সোমবার,২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বাবর


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১২.১০.২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

‘অবৈধভাবে সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় নেত্রকোনার বারিবাধারায় ২৬ লাখ টাকার যে সাজা দেওয়া হয়েছে সেই টাকা তিনি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধ করেননি। তদন্ত কর্মকর্তা নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানকেও এ বিষয়ে পরিষ্কার করেননি যে তিনি টাকা পরিশোধ করেছেন। সুতরাং যে টাকা তিনি দেননি সে টাকায় তথ্য গোপন হতে পারে না। সেই টাকা আদালত বাজেয়াপ্ত করেছেন, কিন্তু যে টাকা তার নেই সেই টাকা কিভাবে বাজেয়াপ্ত করে।’

তাই আমরা মনে করি এটি একটি অসম্পূর্ণ ও ন্যায়ভ্রষ্ট রায়। আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক মো. শহিদুল ইসলাম রায় ঘোষণার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বাবরের আইনজীবী আমিনুল ইসলাম এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের দুইটি অভিযোগ ছিলো, একটি হচ্ছে নেত্রকোনাস্থ বারিবাধারা এলাকায় তার একটি বাড়ি ছিল, একটি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি বাড়িটি করেছিলেন। তিনি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানকে আট লক্ষ টাকা অগ্রিম পরিশোধ করেছিলেন। ইঞ্জিনিয়ার বলেছিলেন এই বাড়ির কাজ হয়েছে প্রায় ৩৪ লাখ টাকার। তারা অ্যাডভান্স পেয়েছিলেন আট লাখ। কিন্তু এই আট লাখ টাকার বাইরে ২৬ লাখ টাকা তিনি পরিশোধ করেনি।

তিনি আরও বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা এই বিষয়ে বলেছেন এই আট লাখ টাকার বাইরে কোনো টাকা নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়ার তথ্য আমি পাইনি। কিন্তু বিজ্ঞ আদালত আজকে যে রায়টি দিয়েছেন ২৬ লাখ টাকার তথ্য গোপন সেটা নিশ্চয়ই আদালত সাক্ষীর যে সাক্ষ্যগ্রহণ সেটা ভালোভাবে উপলদ্ধি করতে পারেননি। যেহেতু ২৬ লাখ টাকা আমরা পরিশোধই করিনি সেহেতু এটা আমাদের সম্পদ হিসেবেও অন্তর্ভুক্ত হয়নি। এটা দেনা ছিল, কিন্তু আদালত সেটা হয়তো বুঝতে পারেননি। সে হিসেবে যে রায় আদালত দিয়েছেন সে বিষয়ে আমরা অবশ্যই আপিল করবো।

অন্যদিকে তার বিরুদ্ধে আরেকটি অভিযোগ ছিল যে, তিনি ২০০৭ সালের ২৩ জুলাই জেল হাজত থেকে দুর্নীতি দমন কমিশনকে সম্পদের বিবরণী দাখিল করেছিলেন। কিন্তু তিনদিন পর ২৬ তারিখ তার অ্যাকাউন্টে এইচএসবিসি ব্যাংকের মাধ্যমে সিঙ্গাপুর থেকে ১০ লাখ আমেরিকান ডলার তৎকালীন যৌথবাহিনীর কর্মকর্তা মেজর জসিম এই টাকা কোথা থেকে পাঠিয়েছিলেন তা আমরা জানি না।

এই টাকার দখল কিংবা মালিকানা আমরা বরাবরই অস্বীকার করে এসেছি। আমরা ট্যাক্স ফাইলে উল্লেখ করেছি এই টাকাটা কোথা থেকে কিভাবে এলো আমার ধারণা নেই। এটা মেজর জসিম ভালো বলতে পারবেন। কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তা মেজর জসিম কিংবা এইচএসবিসি ব্যংকের কোনো কর্মকর্তাকেই সাক্ষী হিসেবে আনেননি। এই অভিযোগ থেকে আমাদের আদালত অব্যাহতি দিয়েছেন।

আদালত তাকে দুইটি ধারায় সর্বমোট আট বছরের শাস্তি দিয়েছেন। ২৬ এর ২ ধারায় দিয়েছেন ৩ বছর আর ২৭ এর এক ধারায় দিয়েছেন ৫ বছর। তবে তিনি বলেছেন উভয় সাজা একই সঙ্গে চলবে। সে হিসাবে তার শাস্তির মেয়াদ হয় ৫ বছর। তিনি ২০০৭ সালের ২৩ জুলাই থেকে জেলে রয়েছেন প্রায় ১৩ বছর। এটিও তার সাজা থেকে বাদ যাবে।

সে হিসেবে তার শাস্তি আর থাকছে না। তবুও আমরা এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করি এবং এই রায়ের বিরুদ্ধে আমরা আপিল করবো। আমরা মনে করি উচ্চ আদালতে এই রায়ের বিরুদ্ধে আমরা প্রতিকার পাবো।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি