রবিবার,১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


তরমুজ কারসাজি: সুপার শপেও বিক্রি হচ্ছে কেজিতে চরা দামে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৮.০৪.২০২১


ডেস্ক রিপোর্টঃ

রাজধানীর সুপার শপগুলোতেও তরমুজ ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। সে হিসেবে প্রতিটি তরমুজের দাম পড়ছে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা। অথচ এক সপ্তাহ আগে এসব সুপার শপে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। আর ইন্ডিয়ান কালো তরমুজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। চলমান লকডাউনের কারণে দাম বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

মিরপুর চিড়িয়াখানা রোডের আগোরা সুপার শপে দেখা গেছে, সাত থেকে ১০ কেজি ওজনের তরমুজ কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি ৬৭ টাকা দরে। গত ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত ছাড়ে ৫৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হলেও সোমবার থেকে ৬৭ কেজি বিক্রি হচ্ছে। বড় সাইজ হওয়ায় একটি কেটে দুই ভাগ করেও বিক্রি করতে দেখা গেছে। আর ইন্ডিয়ান কালো তরমুজ ৭৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হচ্ছে।

এ সুপার শপের ম্যানেজার অপু আফরোজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বেশি দামে কেনায় বিক্রিও বেশি দামে করা হচ্ছে।

কোথা থেকে তরমুজ কেনা হয়েছে ও ক্রয়মূল্য কত পড়েছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং ম্যানেজার আবু আরাফাতের সঙ্গে যোগাযোগের পরামর্শ দেন। তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মেইলে প্রশ্ন পাঠাতে বলেন। প্রশ্ন পাঠালেও এ বিষয়ে কোনো উত্তর পাঠানো হয়নি।

অন্যদিকে মিরপুরের প্রিন্স বাজারে ৬০ টাকা দরে কেজিতে তরমুজ বিক্রি করতে দেখা গেছে। কালো তরমুজ ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এসব তরমুজ মিরপুর ১ নম্বর আড়ৎ থেকে ৫৮ টাকা কেজি দরে কেনা হয়েছে বলে জানান ম্যানেজার সোহাগ।

তিনি বলেন, আমরা গত এক সপ্তাহ আগেও প্রতি কেজি তরমুজ ৪৫ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি করেছি। লকডাউনের কারণে পরিবহন সংকট থাকায় দাম বেড়েছে।
মিরপুরে চিড়িয়াখানা রোডের আরেকটি সুপার শপেও ৬০ টাকা দরে তরমুজ বিক্রি হতে দেখা যায়। তারা বলেন, গত কয়েকদিন অফার থাকায় দাম কম থাকলেও গতকাল থেকে ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হচ্ছে। তবে কোথা থেকে কত দরে কেনা হচ্ছে সে বিষয়ে তথ্য জানতে চাইলে এ শপের ম্যানেজার কোনো তথ্য জানাতে পারেননি।

তরমুজ কিনতে আসা ব্যবসায়ী সৈয়দ শাহেদুল ইসলাম মিলন বলেন, দু’দিন পরপর তরমুজের দাম বাড়নো হচ্ছে। রোজার আগে ১০০ থেকে ১৩০ টাকায় বড় একটি তরমুজ কেনা যেত। রোজা শুরু হওয়ার পর ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। বর্তমানে ৬০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। একটি মৌসুমি ফলের এত দাম হতে পারে কিভাবে প্রশ্ন তোলেন তিনি। সিন্ডিকেটের কারণে এ পণ্যের দাম বাড়ানো হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন এই ক্রেতা।

এদিকে সেগুনবাগিচার একটি সুপার শপে প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি হচ্ছে ৬৭ টাকা কেজি দরে। আর ভারতের কালো তরমুজ ৭৫ টাকায়।

খিলগাঁওয়ের একটি সুপার শপে প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি হচ্ছিল ৬০ টাকা দরে। এছাড়া কালো তরমুজের দাম ছিল ৬৫ টাকা।

এসব সুপার শপে চাইলে কেউ অর্ধেক তরমুজও কিনতে পারবেন। অনেক তরমুজ কেটে অর্ধেক করে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

জানতে চাইলে বিক্রয়কর্মী জানান, মঙ্গলবার প্রতি কেজি তরমুজের দাম ৫ টাকা করে কমেছে। গতকাল তরমুজ ৬৫ টাকা আর ৭০ টাকা (কালো) দরে বিক্রি হয়েছিল।

আর দাম বেশি কেন জানতে চাইলে সেখানকার বিক্রয়কর্মী বাবু বলেন, মানের কারণে দাম কিছুটা কমবেশি হয়। এখানেও দাম কম ছিল। তবে গত কয়েকদিন ধরে দাম বেড়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি