সোমবার,২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ


গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুনে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ মৃত্যু


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
১৭.১০.২০২১

ডেস্ক রিপোর্টঃ

শ্বশুরবাড়ির অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে নিজেই নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ লাবণ্যের (১৭) মৃত্যুর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) ওই গৃহবধূর চাচা বাদী হয়ে নেত্রকোনার কলমাকান্দা থানায় মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, গত ৯ অক্টোবর নিজেই নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ সুরাইয়া নেওয়াজ লাবণ্য। এতে শরীরের ৯০ ভাগ পুড়ে যায় তার। পরে তাকে ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। সেখানে বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মৃত এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন তিনি। এর কয়েক ঘণ্টা পর মারা যান লাবণ্য। পরে তার সন্তানকে আজিমপুর কবরস্থানে এবং তাকে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার গাখাজোড়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

লাবণ্যকে লালন পালন করা নানি জাহেরা খাতুন (৭০) কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা স্বামীর ভাতার টাকা জমিয়ে দেড় লক্ষাধিক টাকা খরচ করে নাতনির বিয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু শ্বশুরবাড়িতে অশান্তি ছিল তার। যৌতুকের জন্য গর্ভবতী লাবণ্যকে প্রচণ্ড মারধর করতো শ্বশুরবাড়ির লোকজন। মেয়েটি নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে একপর্যায়ে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। পরে লাবণ্যের বাবা মেয়েকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।’

লাবণ্যর বাবা আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘মৃত সন্তান জন্ম দেওয়ার পর লাইফ সাপোর্টে চিকিৎসাধীন ছিল আমার মেয়ে। মেয়েটা আমাকে ছাড়া কিচ্ছু বুঝতো না। লাবণ্যই চায়নি তার স্বামীকে আমি কোনো টাকা-পয়সা দেই। আমার একমাত্র মেয়ে সে।’

লাবণ্যর মা আফরোজা ফাতেমা বলেন, ‘বিয়ের মাস দুয়েক পর থেকেই যৌতুকের জন্য স্বামী, শাশুড়ি নানাভাবে আমার মেয়ের ওপর অত্যাচার শুরু করে। ১৬ মাসের সংসারে দফায় দফায় সালিশ বৈঠক হয়েছে। কিন্তু মীমাংসা হয়নি।’

লাবণ্যের চাচা মামলার বাদী সাইদুল ইসলাম সাঈদ বলেন, ‘আমার ভাতিজিকে প্রথমে ফুসলিয়ে বিয়ে করে যৌতুকের জন্য মারধর করত। এসব নিয়ে অনেকবার বিচার বৈঠক হয়েছে। মেয়েটিকে বাড়িতে নিয়ে আসার পরও মোবাইল ফোনে হুমকি দিয়ে গালাগালি করতো। আমি এ ঘটনায় সর্বোচ্চ বিচার চাই।’

লাবণ্যর মামা জাহাঙ্গীর মাহমুদ জানান, গত ৯ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টার দিকে স্বামী শাহীন আলমের সঙ্গে লাবণ্যের কথা হয়। এরপরই গায়ে আগুন দেন তিনি। নেত্রকোনার কলমাকান্দা থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। একদিন পর সেখান থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার বিষয়ে শ্বশুরবাড়িতে খবর দেওয়া হলেও তারা কেউ কোনো খোঁজ নেননি।

এ বিষয়ে জানতে তার স্বামী শাহীন আলমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও পাওয়া যায়নি। শাহীনের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ধোবাউড়া উপজেলার দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নের খাগগড়া গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে।

কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আহাদ জানান, লাবণ্যের চাচা সাইদুল ইসলাম সাঈদ বাদী হয়ে স্বামী শাহীন আলম, ভাসুর শাহান মিয়া, শাশুড়ি মমতা আক্তার, ননদ শারমিন আক্তার, শ্বশুর আবু তাহের ও শাহীনের বন্ধু আশরাফুল ইসলামকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি