রবিবার,২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » ধর্মীয় » জান্নাতের গুপ্তধন ‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’র ফজিলত


জান্নাতের গুপ্তধন ‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’র ফজিলত


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২১.০৩.২০২১

ডেস্ক রিপোর্ট:

‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’- অর্থাৎ ‘আল্লাহ ছাড়া কোনো ভরসা নেই; কোনো ক্ষমতা বা শক্তি নেই।’ (বুখারি)

এটি একটি দোয়া যা আমল করলে অসংখ্য সওয়াবের কথা হাদিস শরীফে বর্ণিত হয়েছে। এটি নিয়মিত পাঠ করলে জান্নাতের ধন ভাণ্ডার অর্জিত হয় বলে জানা যায়।
আবু জার (রা.) থেকে বর্ণিত : তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, আমি কি তোমাকে জান্নাতের গুপ্তধনসমূহের একটির সন্ধান দিবো না? আমি বললাম, হ্যাঁ, ইয়া রাসূলাল্লাহ। তিনি বলেন, ‘‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’’।

হাযিম ইবনে হারমালা (রা.) থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট দিয়ে যাচ্ছিলাম। তিনি আমাকে বলেন : হে হাযিম! তুমি অধিক সংখ্যায় ‘‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’’ বাক্যটি পড়ো। কেননা তা হলো জান্নাতের গুপ্তধন।

সাফওয়ান ইবনু সুলাইম বলেছেন, কোন ফেরেশতাই “লা- হাওলা ওয়ালা কু-ওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ” পাঠ না করে ঊর্ধ্বাকাশের দিকে গমন করেন না।

“লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ” পাঠ করার ফাযীলাতঃ

আবূ মুসা আশআরী রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, একদা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, “তোমাকে জান্নাতের অন্যতম ধনভাণ্ডারের কথা বলে দেব না কি ?” আমি বললাম, ‘অবশ্যই বলে দিন, হে আল্লাহর রাসূল! ” তিনি বললেন, لا حول ولا قوة إلا بالله (লা হাওলা অলা ক্বুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ) (বুখারী ও মুসলিম) [১]

আবূ যার (রাঃ) থেকে বর্ণিত. তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেনঃ আমি কি তোমাকে জান্নাতের গুপ্তধনসমূহের একটির সন্ধান দিবো না ? আমি বললাম, হ্যাঁ, ইয়া রাসূলাল্লাহ. তিনি বলেনঃ ” লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ”. [২]

হাযিম ইবনে হারমালা (রাঃ) থেকে বর্ণিত. তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট দিয়ে যাচ্ছিলাম . তিনি আমাকে বলেনঃ হে হাযিম! তুমি অধিক সংখ্যায় ” লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ ” বাক্যটি পড়ো. কেননা তা হলো জান্নাতের গুপ্তধন [৩]
আরো পড়ুন:মুখতাসার যাদুল মা‘আদ বইটি ফ্রি ডাউনলোড করে নিন। ওংষধসরপ ইধহমষধ ইড়ড়শ উড়হিষড়ধফ

মূসা ইব্ন ইসমাঈল (রহঃ) ……… আবু উছমান আল্-নাহ্দী (রহঃ) হতে বর্ণিত. তিনি বলেন, আবু মূসা আল্-আশ্আরী (রাঃ) বলেন, একদা আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লামের সাথে এক সফরে ছিলাম . অতঃপর তাঁরা মদীনার নিকটবর্তী হলে লোকেরা উচ্চস্বরে আক্বীর ধ্বনি (আল্লাহু আকবার) দেন. তখন রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ তোমরা তো কোন বধীর এবং অনুপস্থিত ব্যক্তিকে আহবান করছ না , বরং তোমরা (ঐ মহান আল্লাহকে) স্মরণ করছ, যিনি তোমাদের শাহ্ রগেরও নিকটবর্তী. অতঃপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ হে আবূ মূসা ! আমি কি তোমাকে এমন একটি জিনিসের কথা অবহিত করব , যা জান্নাতের ভান্ডার (খাজানাহ) স্বরূপ? তখন আমি বলিঃ সেটা কি? তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ না হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ . [৪]

কাইস ইবনু সা’দ ইবনু উবাদাহ (রাযিঃ) হতে বর্ণিত আছে, তার বাবা তাকে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সেবার জন্য তার কাছে অর্পণ করেন. তিনি বলেন, আমি নামাযরত থাকা অবস্থায় নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার কাছ দিয়ে গমন করলেন . তিনি নিজের পা দিয়ে আমাকে আঘাত (ইশারা) করে বললেনঃ আমি তোমাকে কি জান্নাতের দরজাগুলোর একটি দরজা সম্পর্কে জানাব না ? আমি বললাম, হ্যাঁ. তিনি বললেনঃ “লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ” (আল্লাহ ব্যতীত অনিষ্ট দূর করার এবং কল্যাণ লাভের কোন শক্তি কারো নেই ). [৫]

সাফওয়ান ইবনু সুলাইম হতে বর্ণিত. তিনি বলেন, কোন ফেরেশতাই “লা- হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ” পাঠ না করে উর্ধ্বাকাশের দিকে গমন করেন না. [৬]

আবূ মূসা মুহাম্মাদ ইবন মুছান্না (রহঃ) …… কায়স ইবন সা’দ ইবন উবাদা (রাঃ) থেকে বর্ণীত যে তাঁর পিতা (সা’দ ইবন উবাদা) তাঁকে ন ী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে তাঁর খিদমতের জন্য সমর্পণ করেছিলেন . কায়স (রাঃ) বলেনঃ নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন . আমি তখন মাত্র সালাত শেষ করেছি. তিনি আমাকে তাঁর কদম মুবারক দ্বারা আঘাত করলেন. বললেনঃ জান্নাতের দ্বারসমূহের একটি দ্বারের আমি তোমাকে বলব কি ? আমি বললামঃ অবশ্যই. তিনি বললেনঃ লা হাওলা ওয়ালা কুওওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ.



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি