বুধবার,১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


কুমিল্লার বরুড়ার লক্ষীপুর ও উত্তর খোশবাস ইউনিয়নে ভোটকেন্দ্র দখলের আশংকা


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
২৬.১১.২০২১

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার লক্ষীপুর ও ৩ নং উত্তর খোশবাস ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বেশ কয়েকটি কেন্দ্র দখলের পায়তারা চলছে।

লক্ষীপুর ইউনিয়নের ৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৫টি কেন্দ্রই অধিক ঝুঁকিপূর্ন । এ ভোটকেন্দ্রগুলো দখলের পায়তারা চলছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। এছাড়া ৩ নং উত্তর খোশবাস ইউনিয়ন পরিষদে ৩টি ভোটকেন্দ্র দখলের পায়তারা চলছে।

আগামী ২৮ নভেম্বর এই দুই ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাকের (আনারস) সমর্থক ও ভোটাররা জানান, এই ইউনিয়নের নলুয়া চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাচথুবী দাখিল মাদ্রাসা, পেরুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,দলিয়ামুড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লক্ষীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নোয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্র দখলের পায়তারা করছে নৌকার সমর্থকরা। এতে করে সুষ্ঠু ভোটাধিকার প্রয়োগ বিঘ্নিত হতে পারে।

জানা যায়,এই ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থীদের বসিয়ে দেয়া হয়েছে। যাতে করে কেন্দ্র দখল করতে সহজ হয়।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক জানান, বেশ কয়েকটি ভোটকেন্দ্র দখলের পায়তারা চলছে। আমার ভোটার, এজেন্টদের হুমকি প্রদান করা হচ্ছে। সুষ্ঠু ভোটের আয়োজন করার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আর্কষণ করছি।

এদিকে উপজেলার ৩ নং উত্তর খোসবাশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (আনারস ) মো: ফরহাদ হোসেনের ভোটার, কর্মী-সমর্থক ও ভোটকেন্দ্রের সম্ভাব্য এজেন্টদের ভয়-ভীতি প্রর্দশন করে কেন্দ্রে যেতে না করছে নৌকার প্রার্থী । এমন অভিযোগ এনে জেলা নির্বাচন কর্মর্কর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে স্বতন্ত্র প্রার্থী (আনারস ) মো: ফরহাদ হোসেন।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) দুপুরে এই অভিযোগটি করা হয়েছে।

অভিযোগে মো: ফরহাদ হোসেন উল্লেখ করেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো: নাজমুল হাসান বিভিন্ন সময়ে আমার নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে। আমার কর্মী-সমর্থকদের অস্ত্র ঠেকিয়ে মারধর করছে। নৌকার প্রার্থী প্রকাশ্যে বলছে- উক্ত ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের ৮ নং ও ৯ নং কেন্দ্র এবং ৪ নং ওয়ার্ডের ৪ নং কেন্দ্রে প্রকাশ্যে তাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে হবে। তার বাহিনী দিয়ে ব্যালট পেপারে সিল মেরে বিজয় নিশ্চিত করবে। এই তিন কেন্দ্রে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমার কোন এজেন্ট প্রবেশ করতে দিবে না। কেউ আমার পক্ষে এজেন্ট থাকলে তাকে এলাকাছাড়া করা হবে। প্রাণনাশেরও হুমকি দিচ্ছে। যা সুষ্ঠু নির্বাচনের অন্তরায়।এমতাবস্থায় এই ইউনিয়নের তিনকেন্দ্রে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি