছিল। অর্থাৎ প্রায় ৩৬ শতাংশ মৃত্যুর জন্য জীবাশ্ম জ্বালানি দায়ী।

কয়লা, পেট্রোলিয়াম তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস ইত্যাদি জীবাশ্ম জ্বালানি হিসেবে পরিচিত। গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বে পাঁচটির মধ্যে একটি মৃত্যুর জন্য জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহারে সৃষ্ট বায়ুদূষণ দায়ী। এর অর্থ বৈশ্বিক গড়ের তুলনায় বাংলাদেশে মৃত্যুর হার প্রায় দ্বিগুণ।

গবেষণায় শক্তি উৎপাদন, শিল্প কারখানা ও পরিবহনসহ বিভিন্ন খাতে জ্বালানি ব্যবহারের হার তুলে ধরা হয়।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ইউনিভার্সিটি অব বার্মিংহাম, ইউনিভার্সিটি অব লিচেস্টার এবং ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন মিলিতভাবে গবেষণাটি পরিচালনা করে। আজ মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয়।

শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় চীনের নাম আছে প্রথমে। দেশটিতে জ্বালানি সৃষ্ট বায়ুদূষণে ৪০.২ শতাংশ মৃত্যু হয়ে থাকে। এই তালিকায় ৩০.৭ শতাংশ মৃত্যুহার নিয়ে ভারত আছে তৃতীয় অবস্থানে। দক্ষিণ কোরিয়া ও উত্তর কোরিয়ার আছে যথাক্রমে; চতুর্থ ও পঞ্চম অবস্থানে।

“গ্লোবাল বারডেন অফ ডিজিজ স্টাডিজের” সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশে বায়ুদূষণে মৃত্যুর জন্য ইনডোর এবং আউটডোর বায়ুবাহিত কণা দায়ী। এর মধ্যে আছে ধূলাবালি, দাবানল বা কৃষি জ্বালানি থেকে সৃষ্ট ধোঁয়া ইত্যাদি। ২০১৯ সালে এই মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৭৩ হাজার ৫০০।

গবেষণাটি বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর কার্যকারণ সম্পর্কিত সবথেকে বৃহৎ প্রতিবেদন। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক হেলথ ইফেক্টস ইন্সটিটিউট এবং ইন্সটিটিউট ফর হেলথ মেট্রিকস এন্ড ইভ্যালুয়েশন মিলিতভাবে গবেষণাটি পরিচালনা করে।

তবে হার্ভার্ডের গবেষণা বলছে ২০১২ সালে বাংলাদেশে বায়ুদূষণের কারণে মোট মৃত্যুর মধ্যে ২ লাখ ৫২ হাজার ৯২৭ জনের মৃত্যুর জন্য জীবাশ্ম জ্বালানি দায়ী। গবেষণাটিতে ১৪ বছরের নিচে শিশুদের মৃত্যুহার অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এছাড়া গবেষকরা ২০১৮-১৯ সালের তথ্য-উপাত্ত থাকা সত্ত্বেও ২০১২ সালের তথ্য ব্যবহার করেছেন।

২০১২ সালের তথ্য ব্যবহারের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে গবেষণা দলটি ই-মেইলের মাধ্যমে দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে জানায় যে, বৈশ্বিক আবহাওয়া পরিস্থিতি বায়ুদূষণের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলতে পারে। বিশেষত আবহাওয়া জনিত “এল-নিনো ওয়েদার প্যাটার্ন” বায়ুদূষণের উন্নতি বা অধিকতর খারাপ অবস্থার জন্য দায়ী।

গবেষণায় ২০১২ সালের তথ্য-উপাত্ত ব্যবহৃত হয়েছে, কেননা সে বছর এল-নিনো পরিস্থিতি নিরপেক্ষ অবস্থায় ছিল। অর্থাৎ, সেবছর বায়ুদূষণের মাত্রায় এর প্রভাব ছিল না।

“যদি এখানে অন্য কোনো বছরের তথ্য ব্যবহার করা হতো তাহলে এল নিনোর কারণে বায়ুদূষণে মৃত্যুহার কম বা বেশি হত। সেকারণে ইচ্ছাকৃতভাবেই ২০১২ সালের তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে, যাতে গবেষণার ফল যথার্থ হয়। ২০১৮ সালের তথ্য পাওয়া যায়নি বলে নয়।”

এল-নিনো কী?

এল-নিনো আবহাওয়া পরিবর্তন সম্পর্কিত অনিয়মিত একটি ঘটনা। কয়েক বছর পর পর নিরক্ষীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এর প্রভাব অনুভূত হয়। প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে বায়ুপ্রবাহের পরিবর্তন, অস্ট্রেলিয়ার খরা এবং দক্ষিণ আমেরিকার অসময়ের ভারী বৃষ্টিপাতের জন্য দায়ী এল-নিনো।

স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়য়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক ড. আহমেদ কামরুজ্জামান মজুমদার দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে বলেন, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য বেশ নির্ভরযোগ্য, কেননা তারা সবথেকে আধুনিক মডেল ও প্রযুক্তির ব্যবহার করেছে। তবে সংখ্যাগুলোর সামান্য রকমফের হতে পারে, কেননা মানবদেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দেশ অনুযায়ী ভিন্ন হয়।

“বাংলাদেশে জীবাশ্ম জ্বালানি ও অন্যান্য উৎসের কারণে বায়ুদূষণে মৃত্যুহার বেশ উচ্চ। সকল মৃত্যুর জন্যই মানুষের কার্যক্রম দায়ী। জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস এবং অন্যান্য বায়ুদূষণের মাত্রা কমিয়ে আমরা এই অবাঞ্ছিত মৃত্যুগুলো ঠেকাতে পারি,” বলেন তিনি।

“উদাহরণস্বরূপ, ঢাকার রাস্তায় দুই স্ট্রোক বিশিষ্ট তিন চাকার বেবিট্যাক্সি নিষিদ্ধ করে বায়ুদূষণ ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমানো গিয়েছিল। একইভাবে আমরা যদি বিভিন্ন কারখানায় জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধ করতে পারি, আমরা মৃতের সংখ্যাও উল্লেখজনকভাবে কমাতে পারব,” ব্যখ্যা করেন কামরুজ্জামান।

তিনি আরও বলেন, কোভিড-১৯ চলাকালীন সময়ে প্রথম তিন মাসে বায়ুদূষণ পরিস্থিতি ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত শুধরে গিয়েছিল। কেবলমাত্র প্রকৃতিতে মানুষের হস্তক্ষেপ কমার ফলেই তা সম্ভব হয়েছিল।

একমাত্র নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহারের মাধ্যমেই জীবশ্ম-জ্বালানি জনিত মৃত্যু কমানো সম্ভব। ১৯৯৫ সালে জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার ছিল ৫৪.৪ শতাংশ। ২০১৪ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৭৩.৮ শতাংশে গিয়ে পৌঁছে। এসময় গড় বার্ষিক জ্বালানি বৃদ্ধির হার ছিল ১ দশমিক ৬২ শতাংশ।

গবেষণায় ব্যবহৃত পদ্ধতি:

স্যাটেলাইট এবং ভূ-পৃষ্ঠ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে বায়ুতে উপস্থিত জীবাশ্ম জ্বালানি কিংবা ধূলিকণার পার্থক্য নির্ণয় করা সম্ভব না। স্যাটেলাইটে প্রাপ্ত তথ্য বিভ্রান্তিকর হতে পারে। ফলে সংগৃহীত উপাত্ত যথাযথ নাও হতে পারে।

এই সমস্যা এড়াতে হার্ভার্ডের গবেষকেরা জিইওএস-কেম মডেলের দিকে ঝুঁকে। মডেলটি আবহাওয়াজনিত রসায়নের একটি বৈশ্বিক থ্রি-ডি মডেল। জিইওএস-কেমের রেজুলিউশন অত্যন্ত উচ্চ। এর মাধ্যমে পৃথিবীকে ৫০কি.মি. x ৬০কি.মি. ক্ষুদ্র বক্স ও গ্রিডে ভাগ করার মাধ্যমে পৃথকভাবে প্রতিটি বক্সে দূষণের মাত্রা নির্ধারণ করা সম্ভব।

বিশাল অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত গড় তথ্যের উপর নির্ভর না করে দূষণের উৎস এবং মানুষের বাসস্থানের উপর নির্ভর করে ম্যাপ তৈরি করা হয়েছে। ফলে, মানুষ কী গ্রহণ করছে তা নির্ণয় করাও সহজ হয়ে ওঠে।

জীবাশ্ম ফসিল জ্বালানোর ফলে সৃষ্ট পিএম(পার্টিকুলেট ম্যাটার) ২.৫ চিহ্নিত করতে গবেষকরা জিইওএস-কেম দ্বারা বিভিন্ন খাত থেকে নিঃসৃত কণা নির্ণয় করে। পরবর্তীতে ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নাসা) মডেলিং অ্যান্ড অ্যাসিমিলেশন অফিস থেকে অক্সিডেন্ট-অ্যারাসলের বিস্তারিত তথ্য সিমুলেশন করা হয়।

আউটডোর গ্রিড বক্সে জীবাশ্ম জ্বালানির ঘনত্ব পিএম২.৫ হলেই মানব দেহের উপর এর প্রভাব পর্যালোচিত হয়।

হার্ভার্ড টিএইচ চ্যান স্কুল অব পাবলিক হেলথ মানব দেহের উপর জীবাশ্ম জ্বালানি নিঃসৃত কণার প্রভাব সম্পর্কিত একটি নতুন ঝুঁকি মূল্যায়ন মডেল নির্মাণ করেছে।

একারণেই পুরোনো গবেষণার তুলনায় নতুন প্রাপ্ত এই গবেষণার তথ্য অধিক যথার্থ বলে মন্তব্য করেন গবেষকেরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি