শুক্রবার,৩০শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • প্রচ্ছদ » বিনোদন » পরী মণির ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি নাসিরসহ গ্রেপ্তার ৩


পরী মণির ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি নাসিরসহ গ্রেপ্তার ৩


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৪.০৬.২০২১

বিনোদন ডেস্ক:

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত চিত্রনায়িকা পরী মণিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার মামলার প্রধান আসামি উত্তরা ক্লাবের সাবেক প্রেসিডেন্ট নাসির ইউ মাহমুদসহ (নাসিরউদ্দিন মাহমুদ) তিনজনকে রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ঢাকা জেলা উত্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুল্লাহিল কাফি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পরী মণিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সাভার মডেল থানায় মামলা করা হয়েছে। মামলায় উত্তরা ক্লাবের সাবেক প্রেসিডেন্ট নাসির ইউ মাহমুদসহ (নাসির উদ্দিন মাহমুদ) ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে চারজন অজ্ঞাত আসামি বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। মামলার বাদী পরী মণি নিজে।

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলাম আজ সোমবার পরী মণির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘মোট ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়েছে। নাসিরউদ্দিন মাহমুদ ও অমি নামের একজনের নাম উল্লেখসহ আরও চারজনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।’

ওসি আরও বলেন, ‘এরই মধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। মামলাটি গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হচ্ছে। আসামিদের ধরতে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।’

এর আগে সাভারের বিরুলিয়ায় ‘ঢাকা বোট ক্লাবে’ ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে গতকাল রোববার রাতে রূপনগর থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন পরী মণি। রূপনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুর রহমান সরদারের বার্তা নিয়ে অভিযোগটি আজ সোমবার দুপুরে সাভার মডেল থানায় পৌঁছে দেওয়া হলে মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়।

মামলায় জোর করে মদপান করানো, ভয়ভীতি প্রদর্শন, মারধর ও ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। ঢাকা জেলা উত্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আবদুল্লাহিল কাফি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, পরী মণির লিখিত অভিযোগটি রাজধানীর রূপনগর থানা পুলিশের মাধ্যমে আমাদের হাতে এসেছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগে পরী মণি উল্লেখ করেন, গত বুধবার দিবাগত রাতে অমি নামের এক বন্ধু ও জিমি নামের তাঁর ব্যক্তিগত রূপসজ্জাশিল্পীকে নিয়ে বিরুলিয়ায় ‘ঢাকা বোট ক্লাবে’ যান তিনি। সেখানে ছয়জন তাঁর শ্লীলতাহানি করেন। এক পর্যায়ে তাঁকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা করা হয়।

পরে বনানী থানায় অভিযোগ নিয়ে গেলে কোনো প্রতিকার না পাওয়ার অভিযোগ করেন পরী মণি। পরে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এই বিষয়টিসহ ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করেন তিনি।

এর আগে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিচার দাবি করেছিলেন পরী মণি। ঘটনার বিস্তারিত জানাতে রাত সাড়ে ১০টায় তাঁর বনানীর বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন ডাকেন এই অভিনেত্রী।

সেখানে পরীমণি অভিযোগ করেন, চার দিন আগে আশুলিয়ার একটি ক্লাবে তাঁর সঙ্গে প্রতিষ্ঠিত এক ব্যবসায়ী ক্লাবকর্তা অশোভন আচরণ করেছেন এবং শারীরিক নির্যাতন করেছেন। এ ঘটনায় তিনি বনানী থানায় মামলা করতে গেলেও কোনো সহযোগিতা পাননি।

কেঁদে কেঁদে সেদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে পরী মণি জানিয়েছেন, ১০ জুন পারিবারিক বন্ধু অমি, ব্যক্তিগত রূপসজ্জাশিল্পী জিমি ও এক আত্মীয়কে নিয়ে বের হন পরী মণি। সেখান থেকে অমি কৌশলে তাঁকে আশুলিয়ার একটি ক্লাবে নিয়ে যান। যেখানে মদ্যপানরত এক ব্যক্তির সঙ্গে তাঁকে পরিচয় করানো হয়। ওই ব্যক্তিদেরই একজন হঠাৎ জোর করে তাঁকে মদ্যপান করানোর চেষ্টা করেন। তাতে রাজি না হওয়ায় শারীরিক নির্যাতন করেন ওই ব্যক্তি। পরে পরী জেনেছেন, ওই ব্যক্তি প্রতিষ্ঠিত এক ব্যবসায়ী ক্লাবকর্তা। ওই সময় পরীর ব্যক্তিগত রূপসজ্জাশিল্পী জিমিকেও নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন পরী।

পরী মণি উপস্থিত সাংবাদিকদের আরও জানিয়েছেন, ওই ঘটনার পর রাজধানীর বনানী থানায় অভিযোগ জানাতে গেলেও তাঁকে সহযোগিতা করা হয়নি। এমনকি বাংলাদেশ শিল্পী সমিতিতে অভিযোগ জানিয়েও ফল পাননি বলে অভিযোগ এই চিত্রনায়িকার।

এই অভিনেত্রী আরও অভিযোগ করেন, ‘আমি পরী মণির এমন ঘটনায় যদি এই দশা হয়, সাধারণ নারীদের কী অবস্থা একবার ভাবুন।’ এ ঘটনার পর চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান পরী। এ ছাড়া সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে একাধিকবার কান্নায় ভেঙে পড়েন এই চিত্রনায়িকা।

২০১৫ সালে ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয় পরী মণির। ঢালিউডে বেশ কিছু জনপ্রিয় সিনেমা রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি