বুধবার,১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ


ইউপি নির্বাচন নিয়ে চান্দিনায় এমপি প্রাণ গোপালের মুখোমুখি মোন্তাকিম আশরাফ


পূর্বাশা বিডি ২৪.কম :
০৩.০১.২০২২

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উভয় সংকটে পড়েছে নৌকার প্রার্থীরা । প্রত্যেকটি ইউনিয়নেই নৌকার বিরুদ্ধে দলীয় বিদ্রোহীরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে । এছাড়া বিএনপি, এলডিপি ও জামায়াত ইসলামির নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে । ফলে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীদের দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের পাশাপাশি বিএনপি-এলডিপি ও জামায়াতের প্রার্থীদের সাথেও লড়াই করতে হচ্ছে। এছাড়া নৌকা প্রার্থীর প্রচারণায় বাঁধা প্রদান ও নেতাকর্মীদের ধরপাকড় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

জানা যায়, ৬টি ইউনিয়নে স্বতন্ত্রের ব্যানারে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নিচ্ছেন বিএনপি, এলডিপি ও জামায়াত প্রার্থীরা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাতাঘাসী ইউনিয়নে টেবিল ফ্যান প্রতীকে উপজেলা এলডিপি সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান সিরাজ ও ঘোড়া প্রতীকে বিএনপি নেতা জসিম উদ্দিন, কেরণখাল ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী চশমা প্রতীকে আতিকুর রহমান,বাড়েরা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীকে সাবেক এলডিপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন কালা, এতবারপুর ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থক প্রার্থী চশমা প্রতীকে কাউসার আহমেদ, বরকইট ইউনিয়নে
ঘোড়া প্রতীকে সাবেক বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান নূরে আলম এবং মটর সাইকেল প্রতীকে ছাত্রদল নেতা মাজহারুল ইসলাম, দোল্লাই নবাবপুর ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মো. শাহজাহান এবং জোয়াগ ইউনিয়নে বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের ভূইয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

অপরদিকে ১২টি ইউনিয়নে নৌকার বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন ২৯ জন। শুহিলপুর ইউনিয়নে এমপি প্রাণগোপাল সমর্থিত আবু বকর ছিদ্দিক, বাতাঘাসী ইউনিয়নে আ.ন.ম. কামরুজ্জামান ভূইয়া, কেরণখাল ইউনিয়নে সুমন ভূইয়া, বাড়েরা ইউনিয়নে আহসান হাবীব ভূইয়া ও কালা মিয়া, এতবারপুর ইউনিয়নে মো. ইউসুফ, বরকইট ইউনিয়নে মোহাম্মদ আবুল কালাম, মাইজখার ইউনিয়নে শাহ্ সেলিম প্রধান বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। এদিকে দোল্লাই নবাবপুর ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা মো. শাহজাহানের পক্ষে কাজ করছে আ’লীগের একটি অংশ।

এমপি আলী আশরাফের মৃত্যুর পর শূণ্য হওয়া আসনে আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন লড়াইয়ে নামেন প্রয়াত এমপি আশরাফের পুত্র উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুন্তাকিম আশরাফ টিটু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। মনোনয়ন লড়াইয়ে ডা. প্রাণ গোপাল বিজয়ী হয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ নির্বাচিত হন। মুন্তাকিম আশরাফ টিটুও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন লড়াইয়ে চমক দেখিয়ে ১০টি ইউনিয়নে নৌকার প্রতিক পাইয়ে দিয়েছেন নিজের নেতাকর্মীদের। বাকি দুটিতে মনোনয়ন পেয়েছে এমপি ডা. প্রাণ গোপাল সমর্থিত নেতাকর্মীরা। ফলে প্রায় সবগুলো ইউনিয়নেই বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এমপি ডা. প্রাণ গোপাল সমর্থিত নেতাকর্মীরা।

নৌকার মনোনয়ন পেয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৬ ডিসেম্বর সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে রাজধানী ঢাকার গ্রীন লাইফ হাসপাতালে যান। তখন এমপি প্রাণ গোপাল তাদের সাথে অসদাচরণ করেন বলে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ৯ ডিসেম্বর রাতে চান্দিনা ফার্মল্যান্ড এন্ড কোল্ডা স্টোরেজ লিমিটেডে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে জানান। সংবাদ সম্মেলনে কেরণখাল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মো. হারুন অর রশিদ বলেন- গত ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দিয়ে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করেন। পরে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের পরামর্শ অনুযায়ী চান্দিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন এর নেতৃত্বে আমরা ৯ জন আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী স্থানীয় সাংসদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে রাজধানী ঢাকার গ্রীন লাইফ হাসপাতালে যাই। এসময় তিনি আমাদের সাথে অশোভন আচরণ করেন এবং অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন। আমার হাতে মোবাইলটা ছিল দেখে তিনি- ‘এই তুমি ভিডিও কর কেন বলে আমার হাতে লাথি মারেন।’

এরপরই এমপি ডা. প্রাণ গোপাল আর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি মুন্তাকিম আশরাফ টিটুর গ্রুপের মধ্যে কোন্দল আরো প্রকাশ্যে চলে আসে। টিটুর নৌকার প্রার্থীদের বিপরীতে এমপি প্রাণ গোপালের ১০ জন নেতাকর্মী বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দাড়ান।

এদিকে ২ জানুয়ারি রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লাইভে এসে প্রয়াত সাংসদ অধ্যাপক আলী আশ্রাফের ছেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোন্তাকিম আশরাফ টিটু বলেন, আমরা শান্তিপূর্নভাবে নৌকার প্রার্থীদের প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু নৌকার প্রার্থীদের ফেল করানোর জন্য স্থানীয় সাংসদ ডা. প্রাণ গোপালের নির্দেশে নৌকার নেতাকর্মী-সমর্থকদের ধরপাকড় শুরু করেছে পুলিশ প্রশাসন। আজ (রবিবার)বরকড়ই ইউনিয়নে আমাদের শান্তিপূর্ন নির্বাচনী মিটিং পন্ড করার জন্য পুলিশ জল কামান নিয়ে হাজির হয়েছে। আমাদের ৫ মিনিটের মধ্যে সভাস্থল ত্যাগ করার নির্দেশ দিয়েছে। আমরা পুলিশ ও ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেটকে তখন বললাম মিটিং বানচাল করে নৌকার প্রার্থীদের ফেল করানোর চেষ্টা করছেন কেন ? তখন ম্যাজিষ্ট্রেট বলেছেন- স্থানীয় সাংসদ মহোদয়ের নির্দেশক্রমে আমরা এসেছি। একসাথে ৫ জন জড়ো হলে তাদের গ্রেফতার করার জন্য বলা হয়েছে। আপনারা চলে যান। মোন্তাকিম আশরাফ ফেসবুক লাইভে আরো বলেন, এমপি প্রাণ গোপাল চাচা তৃণমূল নেতাকর্মীদের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে যেসব প্রার্থীদের ডিউ লেটার দিয়েছিলেন তারাই এখন বিভিন্ন ইউনিয়নে নৌকার বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। আমি থানা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় এমপি প্রাণ গোপাল চাচাকে প্রধান অতিথি করেছিলাম। কিন্তু তিনি আসেন নি। আমি অনেকবার কল করেছি, মুঠোফোনে বার্তা পাঠিয়েছি। তিনি সাড়া দেননি। বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরেছি- ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে নৌকার ভরাডুবির জন্য এমপি বিভিন্নভাবে কাজ করছেন, বিভিন্ন জায়গায় ফোন করছেন, নিজের প্রভাব খাটিয়ে নৌকার প্রার্থীদের ফেল করানোর জন্য সবকিছু করছেন। আমরা চান্দিনা আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ। কোন অপশক্তি আমাদের মধ্যে ভাংগন ধরাতে পারবে না। আমরা ৫ জানুয়ারি ভোটের মাধ্যমে এই জবাব দিবো। নৌকার জয় হবে ইনশাল্লাহ।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমেদ আলম জানান, নৌকার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থীরা অংশগ্রহণ করায় নৌকার ভোট ভাগ হয়ে যাওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে বিএনপি-জামায়াত, এলডিপি সুবিধে নিতে পারে। এমপি মহোদয় প্রকাশ্যে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ না করলেও উনার ডিউ লেটার প্রাপ্ত প্রার্থীরা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

বিদ্রোহী প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহার না করা, এমপি সমর্থিতদের বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করা নিয়ে চান্দিনা আওয়ামীলীগ এখন এমপি ডা. প্রাণ গোপাল এবং মোন্তাকিম আশরাফ টিটুর গ্রুপ দুভাগে বিভক্ত । নৌকা ও বিদ্রোহীদের লড়াইয়ের ফলে বেশির ভাগ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবির আশংকা রয়েছে। বেশ কিছু ইউনিয়নে বিএনপি, এলডিপি ও জামায়াত প্রার্থীরা বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে স্থানীয় সাংসদ ডা.প্রাণ গোপাল দত্তের মুঠোফোনে কল করে মুঠোফোন সংযোগে তাকে পাওয়া যায়নি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি