রবিবার,১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


কুমিল্লায় করোনা রোগী ভর্তি না করায় চিকিৎসককে মারধর, ৩ ভাই কারাগারে


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৭.০৭.২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লার একটি বেসরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীকে ভর্তি না করায় চিকিৎসকের ওপর হামলার ঘটনায় তিন ভাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দুপুরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতাররা হলেন- নগরীর নোয়াগাঁও এলাকার মোজাম্মেল হোসাইন অয়ন, আবদুল্লাহ আল মামুন অনন্ত ও আবদুল কাদের অনিক।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সোহান সরকার জানান, নগরীর নোয়াপাড়া এলাকার মনিপাল এএফসি হসপিটালের (সাবেক ফরটিস হাসপাতাল) চিকিৎসক তানভীর আকবরের ওপর হামলা ও হাসপাতালে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগে সোমবার (২৬ জুলাই) সকালে কোতোয়ালী থানায় মামলা হয়। ওই চিকিৎসক নিজেই তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচজনকে আসামি করে মামলাটি করেন। সেই মামলায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, করোনায় আক্রান্ত হোসাইন নামের এক রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় কুমিল্লা সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিট থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল বা ঢাকার যেকোনও হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তরের জন্য বলা হয়। কিন্তু রোগীর স্বজনরা রোববার (২৫ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টায় বেসরকারি এই হাসপাতালটির জরুরি বিভাগে তাকে নিয়ে আসেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি নিতে রাজি হয়নি। এরপরও রোগীর স্বজনরা ভর্তির জন্য জোরপূর্বক চাপ প্রয়োগ করেন। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে ৫-৬ জন মিলে চিকিৎসক তানভীরকে কিলঘুষি দিতে থাকেন। পরবর্তী সময়ে লাঠি দিয়ে তাকে মারধর করা হয়।

এদিকে, ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় রেকর্ড হওয়া হামলার একটি ভিডিও ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে কুমিল্লার বিভিন্ন মহলে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চেয়েছেন কুমিল্লা সিভিল সার্জনসহ জেলায় কর্মরত চিকিৎসকরা।

হামলার শিকার ডা. তানভীর আকবর বলেন, ‘জরুরি বিভাগে রোগীটি আসার পর চেকআপ করি। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা ও আইসিইউ সমৃদ্ধ হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। কিন্তু স্বজনরা হাসপাতালটিতে ভর্তির জন্য বারবার চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে আমার ওপর অতর্কিত হামলা করেন তারা।’

এ চিকিৎসক আরও বলেন, ‘হামলার সময় আমাকে বাঁচাতে এলে হাসপাতালের আরও কয়েকজন কর্মকর্তাকে মারধর করা হয়। এছাড়া হাসপাতালের সম্পদের ক্ষতি সাধন করে ও অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে সটকে পড়েন তারা। এ ঘটনায় আমি কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করি।’ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরে কুমিল্লা কোতোয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কমল কৃষ্ণ ধর জানান, গ্রেফতার তিনজনকে মঙ্গলবার আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি