রবিবার,২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


অতিরিক্ত হাত খরচের টাকা যোগান দিতে গিয়ে স্ত্রীকে হত্যা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৬.০৬.২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

নাটোরের গুরুদাসপুরে পাট ক্ষেত থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত নারীর মরদেহের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। নাম রাখি খাতুন (২৬)। অতিরিক্ত হাত খরচের টাকা যোগান দিতে গিয়ে অতিষ্ঠ হয়ে স্বামী মিলন ইকবাল তাকে হত্যা করেন। এ ঘটনায় তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

রবিবার (৬ জুন) ১ প্রেস ব্রিফিংয়ে নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ১ জুন গুরুদাসুপরের কাছিকাটা টোল প্লাজার কাছে বির বিয়াস নামে ১ টি পাট ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে সিআইডির ক্রাইম সিনের সহায়তায় জানা যায়, নিহত নারী রাখি খাতুন রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলার চান্দুরিয়া গ্রামের মিলন ইকবালের স্ত্রী। নিহত রাখি বাবা ও স্বজনদের সঙ্গে কথা ইকবাল ও তার তৃতীয় স্ত্রী তাহমিনা খাতুনকে আটক করে পুলিশ। এ সময় মিলন ইকবালের কাছ থেকে রাখি খাতুনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।’

ইকবালের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার জানান, ইকবাল ঢাকায় ডিবিবিএল ব্যাংকে মাত্র ১৪ হাজার টাকা বেতনে চাকরি করেন। সেখান থেকে প্রথম স্ত্রী রাখি খাতুনকে প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা পাঠাতেন। বাকি ৪ হাজার টাকা দিয়ে তাকে চলতে হতো। তৃতীয় স্ত্রী তাহমিনাকে তিনি টাকা পয়সা দিতে পারতেন না।

তিনি আরও জানান, ডিভোর্স দিলে রাখি মামলা করবে। আইন আদালতের ঝামেলা পোহাতে হবে। এ কারণে ইকবাল রাখিকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। গুরুদাসপুর উপজেলায় ১ আত্মীয়র বাসায় বেড়ানোর কথা বলে রাখিকে সঙ্গে নিয়ে বাসে রাতে কাছিকাটা টোল প্লাজার কাছে নামেন। পার্শ্ববর্তী বিল বিয়াস নামক স্থানে লোহার হাতুড়ি দিয়ে মাথায় আঘাত করে রাখিকে হত্যা করে মরদেহ পাট ক্ষেতের মধ্যে ফেলে দেন। পরে তৃতীয় স্ত্রী তাহমিনার কাছে ফিরে যান।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, ‘গ্রেফতার আসামির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- এএসপি মীর আসাদুজ্জামান, জামিল আকতার, গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি