বৃহস্পতিবার,২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


টুং ঠাং শব্দে পটুয়াখালীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামাররা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৮.০৭.২০২১

ডেস্ক রিপোর্ট:

কোরবানি ঈদের সময় পশু জবাইসহ মাংস প্রস্তত করতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয় দা, বঁটি, ছুরি, চাপাতির মতো ধারালো অস্ত্রের। এ কারণে কোরবানির প্রস্তুতি হিসেবে দা, বঁটি, চাপাতি ধার করাতে ও বানাতে বিভিন্ন কামারশালায় ছুটছে মানুষ।

পটুয়াখালীর কামারশালার শ্রমিকদের এখন দম ফেলার সময় নেই। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে ঠুং ঠাং শব্দ। তবে বিগত বছরের তুলনায় এবার বেচাবিক্রি কম বলে জানান ব্যবসায়ীর।

পটুয়াখালীর বেশিরভাগ কামারশালা রয়েছে শহরের পুরান বাজার এলাকায়। ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই এলাকায় দোকান খুলে ব্যবসা করছেন কামাররা। অনেকেরই নিজস্ব গ্রাহক আছে, যারা নির্দিষ্ট কামারশালাতেই দা, বঁটি ধার করান।

শহরের পুরান বাজারের ঐতিহ্যবাহী কালা কর্মকারের দোকানের শ্রমিক লিটন কর্মকার জানান, ১৫ দিন আগ থেকেই তাদের ব্যবস্থা বেড়েছে। বর্তমানে দা, বঁটি, চাপাতি ধার করতে ৮০ টাকা থেকে ১০০ টাকা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া গাড়ির স্প্রিং পাতি দিয়ে তৈরি করা দা, বঁটি ৮০০ টাকা কেজি এবং চাপাতি ৬০০ টাকা কেজি হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।

ছোট চাকু ১০০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা পিস হিসেবে বিক্রি হচ্ছে। রেল পাতের দা, বঁটি ৬০০ টাকা কেজি এবং কাঁচা লোহা দিয়ে তৈরি দা-বঁটি ৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কামারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনার আগে কোরবানির ঈদে প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকার বেচাকেনা হলেও এবার পাঁচ হাজার থেকে আট হাজারের বেশি হচ্ছে না। এছাড়া বিগত বছরগুলোতে কোরবানির সময় নতুন দা, বঁটি, ছুরি, চাপাতি তৈরি করা হলেও এবার পুরাতন অস্ত্র ধার দেয়ার মধ্যেই অনেকে সীমাবদ্ধ রয়েছেন। ফলে বেচাকেনা কম।

পটুয়াখালী জেলার বিভিন্ন হাট-বাজারেও বর্তমানে ছোট ছোট কামারশালা তৈরি হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় এর সংখ্যা শতাধিক বলে জানা গেছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি