রবিবার,১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » জাতীয় » পিতা হত্যা মামলার বাদী হওয়ায় ভাইকেও খুন, লাশ মিললো দু’দিন পর


পিতা হত্যা মামলার বাদী হওয়ায় ভাইকেও খুন, লাশ মিললো দু’দিন পর


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০১.০৫.২০২১


ডেস্ক রিপোর্টঃ

বগুড়ায় তারাবির নামাজ আদায় করতে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজের দুদিন পর মশিউর রহমান সোনা মিয়া (৩০) নামে এক দলিল লেখকের লাশ পাওয়া গেছে। তিনি নিজ পিতা হত্যা মামলার বাদী। যে মামলার আসামি তারই সহোদর ভাই।

শনিবার (০১ মে) সকালে জেলা সদরের বারপুর দক্ষিণপাড়ার একটি ধানক্ষেত থেকে তার পচনধরা মরদেহটি উদ্ধার করেছে সদর থানা পুলিশ। সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ এ তথ্য জানান।

পুলিশ ও পরিবার জানায়, বগুড়া সদর রেজিস্ট্রি অফিসের শিক্ষানবিশ দলিল লেখক (মহুরি) মশিউর রহমান সোনা মিয়া সদর উপজেলার বারপুর দক্ষিণপাড়ার মৃত মকবুল হোসেন নান্নু মিয়ার ছেলে। প্রায় আড়াই বছর আগে নান্নু মিয়া খুন হন। এ মামলায় তার ছেলে মাদকসেবী তৌফিকুর রহমান তোতা মিয়া (২৮) আসামি হন। মামলার বাদী ছিলেন, নিহত সোনা মিয়া। তোতা মিয়া সম্প্রতি জামিনে ছাড়া পেয়েছেন।

এলাকাবাসী জানান, গত ২৯ এপ্রিল সন্ধ্যার পর সোনা মিয়া বাড়ি থেকে এলাকার মসজিদে তারাবির নামাজ আদায় করতে যান। এ সময় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি সঙ্গে নেননি। আট রাকায়াত নামাজ আদায় করে মসজিদ থেকে বের হন তিনি। রাতে বাড়ি না ফিরলে পরিবারের সদস্যরা সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজ করে তার সন্ধান পাননি। পরদিন শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) সোনা মিয়ার স্ত্রী সোনিয়া আকতার সদর থানায় জিডি করেন।

এদিকে শনিবার সকালে বাড়ির পেছনে ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন ধান ক্ষেত থেকে পচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এলাকাবাসী সেখানে গিয়ে সোনা মিয়ার লাশ দেখতে পান। পরে পরিবারের সদস্যরা লাশটি শনাক্ত করেন। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ বেলা সাড়ে ১০টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, এটি হত্যাকাণ্ড বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে তাকে কীভাবে হত্যা করা হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ময়নাতদন্তের পর এ ব্যাপারে জানা যাবে। তদন্ত ও হত্যায় জড়িতদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। সোনা মিয়া হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে তার পরিবারের সদস্যরা মুখ খুলছেন না। তবে এলাকাবাসীর ধারণা করছেন, নান্নু মিয়া হত্যা মামলার আসামি তোতা মিয়া সোনা মিয়া হত্যার সঙ্গে জড়িত।

উপশহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর নান্নু খান জানান, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি